Header Ads

Breaking News
recent

পারমিতা চক্রবর্ত্তী | জীবনে মরণে রবীন্দ্রনাথ​

রবীন্দ্রনাথ

তিনি এমন একজন মানুষ যাঁকে নিয়ে কিছু লেখার মত স্পর্ধা আজও হয়ে ওঠেনি৷ তাঁকে নিয়ে যে স্মৃতিচারণা করেছেন আপামর বাঙালি তারই​ কিছু কিছু নিদর্শন বলতে পারি৷

ছোটবেলা থেকে দেখেছি পঁচিশে বৈশাখ​ দিনটি অন্যরকম ভাবে কাটত। সকাল থেকেই সবার মধ্যে থাকত​ উম্মাদনা। আগের দিন দেওয়াল থেকে তাঁর ফটোখানি নামিয়ে ভালো করে পরিষ্কার করা হত। তাঁর স্থান ছিল আমাদের বাড়িতে ঠাকুরের তাকের ঠিক পাশে৷ নিয়মিত ভাবে তাঁকে ধূপ, দীপ দেখানো হত৷ সকালে​ বাবা​ মোটা একটা জুঁই ফুলের মালা আনতেন৷ সাথে থাকত নানা রঙের ফুল । একটা বড় ফুলদানীকে ভালো করে মা তেঁতুল দিয়ে মেজে রাখতেন আগেরদিন ৷ সেই মাজার ঠঙঠঙ আওয়াজটা আজও যেন কানে বাজে৷ মা খুব যত্ন সহকারে নিজেই ফুলদানি মাজতেন। এরপর স্নান সেরে মা পড়তেন পাটের শাড়ি। সেই শাড়িটা আমার কাছে ছিল একটা মাধ্যম ৷ আমি ছোটবেলায় ভাবতাম ঠাকুরের সান্নিধ্য পেতে হলে ওই শাড়িটা পড়তে হবে৷ ওই শাড়িটির প্রতি ছিল আমার অগাধ বিশ্বাস৷ সেই বিশ্বাস আমার আজও আছে৷ যেমন বিশ্বাস ছিল রবী ঠাকুরের প্রতি৷ মা বলতেন তাঁর জীবনে একটাই ঠাকুর তিনি৷ সেটা তিনি৷

আমার বয়স যখন সাত বছর ৷ মা তখন আমাকে চন্দন বাটতে শিখিয়ে দেন৷ সেই চন্দনের গন্ধ আর মাযের গায়ের গন্ধ দুটোই ছিল আমার কাছে সমান৷ চন্দন বাটা হত গঙ্গা জল দিয়ে৷ একটা রূপোর বাটিতে রাখা হত তাকে৷ তারপর শুরু হত ফটোতে চন্দন লাগানো। সুন্দর করে আলপনার মত করে সাজানো হত ছবিখানি৷ বার বার করে মুছে মা ঠিক করতেন। বলতেন-

ওনার ছবিতে সুন্দর করে আলপনা আঁকতে হয়। বিশ্ব কবি উনি৷ আমাদের গর্ব৷ যত্ন করে সাজাতে হয় ওনাকে৷ ধূপ আর মালার গন্ধ সারাদিন একটা আবেশ জড়িয়ে থাকত৷ এই দিনগুলির এত অমোঘ আকর্ষণ ছিল যার থেকে আজও বেরিয়ে আসতে পারা যায় না৷ বেলা বাড়ার সাথে সাথে পাড়ায় শুরু হত ওনার গান৷ আমাদের পাড়ায় তখন রবীন্দ্রজয়ন্তী পালন হত৷ সেখানে চিত্রাঙ্গদা, নিরুপমা ইত্যাদি নৃত্যনাট্য হত। তখন রবি ঠাকুরকে ছুঁয়ে দেখার সুযোগ হত নাচ , গানের মাধ্যমে৷ সুন্দর করে শাড়ি , মালা পড়ে নাচ হত বেশ রাত্তির পর্যন্ত৷ একটু বড় হতে পাড়ার রবীন্দ্রজয়ন্তী বন্ধ হয়ে যায়।তখন বয়স একটু বেড়েছে। ক্লাস এইট কী নাইন হবে৷ এই সময় মনে হত রবীন্দ্রনাথ একেবারে আমার নিজস্ব ৷ কোন ধূপ দীপ নয় মনের মাধুরী মিশিয়ে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেছি৷ জীবনের যখন হাতাশা এসেছে ওনার কবিতা পড়েছি৷ ৷ তিনি যেন ঈশ্বরের মত পথ দেখিয়েছেন৷ ভালোবাসতে শিখিয়েছেন৷ তাঁর লেখায় যে দর্শন আছে জীবন দিয়ে উপলব্ধি করেছি। জীবনে যখন থেকে লিখতে শিখেছি তাঁকে অনুসরণ করে গেছি ৷ জীবনের সমস্ত জটিল পথে তাঁর এই গান বীজমন্ত্র হয়ে গেছে৷

"জীবন মরণের সীমানা ছাড়ায়ে
বন্ধু হে আমার রয়েছ দাঁড়ায়ে
জীবন মরণের
এ মোর হৃদয়ের বিজন আকাশে
তোমার মহাসন আলোতে ঢাকা সে
গভীর কী আশায় নিবিড় পুলকে
তাহার পানে চাই দু বাহু বাড়ায়ে
জীবন মরণের"

এই গানখানি আমাদের জীবনের মনিকোঠায় চিরকাল থেকে যাবে৷ আমাদের জীবনে চিরকাল রবীন্দ্রনাথ ছিলেন থাকবেন। তিনি আমাদের জীবনে আলো৷ সেই আলোর ছটায় আমরা আলোকিত৷​ তাঁকে​ নিবেদন করা আমার প্রথম লেখা কবিতা

বাদল দিনে

এমন বাদল দিনে তারে ভোলা যায়​
গগনে মেঘরাশি চমকায়​
আঁখিতে অশ্রুরাশি ,
মিশিছে চারিধার ।

হৃদয় রাঙিছে বনছায় ,
কুসুম কাননে কে যেন গড়িছে ফুলহার৷​
যে লয়ে এসেছে মোরে ,
একি তারি লাগি উপহার ?

এমনি দিনে তারে বলা যায়​
ব্যাকুল বেগে প্রেম বাহিছে চারিধার ,
হৃদয় মিলেমিশে একাকার 
সে কথা আজি যেন বলা যায় ,
তোমারে ভালবাসি শতবার ৷​


এই ভালোবাসা যেন চিরকাল একই থাকে৷

কোন মন্তব্য নেই:

সুচিন্তিত মতামত দিন

Blogger দ্বারা পরিচালিত.