x

আসন্ন সঙ্কলন

গোটাকতক দলছুট মানুষ হাঁটতে হাঁটতে এসে পড়েছে একে অপরের সামনে। কেউ পূব কেউ পশ্চিম কেউ উত্তর কেউ দক্ষিণ... মাঝবরাবর চাঁদ বিস্কুট, বিস্কুটের চারপাশে লাল পিঁপড়ের পরিখা। এখন দলছুট এক একটা মানুষ এক হয়ে হাঁটছে চাঁদ বিস্কুটের দিকে। আলাদা আলাদা মানুষ এক হয়ে হাঁটছে সারিবদ্ধ পিঁপড়েদের বিরুদ্ধে। পথচলতি যে ক'জনেরই নজর কাড়ছে মিছিল তারাই মিছিল কে দেবে জ্বলজ্বলে দৃষ্টি। আগুন নেভার আগেই ঝিকিয়ে দেবে আঁচ... হাত পোহানোর দিন তো সেই কবেই গেল ঘুচে, যেটুকু যা আলো বাকী সবটুকু চোখে মেখে চাঁদ বিস্কুট চেখে চেখে খাক এই মিছিলের লোক। মানুষ বারুদ কিনতে পারে, কার্তুজ ফাটাতে পারে, বুলেট ছুঁড়তে পারে খালি আলো টুকু বেচতে পারেনা... এইসমস্ত না - বেচতে পারা সাধারণদের জন্যই মিছিলের সেপ্টেম্বর সংখ্যা... www.sobdermichil.com submit@sobdermichil.com

অতিথি সম্পাদনায়

মৌমিতা ঘোষ

শব্দের মিছিল

অতিথি সম্পাদনায়

মৌমিতা ঘোষ

রবিবার, অক্টোবর ০৬, ২০১৯

স্বপন পাল

sobdermichil | অক্টোবর ০৬, ২০১৯ |
স্বপন পাল
অবিশ্বাস খোলসের মতো 

আমি যেখানেই যাই আমাকে জড়িয়ে থাকে নষ্ট অভিমান, আমি যে কাতর বড়।
তৃষ্ণা নিয়ে তাকাই যেদিকে মরুতৃষ্ণা হাতছানি দেয়, উটের সদর্পী মাথা দুলে দুলে চলে ক্লান্তিহীন, বালিঝড় গড়ে তোলে উচ্চাবচ বিপন্ন প্রতিভা। তৃষ্ণা জেগে থাকে, লেগে থাকে নুন স্বাদ ঠোঁটে, চাপা থাকা আর্তি যত জ্বালামুখ খোঁজে।

যেদিকে তাকাই আমি দেখতে পাই বিনষ্ট সে ছবি, নবারুণ চোখের তারায়
অচেনা সর্পিল ভয়, নখের চূড়ান্ত অবক্ষয়ে।
চোরাবালি টানে এক খণ্ডহর ফিরে আসে অতীত চেনাতে। সব তারা নিভে গেলে আকাশের অখণ্ড তিমিরে সে কেমন রাত্রি জেগে থাকে, যার কাছে নতজানু ব্যর্থ হয়ে গেলে সংক্ষিপ্ত ঘোষণাটুকু জেলখানার সঙ্গীহীন ঘন্টার মতো বেজে চলে।

যেখানেই যাই, সেই শব্দ রাত্রি ভেদ করে আমাকে কাঁপিয়ে দেয়।
পাথরের যক্ষী হেসে ওঠে। হরিণের চোখ থেকে নেমে অজান্তে গড়িয়ে পড়া অবাক মুহূর্তগুলি নীরবে প্রতীক্ষা করে ভগ্ন ব্যবধান। আমাকে উপেক্ষা করে শেষতম রক্তিম গোলাপ নির্দ্বিধায় উড়ে যায় ভিন্ন কক্ষপথে।




Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

Support : FACEBOOK PAGE.

সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ ,আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা

Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.