x

প্রকাশিত বর্ষপূর্তি সঙ্কলন

দেখতে-দেখতে ১০ বছর! শব্দের মিছিলের বর্ষপূর্তি সংকলন প্রকাশের সময় এ খুব অবিশ্বাস্য মনে হয়। কিন্তু অজস্র লেখক, পাঠক, শুভাকাঙ্ক্ষীদের সমর্থনে আমরা অনায়াসেই পেরিয়ে এসেছি এই দশটি বছর, উপস্থিত হয়েছি এই ৯৫ তম সংকলনে।

শব্দের মিছিল শুরু থেকেই মানুষের কথা তুলে ধরতে চেয়েছে, মানুষের কথা বলতে চেয়েছে। সাহিত্যচর্চার পরিধির দলাদলি ও তেল-মারামারির বাইরে থেকে তুলে আনতে চেয়েছে অক্ষরকর্মীদের নিজস্বতা। তাই মিছিল নিজেও এক নিজস্বতা অর্জন করতে পেরেছে, যা আমাদের সম্পদ।

সমাজ-সচেতন প্রকাশ মাধ্যম হিসেবে শব্দের মিছিল   প্রথম থেকেই নানা অন্যায়, অবিচার, অসঙ্গতির বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলেছে। এই বর্ষপূর্তিতে এসেও, সেই প্রয়োজন কমছে না। পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনের ফল প্রকাশের পরবর্তী বিভিন্ন হিংসাত্মক কাণ্ড আমাদের যথারীতি উদ্বিগ্ন করছে। যেখানে বিরোধী দলের হয়ে কাজ করা বা বিরোধী দলকে সমর্থন করার অধিকার এখনও নিরাপদ নয়, সেখানে যে গণতন্ত্র আসলে একটি শব্দের বেশি কিছু নয়, সেকথা ভাবলে দুঃখিত হতেই হয়। ...

চলুন মিছিলে 🔴

শর্মিষ্ঠা ঘোষ

sobdermichil | ডিসেম্বর ৩১, ২০১৯ |
হোক কলরব /
নীরবতা একটি হিরন্ময় শিল্প। নীরব লোকের পক্ষ বিপক্ষ প্রকাশ্য নয়। তাকে লোকে একবার গাছে তুললে আরেক জন দিচ্ছে বড় কেদারা। আশায় আশায়। বিপদে আপদে ব্যবহার করা যাবে নিজের সৈন্য বলে। আশঙ্কায় আশঙ্কায়। সে কি তলে তলে অন্যকারোকে প্রিয় ভাবে। তাকে বেশি ঘাঁটানো চলে না। তাকে বড় পিঁড়িটি দাও বরং। হাতে রাখি।

শব্দ একটি শিল্প এবং কামান। শব্দ বড় বিদ্ধ করে বিরূদ্ধতা । শব্দ যদি পক্ষে বলে সে মহা অস্ত্র আমার। শব্দ যখন শর হয় সে এমনকি প্রাণঘাতী। শব্দ নিয়ে খেলা মানে রাশিয়ান রুলেট। তার চেয়ে চুপ মানুষ ভালো। তার চেয়ে মূক মানুষ নিরাপদ। তাই শব্দ বন্ধ রাখ। সেন্সর কর। সব জায়গায় খালি রাজার জয়গাঁথা হোক। সব হোক মহিমান্বিত রাজকাহিনী। 

একদিকে রাজা ও অমাত্যবর্গ। হ্যাঁ হ্যাঁ বলা ভাঁড় এবং রাজ পেয়াদা। রাজ টিকটিকি আম আদমির দেয়ালময়। পোকামাকড় বসে জো নেই। সব তাই নিকোন উঠোন। ঝকঝকে তকতকে। 

আর কিছু আশমানী কবুতর। উড়ে আসে জুড়ে বসে। দানা খায় পানি খায় বিলাসী স্নান সেরে চবুতরায় বকম বকম। রকম সকম দেখতে জি মানে জীবন সিরিয়াল চালিয়ে দিন। কিলার ইনস্টিংক্ট আর ভালগার ভয়্যারিজম এর নানা কাকা করে ড্রয়িং রুমের সোফা ধামসে মুলো শাক আর সামোসা ঢেকুর তুলতে তুলতে প্রেম সাগরে ভাসতে ভাসতে দুনিয়া কেয়া বাত বলে দাঁত খুঁচিয়ে গন ফট হয়ে যায়। রাষ্ট্র এদের নিয়ে মোটেই চিন্তিত নয়। কারণ এদের হোদবোধ জলকাত টাইপ।

গোলমাল সব হল্লাবোল নিয়ে। এরা বড্ড প্রশ্ন করে, এটা কেন সেটা কেন নয়, কেন কেন কেন, লেট দেম ব্রেক। মাথা ভেঙে দাও। আর কেউ টুঁ শব্দ টি করবে না খাবে দাবে বগল বাজাবে। রাজা উঠতে বললে উঠবে বসতে বললে বসবে। আর যারা নেহাত ছোটলোক তার পরেও ঘেউ ঘেউ করে তাদের জন্য আছে দাওয়াই, দেশ দ্রোহী বলে চিহ্নিত কর আরবান নকশাল বলে মামার বাড়ি ভরে দাও।

সময় বড় বেইমান। সময় বড় প্রতিশোধ পরায়ণ। কোন রাজারই কাপড়ই ঠিক থাকবে না শেষ মেষ। সময় ঠিক উলঙ্গ করে দেবে স্বৈরাচারীকে। আজ দন্ড মুন্ডের কর্তা হয়ে হাতে মাথা কাটছ তোমার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠলেই কাল ভিখিরি হয়ে মাথা কুটবে সেই মানুষের দরবারেই। এটাই ইতিহাসের শিক্ষা।

কথা বল মানুষ। পক্ষে বিপক্ষে বল। বিচার বোধ শানিত করে বল। ইতিহাস ভূগোল বিজ্ঞান যুক্তি খোলা মনে বল। কথা ব্রহ্ম কথা ঈশ্বর তা সত্য যতক্ষণ। কথা খেলো কথা খোলামকুচি কথা জুমলা তা মিথ্যা হলে, মুখোশ হলে অসৎ এর বলা হলে। কথার মানুষ সৎ হলে আলো জ্বলে বিপ্লব হয় মানুষের বাচ্চারা আশ্বাস পায় সুস্থ একটি যাপনের। সত্য কথার হোক কলরব। কথায় কথা আর কেন বাড়ানো তবে। চেতন চৈতন্য হোক অসৎ রাজার। আমাদের বাচ্চারা বাঁচুক দুধ ভাত না জুটুক নুন ভাত আর শুদ্ধ জলবায়ুর আশ্বাসে। 


Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন


বিজ্ঞপ্তি
■ আপডেট পেতে,পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.