x

প্রকাশিত | ৯৪ তম মিছিল

কান টানলেই যেমন মাথা আসে, তেমন ভাষার প্রসঙ্গ এলেই মানুষের মুখের ভাষার দৈনন্দিন ব্যবহারের কথাও মনে পড়ে যায়, বিশেষত আজকের দিনে। ভাষা দিবস মানেই শুধু মাতৃভাষা নিয়ে আবেগবিহ্বল হয়ে থাকার দিন বুঝি আজ আর নেই!

কেননা সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে যাঁরা মাথায় বসে আছেন, বিশেষত যাঁরা রাজনীতির পৃষ্ঠপোষকতায় ক্ষমতাভােগী এবং লােভী, তাঁদের মুখের ভাষা এবং তার প্রয়ােগ আজ ঠিক কতটা শিক্ষণীয় এবং গ্রহণীয় সেটা শুধু ভাবার নয়, রীতিমতো শঙ্কার এবং সঙ্কটের।

সবই কি তবে মহৎ ভাবনা, অনুপ্রেরণার জোয়ার? নাকি রাজনৈতিক কারবারিরা 'সুভাষিত' শ্রবণাতীত বয়ানে নিজেদের অক্ষমতার মদমত্ত প্রকাশ করছেন? সাধারণ ছাপােষা মানুষ বিস্ফারিত চিত্তে এই ভাষাসন্ত্রাস,এই ভাষাধর্ষণ দেখতে শুনতে ক্লান্ত। এর থেকে উত্তরণের উপায় এখনও অবধি কোনাে ভাষা দিবস দেখাতে পারেনি। এবারের ভাষা দিবসের কাছেও কি সেই উপায় আছে? নাকি এই খেলা হবে, চলবে ... মেধাহীন গাধাদের দৌলতে?

চলুন মিছিলে 🔴

সোমবার, ডিসেম্বর ৩১, ২০১৮

হরিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়

sobdermichil | ডিসেম্বর ৩১, ২০১৮ | | | মিছিলে স্বাগত
কবিতার পথে পথে
১৩ পর্ব। সকালেরও একটা শুরুর শুরু থাকে। কতদিন এমনও হয়েছে মাঝরাত থেকে উঠে বসে আছি। সে আসছে। সারা দেহ মন জুড়ে সে কি আনন্দ! বারবার জানলা খুলে দেখি আর কতক্ষণ। দেখি গভীর অন্ধকার। মনে হয় এ অন্ধকার আমার কতো নিজের। অথচ আমাকে তো শেখানো হয়েছে, অন্ধকারের অন্য এক বর্ণপরিচয়। সেখানে তো প্রত্যেকটা অক্ষর জুড়ে গভীর অন্ধকার। আমাদের চোখ তো বোজা। কখনও তো অন্ধকারকে হাতে তুলে নিয়ে দেখিনি, সে কতটা আমাকে পথ ভুলিয়ে দিতে চায় মনে মনে। 

          আমি তো চিনেছি তাকে অন্য রূপে। ভালোবেসে অন্ধকারের শরীরে তাকিয়ে দেখেছি সেও যেন আমাকে চেনাতে চায়। দেখেছি তার গা থেকে খসে খসে পড়েছে কত কত গলি পথের অচেনা অজানা সংজ্ঞা। পথের ভুল তো এভাবেই হয়। কোনো দিন তো কেউ তার মেঠোপথে পা রাখে নি। আমি দেখেছি অন্ধকার নিজেও কতটা একা। তাই সে তার গা থেকে ঝেড়ে ফেলছে চোরাগলির গোলকধাঁধা।

          কতক্ষণ তাকিয়ে আছি অন্ধকারের দিকে চেয়ে। আর তো সে আমায় অন্ধ করে না। এখন সে যেন আমার বন্ধু। আজ বুঝতে পারি, প্রথম যেদিন তার দিকে তাকিয়ে ছিলাম সেদিন আমার চোখে আলো ছিল। সেই চোখের আলোতেই দেখেছিলাম অন্ধকারের আলো। আমি স্পষ্ট দেখতে পাই, কেউ একজন আসছে। সে আসার খুব বেশি দেরি আর নেই। কিন্তু সে অন্য কেউ নয়। এতক্ষণ তো এটাই ভেবে এসেছি, অন্ধকার ভেঙে গিয়ে চোখের সামনে উদ্ভাসিত হবে আলোর নতুন বর্ণমালা। ছড়িয়ে পড়বে নতুন এক পরিবেশের গন্ধময় উদাত্ত রূপ।

          আজ তো চোখের সামনে খুলে গেল অন্ধকারের এক নতুন দরজা। আলো বলে এতদিন যাকে চিনে এসেছি সে আসলে অন্ধকারের অন্য এক উষ্ণতা। অন্ধকার ভেঙে ভেঙে অন্ধকারের শরীর নিঃসৃত রেণুকণায় আলো হয়ে উঠল চারপাশ। সারাটা সময় কি উদগ্র ইচ্ছায় অন্ধকার নিজেকে উজ্জ্বল করে তুলতে চেয়েছে। সেই প্রচেষ্টায় আজ সে সম্পূর্ণ সফল। 

          জানলার ওপারে আমি দেখছি উজ্জ্বলতার সেই দারুণ প্রতিশ্রুতি। আস্তে আস্তে নিজেকে সে ক্রমশ স্পষ্ট করে তুলছে। আমিও যেন আমার মধ্যে অন্য এক আমিকে দেখতে পাই। অন্ধকারের রূপ আবিষ্কারে আমি মত্ত হয়ে উঠলাম কেন? আমার মধ্যে এখন কতটা আমি আছি? অন্ধকারকে আবিষ্কার করতে গিয়ে নিজেকে আমি হারিয়ে ফেলি নি তো? 

          একদিন অন্ধকারের মধ্যে খুঁজে পেয়েছিলাম মুক্তির আস্বাদ। সেদিন অন্ধকার আমার শ্বাসরোধ করে নি। আমি যেন অন্ধকারকে পড়তে পারছিলাম। তখনই তো অনুভব করেছিলাম আমার চোখ বদলে যাচ্ছে। যেদিকেই তাকাই চোখ আমাকে আমার কল্পনার ছবি দেখাচ্ছে। এতদিন যা ভেবেছিলাম তা যেন এখন চোখের সামনে দেখতে পাচ্ছি। সকাল ভেঙে ভেঙে একটু একটু করে দুপুরের শরীর গঠনে আমিও থেকেছি। কিন্তু আজ আমি যেখানে দুপুর সেখানে কোথায়। আমার সময়ের হাত ধরে আমি চলে এসেছি অনেকদূর। দুপুরের মধ্যে থেকে দুপুরের উষ্ণতা আমি এখন আর অনুভব করি না। এতদিনের চেনা আমি কোথায়? সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে আমার আমি কোথায় যেন হারিয়ে গেছে ----------

" সময়ের সাথে সাথে হাঁটতে হাঁটতে সে
নিজেকে কখন পিছনে ফেলে এসেছিল
তা খেয়ালই করেনি "

------ টেড হিউজ


          সকাল হয়েছে অনেকক্ষণ। চোখের সামনে আলো। আমি কি তাহলে এতক্ষণ অন্ধকারে ছিলাম? তা তো নয়। আমি তো অন্ধকারের সঙ্গে এতক্ষণ আলোর গল্প করছিলাম। তাহলে চোখের ওপর আলোকে আমার নতুন কিছু মনে হচ্ছে না কেন? আমি তো আলোতেই। অনেকটা সময় অপেক্ষার পর যখন দুপুরে এসে দাঁড়াতাম তখন মনের সে কি প্রশান্তি! আজ তো আমার আর কোনো অপেক্ষা নেই। আজ মনে হয় আমার চারপাশে চলছে আলোর খেলা। আমি যখন যেটা চাইছি আমার চোখের ওপর সেটাই খেলা করে যায়। আমি এখন সময়হীন এক চির-আলোর বাসিন্দা --------

" যখন খেয়াল হল তখন
সময় তাকে একলা ফেলে চলে গেছে । "
------ টেড হিউজ

mharitbandhopadhyay69@gmail.com

Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ আপডেট পেতে,পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.