x

প্রকাশিত | ৯২ তম মিছিল

মূল্যায়ন অর্থাৎ ইংরেজিতে গালভরে আমরা যাকে বলি ইভ্যালুয়েশন।

মানব জীবনের প্রতিটি স্তরেই এই শব্দটি অবিচ্ছেদ্য এবং তার চলমান প্রক্রিয়া। আমরা জানি পাঠক্রম বা সমাজ প্রবাহিত শিক্ষা দীক্ষার মধ্য দিয়েই প্রতিটি মানুষের মধ্যেই গঠিত হতে থাকে বহুবিদ গুন, মেধা, বোধ বুদ্ধি, ব্যবহার, কর্মদক্ষতা ইত্যাদি। এর সামগ্রিক বিশ্লেষণ বা পর্যালোচনা থেকেই এক মানুষ অপর মানুষের প্রতি যে সিদ্ধান্তে বা বিশ্বাসে উপনীত হয়, তাই মূল্যায়ন।

স্বাভাবিক ভাবে, মানব জীবনে মূল্যায়নের এর প্রভাব অনস্বীকার্য। একে উপহাস, অবহেলা, বিদ্রুপ করা অর্থই - বিপরীত মানুষের ন্যায় নীতি কর্তব্য - কর্ম কে উপেক্ষা করা বা অবমূল্যায়ন করা। যা ভয়ঙ্কর। এবং এটাই ঘটেই চলেছে -

চলুন মিছিলে 🔴

শুক্রবার, ডিসেম্বর ২৫, ২০২০

রুমকি রায় দত্ত

sobdermichil | ডিসেম্বর ২৫, ২০২০ | | মিছিলে স্বাগত

 

রুমকি রায় দত্ত

■মিজোরামে বড়দিন

মিজোরামের ৯৮% অধিবাসীই খ্রিস্টান। ২৪শে ডিসেম্বর রাত মানেই এখানে ধামাকাদার পার্টি। ঠিক সন্ধে সাতটা। আমরা হোটেল থাকে বেরিয়ে পড়লাম প্রায় এক কিলোমিটার দূরে আর্মি ক্যাম্পের দিকে। আগের দিনের মত রাস্তা অতটা ফাঁকা নয়। তবে সব থেকে লক্ষণীয় বিষয় হল। রাস্তায় স্টেট ট্রান্সপোর্ট তো নয়, পাবলিক ট্রান্সপোর্টও চোখে পড়ল না। রাতের অন্ধকারে অচেনা পথে হাঁটতে শুরু করলাম আমরা দু’জন আর রূপেনদা। রূপাদি ও ছেলে,মেয়ে হোটেলেই রয়েছে। যাওয়ার পথে ফুটপাথ আমাদের বামদিকে। এখানে রাস্তায় একদিকেই ফুটপাথ। কিছুটা এগিয়েছি সবে, হঠাৎ একটি অল্প বয়সের মিজো ছেলে আমাদের সামনে এসে দাঁড়িয়ে আমার কত্তাকে জড়িয়ে ধরে বুকের কাছে টেনে নিতেই চমকে উঠলাম আমরা। ঠিক কী করতে চায়ছে! ফিসফিস করে কি যেন বলল। তারপর আমার দিকে এগিয়ে এসে হ্যান্ডসেক করার মত হাতটা চেপে ধরে নেশা জড়ানো গলায় বলল, ‘মেরি খ্রিস্টমাস’। আঃ! বড় একটা নিঃশ্বাস নিলাম। এখানে আসার আগে যে যে ভয়ের কারণ গুলো জানতে পেরেছিলাম,তারমধ্যে একটি হল ছিনতাই। শুনেছিলাম পথা চলতি লোকের মানিব্যাগ তুলে নেয়। আর ছিনতাইয়ের টাকায় ইঞ্জেকশন নেয় শিরায়। এক অনাবিল নেশার আনন্দে মেতে ওঠে বিভিন্ন বয়সের মানুষ। এখানে কোনও ইন্ডাস্ট্রি নেই। ট্যুরিস্টও তেমন আসে না। ফলে আর্থিক কাঠামো বেশ দুর্বল। রক্তে নেশার আগুন জ্বললে ছিনিয়ে নিতেও সংকোচ জাগে না। অজানাকে চিরকালই মানুষ ভয় পেয়ে এসেছে আবার সেই অজানাকে জানার চেষ্টায় ছুটে গিয়েছে সেই দিকে। আমরাও তো তার ব্যাতিক্রম নই, তাই মনের অতলে একটা অজানা আশঙ্কা নিয়ে হাঁটতে হাঁটতে গিয়ে পৌঁছালাম আর্মি ক্যাম্পের কাছে চারমাথার মোড়ে। আলোয় ঝলসে যাচ্ছে চারিদিক। চার্চের সামনে বিশাল একটা স্টেজ। বিশাল এক কফি নাইটের আয়োজন। রাস্তার কিছুটা অংশ ঘিরে ভি আই পি বসার আয়োজন। একটা করে সেন্টার টেবিল আর চারটে চেয়ার। একটি সুন্দরী মিজো মেয়ে প্রত্যেক টেবিলে একটা করে ভাঁজ করা কাগজ রেখে চলে গেল। জানা হলো না কেন। সুযোগ পেলাম না কাউকে জিজ্ঞাসা করার। চারপাশে সাধারণ মিজো বাসিন্দার ভিড়। যেদিকে তাকাই অল্প বয়সের, মাঝ বয়সের যুবক-যুবতীরা মদ্দপ অবস্থায় হুল্লোড় করছে, ঢলে পড়ছে একে অপরের গায়ে। স্টেজে অর্কেস্টার সাথে একটি বাচ্চা মেয়ে মিজো ভাষায় উদ্‌বোধনী সঙ্গীত গাইছে। না, কোনো ট্র্যাডিশনের ছোঁয়া পেলাম না। আমরাও মিজোদের ভিড়ে মিশে দাঁড়িয়ে পড়লাম। নাচ, গান সবেতাই সেই পাশ্চাত্যের উপস্থিতি। 

রুমকি রায় দত্ত

‘ আন্তোরিয়াম’ মিজোরামের প্রিয় ফুলের নামে এই উৎসবই এখানকার ট্র্যাডিশন্যাল উৎসব। এপ্রিল-মে মাসে সাতদিন ধরে এখানকার ট্র্যাডিশন্যাল নাচ,গান চলে। থাকে হাতে তৈরি জিনিসের পসরা। কিন্তু এখানকার মানুষ পাশ্চাত্য কালচারকে এত ভীষণ ভাবে গ্রহণ করেছে যে, খ্রিস্টমাসের এই উৎসব প্রায় ওদের জাতীয় উৎসবের আকার ধারণ করেছে। ভাবা যায়, টানা দশদিন কেউ দোকানপাট খুলবে না, রাস্তায় কোনো পাবলিক ট্রান্সপোর্ট  রাজধানীর বাইরে যাবে না বা বাইরের গাড়িও প্রায় আসে না বললেই চলে। 

আগেরদিনই পুঁইয়া জি বলেছিলেন, ‘ আপ লোগোকা দুর্গাপূজা য্যাইসা হামারা খ্রিস্টমাস সেলিব্রেশন’। আগষ্ট-সেপ্টেম্বর মাসে ‘মিম কূট’ নামে একটি বিশেষ উৎসব হয়। ভুট্টা চাষকে কেন্দ্র করে। নতুন ফসল ঘরে তোলার আগে মাচায় রেখে পূর্বপুরুষকে উৎসর্গ করা হয়। এই উৎসবটার সাথে বেশ একটা মিল পেলাম আমাদের নবান্নের। আসলে ভারতের নানা ভাষা, নানা পথ, নানা জাতির মধ্যেই কোথাও যেন একটা মিলন সূত্রে গাঁথা আছি আমরা!

২৫শে ডিসেম্বর সকাল। আগের দিন রাতেই হোটেলের ম্যানেজার কপালে একটা অশনি সংকেত ঝুলিয়ে দিয়েছেন। আসাম থেকে কোনো গাড়ি আসছেনা। আর মিজোরাম থেকে কোনো গাড়ি এই মরশুমে (আসাম) শিলচর যেতে নারাজ।এমন হলে ২৬ তারিখ শিলচর যাওয়া হবে না। বদলে যাবে ভ্রমণসূচি। একটা চিন্তার ভাঁজ কপালে নিয়েই ঘুম থেকে ওঠা। ২৫ তারিখ প্রথমে আমাদের গন্তব্য ছিল তামডিল লেক। কিন্তু এখানে এসে শুনলাম তেমন কিছু দেখার মত নয়, তাই সে পথে না গিয়ে আমরা চললাম শহরের মধ্যস্থলে অবস্থিত ‘সলমন টেম্পল’ এ। এটি এখানকার একটি বিখ্যাত চার্চ। বড়োদিনের সকালে আইজলের রাস্তা পোশাকের রঙে আর মানুষের ভিড়ে সেজে উঠেছে। রাস্তায় নজরে আসা প্রতিটি মিজো রমণীর পরনে ‘পঞ্চেই’, উপরে ব্লাউজ। এটাই এখানকার ট্র্যাডিশনাল পোশাক। এই বিশেষ দিনে চার্চ সব সম্প্রদায় এর জন্য অবাধ প্রবেশ। প্রধান দরজা দিয়ে ভিতরে প্রবেশ করতেই মনে হল তারায় মোড়া কোনো এক ঘুমের রাজ্যে পৌঁছে গিয়েছি আমরা। সামনেই দুধসাদা বিশাল আকারের সলমন টেম্পল দাঁড়িয়ে। বিস্তৃত বাগান যেন এক আজব দুনিয়া! প্রার্থনা সঙ্গীত ভেসে আসছে। সে সুরের আবেশ গোটা চার্চের চারিপাশে যেন এক ইন্দ্রজাল ছড়িয়ে দিয়েছে। স্থানীয় খ্রিস্টানধর্মাবলম্বী মিজোদের দুপুরে এখানেই আহারের ব্যবস্থা। পুরো চার্চ ঘুরে দেখতে প্রায় ঘন্টাখানেক সময় কোথা দিয়ে যেন কেটে গেল! কিন্তু চার্চের অভূতপূর্ব পরিবেশের আবেশ স্রোতস্বিনী নদীর মতো অন্তরে প্রবাহিত হতে লাগল। সে আবেশ বুকে নিয়ে  আমরা চললাম আমাদের আলটিমেট গন্তব্য ‘ রেইক হেরিটেজ ভিলেজ’। সেখানে আছে মিজোরামের আদিম অধিবাসীদের ব্যবহারের গৃহসামগ্রী, বাড়ি ঘর এইসব। এখানে আসার আগে থেকেই এই স্থানটির প্রতি একটা অমোঘ আকর্ষণ ছিল। মনে এক অনন্ত পরিতৃপ্তি নিয়ে যখন ছুটে চলেছি হেরিটেজ ভিলেজের পথে, কোথায় যাচ্ছি, কেন যাচ্ছি সব ভুলে হারিয়ে গেলাম এক অনন্য দুনিয়ায়। এখানকার পথ মায়াবিনী! এ পথে,পথ হারাতেও ভালো লাগে, ভালো লাগে অনন্তকাল ধরে চলতে। চোখ কিছুতেই ক্লান্ত হয় না, মনের তৃষ্ণা মেটে না! প্রায় ঘন্টাখানেকের পথ পেরিয়ে পৌঁছালাম “যোকহাম, ফালকান”। যদিও এটা মিজোরাম ‘আর্ট এন্ড ক্যালচার ডেভলপমেন্ট’ ডিপার্টমেন্টের অংশ তবুও ২৫শে ডিসেম্বর খোলা ছিল। প্রবেশদ্বারের বাঁ দিকে টিকিট কেটে এগিয়ে চললাম আমরা। একটা ছায়াঘেরা কাঁচা সরু রাস্তা এঁকে বেঁকে চলে গিয়েছে সামনে। একটু এগিয়ে বাঁদিকে একটা চাতালে আমরা ব্রেকফাস্ট সারছি যখন, হঠাৎ নজর থমকে গেল গোটা চার যুবকের দিকে। চাতাল থেকে কয়েকহাত দূরেই বসে আছে। একজনের হাতে একটা লোহার দন্ড বাকিদের হাতে বিশাল আকারের চকচকে ধারালো অস্ত্র। তাতে শান দেওয়া চলছে। ওরা নিজেদের মধ্যে মিজোভাষায় কিযেন বলে চলেছে। চারিদিকে নির্জন, ছুটিরদিন অফ সিজন। ট্যুরিস্ট বলতে শুধু আমরা ক’জন। কেমন যেন গা টা ছমছম করে উঠল। দূরে কোনো চার্চ থেকে অজানা এক বাদ্যযন্ত্রের পাহাড় কাঁপানো দম দম আওয়াজ ভেসে আসছে। হঠাৎ-ই লোকগুলো উঠে দাঁড়িয়ে আমাদের চাতালের দিকে এগোতে লাগল। না, কিছুটা এগিয়ে ওরা চাতালের পাশ দিয়ে পাহাড়ের ঢাল বেয়ে নীচে চলে গেল। বুঝলাম, শিকারের আয়োজন চলছিল এতক্ষণ। আমরাও ব্রেকফাস্ট সেরে সামনে এগোতে লাগলাম। একটা বড় মাঠের মত অংশে মডেল ঘর গুলো সাজানো রয়েছে। এখানে ঘর বানানোর মূল উপাদান বাঁশ। সাধারণত ৫ বছরের পুরানো বাঁশকে মূল ফাউন্ডেশনের কাজে লাগানো হয়। ছাদ ও দেওয়াল গঠন করতে ৩ বছরের পুরানো বাঁশ ব্যবহার করা হয়। পিলার হিসাবে কাঠের যে দন্ড ব্যবহার করা হয় তাকে মিজো ভাষায় বলে ‘ SUT’. যদিও বৃষ্টিপ্রবণ অঞ্চল বলে এখানে ঘরের ছাদে ঢাল থাকে, তবুও আমাদের কড়িবরগার মত এদের ছাদের কাঠামোর অংশ দুটিকে বলে ‘KHANTHHUK’ , ‘ SECHHUAR’. ঘরের মেঝে ও দেওয়াল তৈরি করা split bamboo, flat bamboo. দিয়ে।

রুমকি রায় দত্ত

একটা বিশাল আকারের বাঁশেরঘর দেখে আমরা ভিতরে গেলাম। ছোট্ট বারান্দা মত অংশের পরই দেখলাম আর এগোনোর উপায় নেই। হলঘরের মত বড় ঘরটির এপ্রান্ত থেকে ওপ্রান্ত কোমর সমান উচ্চতায় কাঠের পিলার দিয়ে আটকানো। ওপারে যেতে হলে ডিঙিয়ে যেতে হবে। মাঝ বরাবর একটা কমন আগুন পোহানোর জায়গা। বুঝতেই পারছিলাম এটা গ্রামের পঞ্চায়েত জাতীয় বিশেষ কোনো স্থান। এই নিয়ে আমাদের আলচনার মাঝেই এক ভদ্রলোক এসে দাঁড়ালেন আমাদের কাছে। অস্পষ্ট হিন্দি মেশানো বাংলায় বললেন ‘ এটা আসলে মিজো আদিবাসীদের যৌবনের সূচক নির্নয়ক ঘর। মিজো আদিবাসী যুবকদের মধ্যে যারা এটা টপকে ওপ্রান্ত প্রবেশ করতে পারবে, তারা যুবক হয়েছে বলে মেনে নেবে সমাজ। এহেন বিদেশে বাংলা বোঝা মানুষ পেয়ে আমরা যে অবাক,সেটা বুঝি বলার অপেক্ষা রাখে না। আসলে ভদ্রলোকটি চাকরি সুত্রে ২ বছর পশ্চিমবঙ্গে কাটিয়েছেন। ওনার কাছে জেনে নিলাম এখানে রাখা আদিবাসীদের ব্যবহারের জিনিস গুলির নাম,কাজ। একটা সিঙা মত জিনিস হাতে তুলে বললেন, ‘ এটা আদিবাসী যুবকদের কাছে খুব সম্মানের জিনিস। কোনো বীর যুবক সাহসের কাজ করলে রাজা তাকে মদ্যপানের পাত্র হিসাবে এই জিনিসটি উপহার দিত’। আরও অনেক ছোটো গল্প শুনতে শুনতে মাঝে মাঝে যেন কোথায় হারিয়ে গেলাম। কল্পনারা ডানা মেলে উড়ছিল। অদেখা এক আদিম জনজাতির নিজস্ব সমাজ জীবনের অলিতে গলিতে। ওই তো, এক যুবক লাফ দিয়ে পৌঁছে গেল ওপারে। তার হাতে রাজা তুলে দিলেন মদ্যপানের পাত্র।

রেইক ভিলেজ থেকে বেরিয়ে পাশেই দেখলাম একটা আদিবাসী গ্রাম। একটি মানুষেরও দেখা মিলল না। ছায়া ছায়া  রাস্তায় নিঃশব্দে হেঁটে যেতে যেতে দেখলাম, ডানদিকে পাহাড়ের ঢালে বাঁশের খুঁটির উপর বাঁশের ঘর, শৌচাগার, শূকর রাখার বাঁশের খাঁচা, প্রতিটা বাড়ি একই। আধুনিকতা বলতে বাঁশের দরজায় ঝুলানো মিটার আর বৃষ্টির জল সঞ্চয়ের জন্য জলের ট্যাংক। এইতো আধুনিক আদিবাসী সমাজ। কিন্তু কেমন ছিল প্রাচীন সে সমাজ? ঐ বিজয়ী যুবককে দেখে কি কোনো যুবতীর বুক কাঁপছিল? অথবা সমবয়সি অন্য যুবকের ঈর্ষার আগুনে বিদ্ধ হচ্ছিল তার হৃদয়! কেমন ছিল  অপরাধ, শাস্তি, শান্তি, প্রেম, ভালোবাসা মিলিয়ে মি(জাতি) জো (পাহাড়) রাম (ভূমি)?

রেইক ভিলেজ থেকে ফেরার পথে বড়োদিনের মিজোরামকে একটু অন্য ভাবেও দেখলাম।আসলে এখানে প্রকৃতি প্রেমময়, সবুজ যৌবনের হাতছানি অসীম। বড়োদিনের দুপুর হতেই নির্জনে নিভৃতে যুবক-যুবতির একান্ত যাপন হঠাৎ করে বাঙালির ভ্যালেন্টাইন ডে সরস্বতী পুজোর কথা মনে করিয়ে দেয়। পথের বাঁকে বাঁকে সরকারী সচেতনতার বোর্ডে একেবারে অন্য বার্তা নজরে আসে--‘’use comdom”. আমি যেটুকু দেখলাম আজকের মিজো মানুষগুলো বেশ ভালো, অতিথিপরায়ণ,মিশুকে। 

প্রয়োজনীয় তথ্য

● উড়ো পথে কোলকাতা থেকে লেংপুই এয়ারপোর্ট পৌঁছাতে সময় লাগে কমবেশি একঘন্টা পনেরো মিনিট। লেংপুই থেকে গাড়ি যায় আইজল। সময় লাগে একঘন্টা।

● এছাড়া ট্রেনে গোহাটি পৌঁছে ওখান থেকে বাসে পৌঁছানো যায় আইজল। তবে সেই রাস্তা খুব কষ্টকর ও সময় সাপেক্ষ।

● এখানে উন্নতমানের ভালো হোটেল আছে। আছে chaltlang tourist lodge, berawtlang cottage, government guest house.

গাড়িভাড়া ও হোটেল এখানে বেশ ব্যয়বহুল।

Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

�� পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ শব্দের মিছিলের সর্বশেষ আপডেট পেতে, ফেসবুক পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.