x

প্রকাশিত | ৯২ তম মিছিল

মূল্যায়ন অর্থাৎ ইংরেজিতে গালভরে আমরা যাকে বলি ইভ্যালুয়েশন।

মানব জীবনের প্রতিটি স্তরেই এই শব্দটি অবিচ্ছেদ্য এবং তার চলমান প্রক্রিয়া। আমরা জানি পাঠক্রম বা সমাজ প্রবাহিত শিক্ষা দীক্ষার মধ্য দিয়েই প্রতিটি মানুষের মধ্যেই গঠিত হতে থাকে বহুবিদ গুন, মেধা, বোধ বুদ্ধি, ব্যবহার, কর্মদক্ষতা ইত্যাদি। এর সামগ্রিক বিশ্লেষণ বা পর্যালোচনা থেকেই এক মানুষ অপর মানুষের প্রতি যে সিদ্ধান্তে বা বিশ্বাসে উপনীত হয়, তাই মূল্যায়ন।

স্বাভাবিক ভাবে, মানব জীবনে মূল্যায়নের এর প্রভাব অনস্বীকার্য। একে উপহাস, অবহেলা, বিদ্রুপ করা অর্থই - বিপরীত মানুষের ন্যায় নীতি কর্তব্য - কর্ম কে উপেক্ষা করা বা অবমূল্যায়ন করা। যা ভয়ঙ্কর। এবং এটাই ঘটেই চলেছে -

চলুন মিছিলে 🔴

শনিবার, নভেম্বর ৩০, ২০১৯

স্বপন পাল

sobdermichil | নভেম্বর ৩০, ২০১৯ | | মিছিলে স্বাগত
স্বপন পাল
অভিজ্ঞান 

কি দিয়ে চেনাবো বলো, চিহ্ন কিছু দিয়েছিলে ?
সময় স্থবির নয়, স্মৃতি ও স্বরূপ দ্রুত গিলে খুলে দেয় পশ্চিম জানালা, মরা রোদ, ভঙ্গুর সরণী,
এতো দিন পরে ঘুরে এলে কি দেখিয়ে হবে চেনাচিনি ?

এসো বসি এইখানে, খুব বেশী তাড়া রাখোনি তো, মনে পড়ে, এখানেই হয়েছিল কখনো শানিত তোমার আমার যুক্তি। অন্ধকার খসানো আলোয় তাড়া করে আসা বুট ঘটিয়ে প্রলয় ঝোপ-ঝাড়ে, খুঁজেছিল সোনার টুকরো সব, শিকল খসানো।

মনে পড়ে, জামা জুড়ে বুলেটের বোতাম বসানো তুহিনের লাশ ? এই মাঠে কাছাকাছি, ভোরে আমরা দেখেছি। এখন এ মাঠ জাগে প্রহরে প্রহরে। বহুতল বাড়িগুলি ঝুঁকে থেকে কি যে খোঁজে নীচে, রক্ষীদের নিরাপত্তা ভেঙ্গে শব্দ তোলে পেয়ালা পিরিচে গুপ্তচারী হাওয়া। দেখোনা ঘরোয়া মেঘ মুখ দেখে বহুতল লাগোয়া পুকুরে, ছড়ানো আবেগ কত ইতিউতি যত্নে চাষ করা, অথচ উত্তাপহীন। চিহ্নগুলো কবে কবে খসে গেছে, আপৎকালীন কিছু আশ্রয়ের নীচে মাথা গোঁজা কুপার সংসার এখন ছড়িয়ে গেছে, যেখানে প্রাচীর আছে আর বন্ধ দ্বার।

চিহ্ন তো ছিল না কোন, চিনে নেবে কথোপকথনে, বুলেট বোতাম গুলো সব গ’লে গিয়েছিল চিতার আগুনে ?



Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

�� পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ শব্দের মিছিলের সর্বশেষ আপডেট পেতে, ফেসবুক পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.