x

প্রকাশিত

​মহাকাল আর করোনাকাল পালতোলা নৌকায় চলেছে এনডেমিক থেকে এপিডেমিক হয়ে প্যানডেমিক বন্দরে। ওদিকে একাডেমিক জেটিতে অপেক্ষমান হাজার পড়ুয়ার ভবিষ্যৎ।​ ​দীর্ঘ সাতমাসের এ যাপন চিত্র মা দুর্গার চালচিত্রে স্থান পাবে কিনা জানি না ! তবে ভুক্তভোগী মাত্রই জানে-

​'চ'য়ে - চালা উড়ে গেছে আমফানে / চ'য়ে - কতদিন হাঁড়ি চড়েনি উনুনে / চ'য়ে - লক্ষ্মী হলো চঞ্চলা / চ'য়ে - ধর্ষিতা চাঁদমনির দেহ,রাতারাতি পুড়িয়ে ফেলা।

​হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা মানুষটি লালমার্কার দিয়ে গোল গোল দাগ দেয় ক্যালেন্ডারের পাতায়, চোদ্দদিন যেন চোদ্দ বছর। হুটার বাজিয়ে শুনশান রাস্তায় ছুটে যায় পুলিশেরগাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স আর শববাহী অমর্ত্য রথ...। গঙ্গা দিয়ে বয়ে গেছে অনেকটা জল, 'পতিত পাবনী গঙ্গে' হয়েছেন অচ্ছুৎ!

এ কোন সময়ের মধ্যে দিয়ে চলেছি আমরা?

ছবিতে স্পর্শ করুন

শব্দের মিছিল

অতিথি সম্পাদনায়

সমীরণ চক্রবর্তী

বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ০২, ২০২০

শর্মিষ্ঠা ঘোষ / সেরে উঠুক পৃথিবী

sobdermichil | এপ্রিল ০২, ২০২০ | | মাত্র সময় লাগবে লেখাটি পড়তে।
সেরে উঠুক পৃথিবী । শর্মিষ্ঠা ঘোষ

সেরে উঠুক পৃথিবী । শর্মিষ্ঠা ঘোষ  

সেরে উঠছে নাকি ওজন স্তর, মানুষ বোধহয় খুব বেশি আপার হ্যান্ড নিচ্ছিল প্রকৃতির ওপর। পশ্চিমা দেশগুলো তো পুরোই ধরা কে সরা জ্ঞান  করছিল। ব্যবস্থা এবং পুঁজিবাদের গরমে ভুলে ই গেছিল পৃথিবীটা কারো বাপের সম্পত্তি নয়। ভুলেই গেছিল উন্নয়ন এর নেশায় এই পৃথিবীতে শুধু ভালো আরো ভালো আরো আয়েসি বিলাসী জীবন যাপন এর অধিকার শুধু অর্থ বলে আর অস্ত্র বলে কায়েম করা অন্যায় ঘোরতর অন্যায়। তাই দাদাগিরি করে যাচ্ছিল নিরন্তর। দূষণ রোধক চুক্তি বা নিয়ন্ত্রণ এর সতর্কবার্তা উড়িয়ে দিয়ে যথেচ্ছাচার শুরু করেছিল প্রকৃতির ওপর। আজ সেই পাপের শাস্তি নেমে এসেছে পোয়েটিক জাস্টিস এর মতই।

একের পর এক কেস স্টাডি প্রমাণ করছে পৃথিবী জুড়ে আংশিক লক ডাউন এ খানিকটা আরোগ্য লাভ করছে পৃথিবী। পৃথিবী সুস্থ হলেই একমাত্র সম্বল মানব সভ্যতা রক্ষা পাওয়া। প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষা করে পৃথিবীর যাবতীয় প্রাণকে সমান বাঁচার অধিকার দিলেই একমাত্র রক্ষা পাবে সভ্যতা। নেট বিপ্লবের যুগে ঘরে ঘরে পৌঁছে গেছে বিশ্ব উষ্ণায়ণের ফলে কিভাবে গলে গেছে মেরু বরফ। কিভাবে চাঙর চাঙর বরফ প্রাচীর গলে ভেঙ্গে ভেঙ্গে পড়ছে। কিভাবে একে একে অবলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে প্রাণী প্রজাতি। কিভাবে মেরুভল্লুক খাদ্যের অভাবে ছিঁড়ে খাচ্ছে তার নিজের সন্তান। কিভাবে বরফ গলে মুখ দেখিয়ছে অজানা চরিত্রের অন্তত ৮ টি ভাইরাস। কিভাবে আমাজনের ঘন বনে আগুন লাগিয়ে মেরে ফেলা হয়েছে সেখানকার বৈচিত্রময় প্রাণী জগৎ শুধু তেলের নেশায় সোনার নেশায় একের পর এক যুদ্ধ । কিভাবে গালফ যুদ্ধ সাগর জলে ছড়িয়ে দিয়েছে তেল জলজ প্রাণী জগৎ ধ্বংস করেছে জল দূষণ ঘটিয়েছে। কিভাবে পারমাণবিক শক্তি অর্জন এর নেশা একের পর এক টেস্টিং এ শেষ করে দিয়েছে প্রাকৃতিক শুদ্ধতা। পারমাণবিক বিকিরণ পঙ্গু করে দিয়েছে প্রাণী জগৎ। আমাদের প্রযুক্তির নেশা কিভাবে ফালাফালা করে দিয়েছে ওজোন স্তর। তার ফাঁকে মহাজাগতিক রশ্মি অধিকার করে নিচ্ছে আমাদের সুস্থ সুন্দর একটা পৃথিবী আগামীর সকল সন্তানের জন্য রেখে যাবার স্বপ্ন।

প্রকৃতি বারে বারে ওয়ার্নিং দিয়েছে। বন্যা খরা ভূমিকম্প ধ্বস। আমরা সামলে নিয়েছি আর চালিয়ে গেছি নিত্য প্রকৃতির ধর্ষণ। কেউ দেখতেও চায়নি স্বীকার করতে চায়নি নিজের দায়। কোন বলদর্পী রাষ্ট্র নিজের কাঁধে তুলে নিতে চায়নি তা প্রতিরোধের গুরু দায়িত্ব। কখনও কখনো কোন একক প্রচেষ্টা দেখা গেছে। আমরা তাদের হিরো বানিয়ে প্রচার করেছি। সাথ দিই নি।

আজকের বিশ্বে করোনা মহামারী হয়ে দেখিয়ে দিল রণরক্ত পৃথিবীর অস্ত্র ঝনঝনা সত্য তবু শেষ সত্য নয়। যে পৃথিবীতে বাস করি তাকেও কিছু ভালোবাসা ফিরিয়ে দিতে হবে। তাকেও দিতে হবে নিরাময় আস্বাস শুধু কথায় নয় কাজেও। যদি এ দুর্যোগ কাটে পৃথিবীর অবশিষ্ট মানুষ যেন ফিরে যায় সেই বেসিকস এ। লিভ এন্ড লেট লিভ। মিনিমাম চাহিদার পৃথিবীতে। রসে বশে ধনে সম্পদে না হোক সর্বজনীন সুন্দর সত্য শিবে সুস্থতা ও সন্তুষ্টিতে।

Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

Support : FACEBOOK PAGE.

সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ ,আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা

Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.