x

প্রকাশিত | ৯৪ তম মিছিল

কান টানলেই যেমন মাথা আসে, তেমন ভাষার প্রসঙ্গ এলেই মানুষের মুখের ভাষার দৈনন্দিন ব্যবহারের কথাও মনে পড়ে যায়, বিশেষত আজকের দিনে। ভাষা দিবস মানেই শুধু মাতৃভাষা নিয়ে আবেগবিহ্বল হয়ে থাকার দিন বুঝি আজ আর নেই!

কেননা সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে যাঁরা মাথায় বসে আছেন, বিশেষত যাঁরা রাজনীতির পৃষ্ঠপোষকতায় ক্ষমতাভােগী এবং লােভী, তাঁদের মুখের ভাষা এবং তার প্রয়ােগ আজ ঠিক কতটা শিক্ষণীয় এবং গ্রহণীয় সেটা শুধু ভাবার নয়, রীতিমতো শঙ্কার এবং সঙ্কটের।

সবই কি তবে মহৎ ভাবনা, অনুপ্রেরণার জোয়ার? নাকি রাজনৈতিক কারবারিরা 'সুভাষিত' শ্রবণাতীত বয়ানে নিজেদের অক্ষমতার মদমত্ত প্রকাশ করছেন? সাধারণ ছাপােষা মানুষ বিস্ফারিত চিত্তে এই ভাষাসন্ত্রাস,এই ভাষাধর্ষণ দেখতে শুনতে ক্লান্ত। এর থেকে উত্তরণের উপায় এখনও অবধি কোনাে ভাষা দিবস দেখাতে পারেনি। এবারের ভাষা দিবসের কাছেও কি সেই উপায় আছে? নাকি এই খেলা হবে, চলবে ... মেধাহীন গাধাদের দৌলতে?

চলুন মিছিলে 🔴

রবিবার, জানুয়ারী ৩১, ২০২১

চিন্ময় ঘোষ

sobdermichil | জানুয়ারী ৩১, ২০২১ | | মিছিলে স্বাগত
শব্দের মিছিল

■ নির্লজ্জ


যে রঙ তোমার পছন্দের না
সুযোগ পেয়েই ঘ্যাচাং ফুঃ!
তখন তোমার সবটুকুতেই ফিলগুড
সর্বময় অধিষ্ঠাত্রীর দেয়ালা সুখ
তার গন্ধ এমন ম' ম'
চারপাশে সব মধুমক্ষির ভন্ ভন্ ভিড় চ্যালা-চামুণ্ডা অতি তৎপর​
জুটলো কত চাটুকার আর মোসাহেবি চাকরবাকর
ফটাং ফটাং চলার ফ্যাশন তোমার কেতা
কত কেলো-কেষ্ট-বিষ্টু-কানকাটাদের​
হিল্লে হলো
একে ধর ওকে ছাঁট, বেগরবাই
করলে পরেই টুসকি মেরে দে উড়িয়ে!​
পা চাঁটছে কতো কুকুর​
আদেখলা সেয়ানাঘুঘু উচ্ছিষ্টের ভাগ পাবে তাই পায়ের কাছে করছে ঘুরঘুর
হারাম খেকো আরাম-বিরাম সুখের মোহে​
জুটলো যত খচ্চর আর কিছু গাধা​
ট্যাঁ ফু আর কেউ করেনা এখন তারা​
কিন্তু দ্যাখো, লুটতরাজের নেশার ঘোরে
খেই হারিয়ে যা-ই বলছো​
এখন কেউ আর শুনছেনা তা,ঘটি বাটি​
সবই তোমার যায়রে বুঝি!​
সুযোগমতো ঢঙয়ের খেলার সঙটি সাজো
তোমার খাপে যথাযথ মানানসই তা
শালীনতা শিষ্টাচারের পাঁচিল ভেঙ্গে​
ভিক্ষাপাত্র হাতে নিয়ে​
নেমে এলে সুযোগমতোই​
পিছন ফিরে দেখলেই না​ ​
আবালবৃদ্ধ অগনিত মুখের ভিড়ে​
চোখের জলে ধুয়ে যাচ্ছে এক চেতনা​
ভেসে যাচ্ছে প্রিয়তম একটি মানুষ​
স্বভাবে ছিল তোমার রঙের বড্ড অমিল
তাকেই তুমি নিতান্ত এক পণ্য ভেবে​
বাজার করতে নেমে পড়লে!
​ ​ ​ ​ ​ ​ ​ ​ ​ ​ ​ ​ ​ ​ 

■ পত্রপুট

মুখের কথা মুখ ফস্কেই বেরিয়ে যায়​
ঘাট পেরিয়ে ওপার গেলেই​
সে সব কথা ফুস মন্তর
কে আর বলো পড়ছে গেরোয়
কথা কি আর কথায় থাকে​
নেহাতই এক পত্রপুটের বর্ণচোরা মুখের গড়ন ভাসতে ভাসতে আকাশ ভ্রমণ​
রোদ বৃষ্টি ধুলাবালির বছর কয়েক গেরস্থালি
খেলতে খেলতেই কথারা সব তুলট কাগজ​
ভাঙাচোরা অক্ষর সব ন্যাতানো খড়
সময়টি যেই ফুরিয়ে এলো
দরজাখানায় টোকা দিল হুঁশবাবাজি​
বাঁশি তো সেই বেজেই গেলো পরের খেলার​
আবার মাঠে নামতে হবে বদলি ঢঙে​
নতুন ঠমক​
গায়ের জামা পাল্টে ফেলো
সুতলি নতুন, পুরোনো সেই খড়কাঠামো
অন্য সাজে আবার নতুন​
রঙবাহারি পত্রপুটের নতুন গমক

এমন খেলা বুঝবে বল কোন আহম্মক!
​ ​ ​ ​ ​ ​ ​ ​ ​ ​ ​ ​ ​ ​ 

■ সূর্যস্নান

দুচোখে জড়ানো ঘুম​
রাতের উপান্তে জ্বলে শুকতারা​ ​
স্থির চোখে চেয়ে চেয়ে ভোরকে সে ডাকে​
আমার যে যত সুখ শামুকের খোলে
জড়তার জাল ছিঁড়ে
নিষ্পাপ মুখখানি তাইতো খুঁজিনা
এভাবেই ভোর আসে রোজ, ফিরেও সে যায়​
দ্বিধাহীন খুলে দেয় আলোর মুকুর​ ​
রাত জুড়ে জমে থাকা পিচ্ছিল ভয়
লালিমায় ধুয়ে যাক সূর্য সকালে​
কে আছো, ভাঙাও ঘুম সজোর আঘাতে
এসো, একসঙ্গে করি সূর্যস্নান
ভোরের প্রথম রঙে​
আগামীর দিন হোক রাঙা।

Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ আপডেট পেতে,পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.