x

প্রকাশিত | ৯৪ তম মিছিল

কান টানলেই যেমন মাথা আসে, তেমন ভাষার প্রসঙ্গ এলেই মানুষের মুখের ভাষার দৈনন্দিন ব্যবহারের কথাও মনে পড়ে যায়, বিশেষত আজকের দিনে। ভাষা দিবস মানেই শুধু মাতৃভাষা নিয়ে আবেগবিহ্বল হয়ে থাকার দিন বুঝি আজ আর নেই!

কেননা সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে যাঁরা মাথায় বসে আছেন, বিশেষত যাঁরা রাজনীতির পৃষ্ঠপোষকতায় ক্ষমতাভােগী এবং লােভী, তাঁদের মুখের ভাষা এবং তার প্রয়ােগ আজ ঠিক কতটা শিক্ষণীয় এবং গ্রহণীয় সেটা শুধু ভাবার নয়, রীতিমতো শঙ্কার এবং সঙ্কটের।

সবই কি তবে মহৎ ভাবনা, অনুপ্রেরণার জোয়ার? নাকি রাজনৈতিক কারবারিরা 'সুভাষিত' শ্রবণাতীত বয়ানে নিজেদের অক্ষমতার মদমত্ত প্রকাশ করছেন? সাধারণ ছাপােষা মানুষ বিস্ফারিত চিত্তে এই ভাষাসন্ত্রাস,এই ভাষাধর্ষণ দেখতে শুনতে ক্লান্ত। এর থেকে উত্তরণের উপায় এখনও অবধি কোনাে ভাষা দিবস দেখাতে পারেনি। এবারের ভাষা দিবসের কাছেও কি সেই উপায় আছে? নাকি এই খেলা হবে, চলবে ... মেধাহীন গাধাদের দৌলতে?

চলুন মিছিলে 🔴

বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী ২১, ২০১৯

শর্মিষ্ঠা ঘোষ

sobdermichil | ফেব্রুয়ারী ২১, ২০১৯ | | মিছিলে স্বাগত
শর্মিষ্ঠা ঘোষ
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানানোর সময় কোথাও একটা খোঁচা অনুভব করছি । মাতৃভাষার প্রতি ভাব ভালোবাসা কমে গেছে এমন নয় , আসলে আমায় ভাবাচ্ছে যুদ্ধভাষা বা ভাষার যুদ্ধ । একটি শোকগ্রস্ত জাতি শোক তাপ ভুলে যে হারে খিল্লিবাজিতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে , তার ভাষার নমুনা দেখে মাঝে মাঝে মনে হচ্ছে বাংলা ভাষা অভিধানে সৌহার্দ্য সম্প্রীতি পরমত সহিষ্ণুতা শোভন সুন্দর যুক্তি বিবেচনা নৈঃশব্দ শ্রদ্ধা শ্লীল বলে কোন শব্দ কোনকালে ছিল না । ছিল শুধু আঞ্চলিক কিছু গালি গালাজ আর রিরংসা উন্মত্ততা ঘৃণা সন্দেহ বিদ্বেষ হিংস্র পাশবিক বর্বর উল্লাস ।

অনিয়ন্ত্রিত আবেগ এবং কুযুক্তি যখন গ্রাস করে নেয় সমস্ত শুভাশুভ , জন্ম দেয় কেবল ভ্রাতৃঘাতী দাঙ্গা , প্রতিশোধ যখন শত্রু মিত্র আপন পর গুলিয়ে দেয় , হাতে মাখতে চায় নিজ পাড়ার জেলার রাজ্যের দেশের মানুষের রক্ত , ধর্ষণ করতে চায় বিরূদ্ধমতাবলম্বীদের , জ্যান্ত জ্বালিয়ে দেয় উল্লাসে , দিয়ে বীরের মর্যাদা পায় , শুধু নিজ ধর্মের জাতের দলের লোক নয় বলে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে বের করে দিতে চায় একটি গণতান্ত্রিক ধর্ম নিরপেক্ষ দেশ থেকে , ক্ষেপিয়ে তোলা হয় দেশের একটি বৃহৎ সংখ্যক অশিক্ষিত অর্ধ শিক্ষিত জনগোষ্ঠীকে , ধর্মের আফিমে বুঁদ করে রাখা যায় যে কোন জীবনমুখী সমস্যা ভুলে , তখন প্রশ্ন জাগে , তবে কি সত্যিই মৃত আমরা ? বাস করছি এক মৃত্যু উপত্যকায় ?

যে জাতি খালি দুর্বার মার্চ করছে এক জাত এক ধর্ম এক ভাষা এক খাদ্যাভ্যাস এক সংস্কৃতি এক পোশাক হবার দিকে ? তবে ঐ ভারত ভাগ্য বিধাতা কি নতুন করে লিখবেন সব ভুল ছিল, ভুল ছিল জনগণমন বৈচিত্রের মধ্যে ঐক্য পাঞ্জাব সিন্ধু গুজরাট মারাঠা দ্রাবিড় উৎকল বঙ্গ জুড়ে মানুষের থাকাথাকি নিজ নিজ স্বাতন্ত্র বজায় রেখে এক বর্ণময় মালার বিভিন্ন ফুল হয়ে ফুটে ওঠা । এত ভুল শিখলাম আমরা ? এত ভুল করলাম তবে জেনে রবিঠাকুর নজরুল জীবনানন্দ মুন্সি প্রেমচাঁদ শামসুর রহমান জসীমুদ্দিন সাদাত হাসান মন্টো ? ভুল করলাম পুরাণ কোরান বাইবেল জেন্দ আবেস্তা ত্রিপিটক সমান শ্রদ্ধার জিনিস ভেবে ?

যারা ধর্মের বা ধর্মগ্রণ্হের অপব্যাখ্যা করে পরিভাষা তৈরী করে নেয় নিজ সংকীর্ণ স্বার্থ চরিতার্থতায় তাদের ঘৃণা করে ? গুলিয়ে যাচ্ছে ভাষা আমার হারিয়ে যাচ্ছে ভাষা । হে মা সরস্বতী ফিরিয়ে নাও বিদ্যা বুদ্ধি চেতনা জ্ঞান । আমায় কেবল অস্ত্র দাও । গণের মধ্যে লুকিয়ে গিয়ে হত্যা করে আসি ভাই বোন বন্ধু পরিজন । আত্মঘাতী হই । আত্মবিস্তৃত এক হুজুগে গণের একজন হয়ে বাঁচার চেয়ে মরে যাওয়া ঢের ভাল ।


sharmisthaghosh1974@gmail.com

Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ আপডেট পেতে,পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.