x

প্রকাশিত

​মহাকাল আর করোনাকাল পালতোলা নৌকায় চলেছে এনডেমিক থেকে এপিডেমিক হয়ে প্যানডেমিক বন্দরে। ওদিকে একাডেমিক জেটিতে অপেক্ষমান হাজার পড়ুয়ার ভবিষ্যৎ।​ ​দীর্ঘ সাতমাসের এ যাপন চিত্র মা দুর্গার চালচিত্রে স্থান পাবে কিনা জানি না ! তবে ভুক্তভোগী মাত্রই জানে-

​'চ'য়ে - চালা উড়ে গেছে আমফানে / চ'য়ে - কতদিন হাঁড়ি চড়েনি উনুনে / চ'য়ে - লক্ষ্মী হলো চঞ্চলা / চ'য়ে - ধর্ষিতা চাঁদমনির দেহ,রাতারাতি পুড়িয়ে ফেলা।

​হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা মানুষটি লালমার্কার দিয়ে গোল গোল দাগ দেয় ক্যালেন্ডারের পাতায়, চোদ্দদিন যেন চোদ্দ বছর। হুটার বাজিয়ে শুনশান রাস্তায় ছুটে যায় পুলিশেরগাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স আর শববাহী অমর্ত্য রথ...। গঙ্গা দিয়ে বয়ে গেছে অনেকটা জল, 'পতিত পাবনী গঙ্গে' হয়েছেন অচ্ছুৎ!

এ কোন সময়ের মধ্যে দিয়ে চলেছি আমরা?

ছবিতে স্পর্শ করুন

শব্দের মিছিল

অতিথি সম্পাদনায়

সমীরণ চক্রবর্তী

রবিবার, সেপ্টেম্বর ৩০, ২০১৮

স্বপ্ননীল রুদ্র

sobdermichil | সেপ্টেম্বর ৩০, ২০১৮ | | মাত্র সময় লাগবে লেখাটি পড়তে।
স্বপ্ননীল রুদ্র
স্বপ্ননীলঃ ১৭ 

তোমার খোলা বুকে চাঁদের পায়চারি-সমগ্র আমি
জমিয়ে রেখেছি ; ঘুম না-আসা আসন্ন সেই রাত
মৃদু বাতাসবাহিত বীজের মতন থেমে থেমে
গড়িয়ে গিয়েছে জল-পাড়া অনুমান করে করে---

পায়চারি থামিয়ে চাঁদ মেঘের কুশনে বসে পড়ে:
তোমার বুকের মাটি জুড়ে উদ্বিগ্ন পায়ের ছাপ,
নানাকার অস্থিরতা ; সেসব ডিঙিয়ে আমি খুঁজি
জল-পাড়ার পথনির্দেশ, ঘুমখোয়া রাত্রির গন্ধ ---

বহুদূরব্যাপী পদছাপ, পূর্ণ অপূর্ণ কোলাজ
ফাঁকফোকর গলে রাত ঘষটে ঘষটে গড়িয়ে গিয়েছে
জলের নেশায় ; মহাশ্চর্য সেই রাত-অভিযান
শুঁকে শুঁকে অনুকরণের প্রয়াসী হয়েছিলাম...

পা ভরে জমে রয়েছে আলোক্ষত, রশ্মিপুঁজ---
তোমার বুকের বাম দিকে তীব্র আলোর জঙ্গল,
শনশন বাতাসের বিশ্রামাগার, উজ্জ্বল ঘাসে
আমার শরীর থেকে চুইয়ে চুইয়ে পড়ে পুঁজ...


Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

Support : FACEBOOK PAGE.

সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ ,আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা

Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.