x

প্রকাশিত

​মহাকাল আর করোনাকাল পালতোলা নৌকায় চলেছে এনডেমিক থেকে এপিডেমিক হয়ে প্যানডেমিক বন্দরে। ওদিকে একাডেমিক জেটিতে অপেক্ষমান হাজার পড়ুয়ার ভবিষ্যৎ।​ ​দীর্ঘ সাতমাসের এ যাপন চিত্র মা দুর্গার চালচিত্রে স্থান পাবে কিনা জানি না ! তবে ভুক্তভোগী মাত্রই জানে-

​'চ'য়ে - চালা উড়ে গেছে আমফানে / চ'য়ে - কতদিন হাঁড়ি চড়েনি উনুনে / চ'য়ে - লক্ষ্মী হলো চঞ্চলা / চ'য়ে - ধর্ষিতা চাঁদমনির দেহ,রাতারাতি পুড়িয়ে ফেলা।

​হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা মানুষটি লালমার্কার দিয়ে গোল গোল দাগ দেয় ক্যালেন্ডারের পাতায়, চোদ্দদিন যেন চোদ্দ বছর। হুটার বাজিয়ে শুনশান রাস্তায় ছুটে যায় পুলিশেরগাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স আর শববাহী অমর্ত্য রথ...। গঙ্গা দিয়ে বয়ে গেছে অনেকটা জল, 'পতিত পাবনী গঙ্গে' হয়েছেন অচ্ছুৎ!

এ কোন সময়ের মধ্যে দিয়ে চলেছি আমরা?

ছবিতে স্পর্শ করুন

শব্দের মিছিল

অতিথি সম্পাদনায়

সমীরণ চক্রবর্তী

শুক্রবার, নভেম্বর ০২, ২০১৮

ফারহানা খানম

sobdermichil | নভেম্বর ০২, ২০১৮ | | মাত্র সময় লাগবে লেখাটি পড়তে।
ফারহানা খানম
ভাঙনের পরিত্যক্ত রাতে

সত্যি বলছি এ কোন ভণিতা নয়
বলতে পারো অহেতুক ভয়
অযথাই সামনে এসে আড়াল করে সত্য।
চুপচাপ চোখ বুজে পার হতে চাই বিভেদ-রেখা।
হঠাৎ একটা ছায়া এসে পথরোধ করে
নৈর্ব্যেক্তিক ছায়া ঠিক জানা নেই
হতে পারে পথের প্রান্তে নিশ্চল কোন বৃক্ষের
কিংবা কোন দংশানো বিবেকের।

একা অন্ধকারে নিজেকে পরখ করে দেখি
অপার্থিব কোন নিক্তিতে
একপাশে টানা সানুনাশিক সুরে কাঁদে হাওয়া
আর অন্যপাশে
হাওয়ার সাথে সখ্যতা করে বৈরিতা
তাই বুঝি কত সহজেই হাওয়া ভাঙ্গে ঘর
ভেসে আসা করুণ বাঁশির সুরে ভাঙে মন
যেমন জলেরা অনায়াসে ভাঙ্গে পাড়।

জল যখন এলোই ঘোর  পূর্ণিমায়
ষোড়শী শাসায় উচাটন শ্বাস
উথাল-পাথাল জ্যোৎস্নায় সম্পর্কের বাঁধন ছিঁড়ে
দেশত্যাগী হলে বাউল
অপাংক্তেয় মনে হয়
ঠোট থেকে খসে পড়ে সব চুমু।
সত্যি বলছি এ কোন ভনিতা নয়
অজানা ভয়, জড়তা এসে পথ আগলালে
সংস্কার শেকল পড়ায় পায়ে পায়ে
থাকো, যেওনা! কারণ
পার্থক্যের দৃষ্টি শরীরতন্ত্রের কাছে বৃষ্টি ঝরালে
সাকোটিঁর সঙ্গমসুখ
নদী দেখতে পাবেনা কোনদিন।


Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

Support : FACEBOOK PAGE.

সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ ,আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা

Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.