x

প্রকাশিত | ৯২ তম মিছিল

মূল্যায়ন অর্থাৎ ইংরেজিতে গালভরে আমরা যাকে বলি ইভ্যালুয়েশন।

মানব জীবনের প্রতিটি স্তরেই এই শব্দটি অবিচ্ছেদ্য এবং তার চলমান প্রক্রিয়া। আমরা জানি পাঠক্রম বা সমাজ প্রবাহিত শিক্ষা দীক্ষার মধ্য দিয়েই প্রতিটি মানুষের মধ্যেই গঠিত হতে থাকে বহুবিদ গুন, মেধা, বোধ বুদ্ধি, ব্যবহার, কর্মদক্ষতা ইত্যাদি। এর সামগ্রিক বিশ্লেষণ বা পর্যালোচনা থেকেই এক মানুষ অপর মানুষের প্রতি যে সিদ্ধান্তে বা বিশ্বাসে উপনীত হয়, তাই মূল্যায়ন।

স্বাভাবিক ভাবে, মানব জীবনে মূল্যায়নের এর প্রভাব অনস্বীকার্য। একে উপহাস, অবহেলা, বিদ্রুপ করা অর্থই - বিপরীত মানুষের ন্যায় নীতি কর্তব্য - কর্ম কে উপেক্ষা করা বা অবমূল্যায়ন করা। যা ভয়ঙ্কর। এবং এটাই ঘটেই চলেছে -

চলুন মিছিলে 🔴

বুধবার, এপ্রিল ০৮, ২০২০

মৌমিতা পাল / করোনা

sobdermichil | এপ্রিল ০৮, ২০২০ | | মিছিলে স্বাগত
মৌমিতা পাল / করোনা

এ বড়ো সংকট কাল ।এ বড়ো সংকটের সময়।যখন বিশ্বের সবচেয়ে বড়ো বড়ো দেশ আর সাধারণ দেশের মধ্যে কোন তফাৎ নেই।আজ সবাই বড়ো অসহায়।যতই উন্নত মানের চিকিৎসা ব্যবস্থা থাকুক পাশ্চাত্যের দেশগুলিতে তবুও আজ অসহায় হয়ে গেছে সবাই।কোন উপায় নেই।কোন সমাধান নেই।

চারদিকে আতঙ্ক বিরাজ করছে।ভয়ের আবহাওয়া চারিদিকে।কি হবে ,কবে থেকে আবার সব স্বাভাবিক হবে এই প্রশ্ন আজ সবার মনে।সকালে ঘুম ভেঙ্গে আর রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে গোটা সময় টা এই নিয়ে চলেছে।কোন আনন্দ কোন ভালো কিছু আজ মনের মধ্যে স্থান করে নিতে পারছে না।কবে রবিবার আর কবে অন্য দিন মন থেকে বেরিয়ে যাচ্ছে।আমরা সবাই দিন কাটাচ্ছি একরাশ আতঙ্ক নিয়ে।

জীবনের বেশ কিছু দিন পেরিয়ে এসেছি।অভিজ্ঞতা নেহাত কম নয়।তবুও আজ পর্যন্ত কোনো বার এরকম হয়নি।লক ডাউন শব্দটি আজ পর্যন্ত এভাবে শুনিনি।কয়েক দিন এর মধ্যে কেটেও গেল।প্রথম প্রথম অত কিছু বুঝতে পারিনি।ভেবেছিলাম হয়তো কয়েক দিন পর সব ঠিক হয়ে যাবে।কিন্তু কোথায় কি!কোন কিছু তো ঠিক হচ্ছে না।বুঝতে পারছি না কবে সব স্বাভাবিক হবে।

সকাল থেকেই শুরু হচ্ছে খবর দেখা।বাড়িতে সবাই এখন।তাই আলোচনা ও চলছে।কিন্তু একসময় ক্লান্ত লাগছে।চারদিকে অবস্থা দেখে হতাশ লাগছে।তবুও তো আমরা দুই বেলা খাচ্ছি।আর যাদের অবস্থা সেরকম নয় তাদের অবস্থা ভেবে খুব খারাপ লাগছে।বর্তমানে সরকার থেকে সাহায্য করা হচ্ছে এটা ঠিক।কিন্তু এরপর!কতদিন এভাবে চলবে!জানিনা কি হবে।অর্থনীতির চরম বিপর্যয় ঘটবে এটা বুঝতে পারছি।বাইরে থেকে প্রচুর শ্রমিক শ্রেণীর মানুষ চলে আসছে।এছাড়াও যারা সামান্য ব্যবসা করেন তাদের অবস্থা ভালো নয়।

কবে সব মিটবে জানা নেই।হয়তো একদিন ভাইরাস বিদায় নেবে ।কিন্তু ততদিনে অর্থনৈতিক যে বিপর্যয় ঘটে যাবে সেটা কতদিনে ঠিক হবে এটাই সবথেকে বড়ো চিন্তার।এমনিতেই অর্থনৈতিক দিকে পিছিয়ে পড়া দেশ আমাদের তারপর এই ঘটনা আরো চিন্তাজনক।চারিপাশে মানুষের অসহায় মুখ।কিছু ভাবতে পারছি না।বড়ো হতাশ লাগছে।

তবুও আমাদের আশা রাখতেই হবে।বিপর্যয় কাটিয়ে উঠতেই হবে।থেমে থাকলে চলবে না।সবাই মিলেই আমাদের পথ চলতে হবে।সবার সবার পাশে দাঁড়াতে হবে যার যতটুকু ক্ষমতা তাই নিয়েই এগিয়ে যেতে হবে।অনেক মানুষ অনেক ভাবে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে এটাই আশার।

হয়তো একদিন প্রকৃতি নিজেই সব ঠিক করে দেবে।সময় নিজেই ঘুরিয়ে দেবে সময়ের চাকা।এই সংকট মূহুর্তে ও আমাদের এই আশা ছাড়লে চলবে না।এই মনের জোরের সাথেই আমাদের এই বিপর্যয় মুহূর্তে এগিয়ে যেতে হবে।

'আমরা হারবো না আমরা হারবো না' কবিগুরুর এই কথা আমাদের শক্তি জোগাবে।আমাদের ভালো থাকতেই হবে।আমাদের সব বিপর্যয় কাটিয়ে উঠতেই হবে।আর তার জন্য চাই আমাদের সঠিক ভাবে সাবধান থাকা।আমাদের নিজেদের সাবধান হতে হবে।লক ডাউন মেনে বাড়িতে থাকতেই হবে।সবরকম সাবধানতা অবলম্বন করে আমাদের এই সংকট মুহূর্ত পার করতে হবে।বাকিটা সময়ের উপর, প্রকৃতির উপর, নিয়তির উপর।এর উপর দিয়ে কেউ যেতে পারে না।আমাদের শুধু চেষ্টা করে যেতে হবে।আমাদের আশা রাখতে হবে।

@মৌমিতা পাল

Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

�� পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ শব্দের মিছিলের সর্বশেষ আপডেট পেতে, ফেসবুক পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.