x

প্রকাশিত

​মহাকাল আর করোনাকাল পালতোলা নৌকায় চলেছে এনডেমিক থেকে এপিডেমিক হয়ে প্যানডেমিক বন্দরে। ওদিকে একাডেমিক জেটিতে অপেক্ষমান হাজার পড়ুয়ার ভবিষ্যৎ।​ ​দীর্ঘ সাতমাসের এ যাপন চিত্র মা দুর্গার চালচিত্রে স্থান পাবে কিনা জানি না ! তবে ভুক্তভোগী মাত্রই জানে-

​'চ'য়ে - চালা উড়ে গেছে আমফানে / চ'য়ে - কতদিন হাঁড়ি চড়েনি উনুনে / চ'য়ে - লক্ষ্মী হলো চঞ্চলা / চ'য়ে - ধর্ষিতা চাঁদমনির দেহ,রাতারাতি পুড়িয়ে ফেলা।

​হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা মানুষটি লালমার্কার দিয়ে গোল গোল দাগ দেয় ক্যালেন্ডারের পাতায়, চোদ্দদিন যেন চোদ্দ বছর। হুটার বাজিয়ে শুনশান রাস্তায় ছুটে যায় পুলিশেরগাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স আর শববাহী অমর্ত্য রথ...। গঙ্গা দিয়ে বয়ে গেছে অনেকটা জল, 'পতিত পাবনী গঙ্গে' হয়েছেন অচ্ছুৎ!

এ কোন সময়ের মধ্যে দিয়ে চলেছি আমরা?

ছবিতে স্পর্শ করুন

শব্দের মিছিল

অতিথি সম্পাদনায়

সমীরণ চক্রবর্তী

বুধবার, সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২০

সুমনা পাল ভট্টাচার্য

sobdermichil | সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২০ | | মাত্র সময় লাগবে লেখাটি পড়তে।
সুমনা পাল ভট্টাচার্য

ভরাডুবি


বুকের ঠিক মাঝবরাবর একটা পেরেক ফুটে আছে...
যন্ত্রণায় ছটফট করতে করতে একসময় বরফের মত হিম হয়ে গেছে কাটাকুটির ঘর,
ওই স্থির তামাটে রক্তের জঙ তালুময় মেখে শিরায় আঁশটে পিছুটান।

এই মৌনতার মাঝে বুকের ডিঙি বেয়ে স্বপ্নের মত প্রেমের ঘাটে গিয়ে দাঁড়াই..
চেয়ে চেয়ে দেখি কতো নৌকাডুবি, কতো পারাপার, কতোই না জোয়ার- ভাঁটা..
একলা হবার গভীরে এই যে তীক্ষ্ণ সুখ, তা জিভের ডগায় চেখে ধাতব গন্ধ চিনে রাখি।
সঞ্চিত অভিমান সময়ের বয়ামে ভরে তাপ শুষে নেয় চার আঙুলের কপাল...

এমন সময়, প্রচন্ড ভার ঠেলে আকাশের দিকে দুহাত তুলে বৃষ্টির আজান শুনতে চায় মন।
প্যাস্টেল রঙ হাতড়ে আঁকতে চায় হলুদ, গোলাপী পালক।
আমার কেয়াপাতার নৌকো আজ আর কোনো কূলে চেনে না,
সে চায় তুফান...
আস্ত একটা ভরাডুবি।।



◆ লেখক পরিচিতি

Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

Support : FACEBOOK PAGE.

সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ ,আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা

Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.