x

প্রকাশিত

​মহাকাল আর করোনাকাল পালতোলা নৌকায় চলেছে এনডেমিক থেকে এপিডেমিক হয়ে প্যানডেমিক বন্দরে। ওদিকে একাডেমিক জেটিতে অপেক্ষমান হাজার পড়ুয়ার ভবিষ্যৎ।​ ​দীর্ঘ সাতমাসের এ যাপন চিত্র মা দুর্গার চালচিত্রে স্থান পাবে কিনা জানি না ! তবে ভুক্তভোগী মাত্রই জানে-

​'চ'য়ে - চালা উড়ে গেছে আমফানে / চ'য়ে - কতদিন হাঁড়ি চড়েনি উনুনে / চ'য়ে - লক্ষ্মী হলো চঞ্চলা / চ'য়ে - ধর্ষিতা চাঁদমনির দেহ,রাতারাতি পুড়িয়ে ফেলা।

​হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা মানুষটি লালমার্কার দিয়ে গোল গোল দাগ দেয় ক্যালেন্ডারের পাতায়, চোদ্দদিন যেন চোদ্দ বছর। হুটার বাজিয়ে শুনশান রাস্তায় ছুটে যায় পুলিশেরগাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স আর শববাহী অমর্ত্য রথ...। গঙ্গা দিয়ে বয়ে গেছে অনেকটা জল, 'পতিত পাবনী গঙ্গে' হয়েছেন অচ্ছুৎ!

এ কোন সময়ের মধ্যে দিয়ে চলেছি আমরা?

ছবিতে স্পর্শ করুন

শব্দের মিছিল

অতিথি সম্পাদনায়

সমীরণ চক্রবর্তী

মঙ্গলবার, জুলাই ১৪, ২০২০

নিশিকান্ত রায়

sobdermichil | জুলাই ১৪, ২০২০ |
কসমিক রাতের 
জোছনায়

ভুলো যৌবন ঢেলে শুয়ে আছে চাঁদ।​
তুলো তুলো মাটি জড়িয়ে রেখেছে তাকে।
কার অপেক্ষায় থাকি!​

দূর পাহাড়ের কোলে ঘাসফুল। ওরাও কি ঘুমহীন একা?
জোছনা মেখে উড়ে যায় পাখি। ডানার শব্দে ভাঙে ঘুম।
আর আসে না, আসে না। দুটো চোখ নিরুপায় জাগে।
আমার সামনে আলো পিছনে আলো, আলো দশদিকে।
বাকহীন আলোর ভেতরেই আমি। বার বার নক্ষত্র হতে চাই।

ছুটতে ছুটতে কসমিক আলোর ডানা জাপটে ধরি।পেয়ে গেলে তোমাকে একটা পালক ফেলে দেব।​
পৃথিবীর এখন মন খারাপ। চলো না অন্য কোথাও।
ভাসতে ভাসতে ভেঙে টুকরো টুকরো হয়ে যাই। প্রতিটি খাঁজ জুড়ে লিখে রাখি তোমাকে আমাকে।​
দুরন্ত গ্রহানু হয়ে আছড়ে পড়ি মধ্যিখানে।
চারদিক থেকে খসখসে তাপ উড়িয়ে নিয়ে যাক আমাদের।

ধূলিঝড়ে সূর্যটাকে ঢেকে দিয়ে জিড়িয়ে নি একটু খানি।
আবার তুমি আমি, আমি তুমি, আমি তুমি ;শুধু তু-আ হয়ে যাই।​
Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

Support : FACEBOOK PAGE.

সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ ,আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা

Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.