x

আসন্ন সঙ্কলন

গোটাকতক দলছুট মানুষ হাঁটতে হাঁটতে এসে পড়েছে একে অপরের সামনে। কেউ পূব কেউ পশ্চিম কেউ উত্তর কেউ দক্ষিণ... মাঝবরাবর চাঁদ বিস্কুট, বিস্কুটের চারপাশে লাল পিঁপড়ের পরিখা। এখন দলছুট এক একটা মানুষ এক হয়ে হাঁটছে চাঁদ বিস্কুটের দিকে। আলাদা আলাদা মানুষ এক হয়ে হাঁটছে সারিবদ্ধ পিঁপড়েদের বিরুদ্ধে। পথচলতি যে ক'জনেরই নজর কাড়ছে মিছিল তারাই মিছিল কে দেবে জ্বলজ্বলে দৃষ্টি। আগুন নেভার আগেই ঝিকিয়ে দেবে আঁচ... হাত পোহানোর দিন তো সেই কবেই গেল ঘুচে, যেটুকু যা আলো বাকী সবটুকু চোখে মেখে চাঁদ বিস্কুট চেখে চেখে খাক এই মিছিলের লোক। মানুষ বারুদ কিনতে পারে, কার্তুজ ফাটাতে পারে, বুলেট ছুঁড়তে পারে খালি আলো টুকু বেচতে পারেনা... এইসমস্ত না - বেচতে পারা সাধারণদের জন্যই মিছিলের সেপ্টেম্বর সংখ্যা... www.sobdermichil.com submit@sobdermichil.com

অতিথি সম্পাদনায়

মৌমিতা ঘোষ

শব্দের মিছিল

অতিথি সম্পাদনায়

মৌমিতা ঘোষ

বুধবার, আগস্ট ১৫, ২০১৮

সায়ন্ন্যা দাশদত্ত

sobdermichil | আগস্ট ১৫, ২০১৮ |
তিনরংয়ের ট্যানা ।
আকণ্ঠ মদ গিলেছে নিয়ামত । উপুড় হয়ে গন্ধ শুঁকছে ধুলোর । মেরে দেশ কি ধরতি' বলে কথা ! পেটে দুপয়সার বাংলা ঢুকলে গুষ্টিশুদ্ধ সব্বার জন্যে কাঁদতে পারে নিয়ামত । আমিনার কোলের ছ্যানাটা কাঁদতে পারেনি ।শুধু বুকটা ওঠাপড়া করে । চোখ থেকে জল গড়ায় ।নাকের ডগায় মাছি । বুকে দুধ নেই ।দুধ কিনার পুয়সা নেই । শালা নিকুচির পুয়সা । বুক পকেটের দু তিনটে পুরোনো লটারির টিকিট কুচিকুচি করে হাওয়ায় ওড়ায় নিয়ামত । লে ,লে পুয়সা গুলে খা । মাইকে বাজছে 'অ্যা মেরে বতনকে লোগো '... থেবড়ে খানিক উঠে বসলো সে । কপালে হাত ছোঁয়ালো । চোখ গড়িয়ে জল । শালা যারা বেমালুম মরে গেলো তাদের জন্যি কাঁদবোনি? বালের বানচোত পাটি !কার পাটি বে ? শালা সবাই যদি মরেই যাব ,পাটি লিয়ে কি করবি বল ? আমার চাঁদ নওয়াজ না খেতে পেয়ে মরবে।আমি মদ গিলে মরব ।আমিনা গলায় দড়ি দিবে।'বতন কে লোগো ' ঠাঁই ঠাঁই করে গুলি ছুঁড়ে মারবে । তার লাগানা আছে। শালা ওইপার টা আমাদের দেশের নয় ! ওখানের লোকগুলা তিন পায়া না মুখ দিয়ে হাগে বলতে পারবনি । ওরা দেশের সত্তুর শালা ! দু পা জড়ো করে সোজা হতে চেষ্টা করে নিয়ামত । পারেনা ।পড়ে যায় । ধাক্কা খায় দেওয়ালে । মাথা ফুলে যায় ।

উল্টোদিকের ছোকরাদুটা হাসে । গুটখা ফেলে থু করে । একটা ইংরিজি বলা মেয়ে নাক সিটকে পেরিয়ে যাচ্ছে নিয়ামতকে। মদের গন্ধে বমি আসছে ওর । ও এবার মাস্টার্স করবে । দামী বয়ফ্রেন্ড অপেক্ষা করছে পাবে । আজ পনেরো । মস্ত ছুটির দিন । বিকেলটা একসাথে কাটাবে বলেই সিনেপ্লেক্সের টিকিট কেটেছে ওরা । এই মদো মাতাল গলিটা পেরিয়ে গেলেই হাইরাইজ ফ্ল্যাটবাড়ির মুখ । তারপর সুদৃশ্য পার্ক ।আপতত স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠান চলছে সেখানে । ছোট ছোট ছেলেমেয়েরা কেক খাচ্ছে এ ওর গায়ে পড়ে। প্লাস্টিকের কাপ উড়ছে মাঠে । মাইকে মাইকে ও আমার দেশের মাটি । নাচ দিদিমণি প্রতীকী ধুলো নিলেন কপালে । নমস্কারের ভঙ্গীতে দাঁড়িয়ে আছেন মঞ্চে ! আর নিয়ামত হুমড়ি খেয়ে পড়লো । জিভ ঘষে গেলো ধুলোয় । নোনতা স্বাদ , বিচিত্র ধুলোবালিতে ভরা ।একটু যেন রক্ত লেগে আছে । চেটে খাচ্ছে সে । নেশার মুখে ভালোই লাগছে ! চাকনা মতো ,নোনতা ! 

নিজের রক্ত নিজেই খাচ্ছে নিয়ামত । আজ পনেরো তারিখ মাসের ,ঘরে একফোঁটা ডালচাবল নেই ! পাটি মিছিলে গেলে কেক ডিমটা মিলবে ।তাই যাহোক করে সেখানে যাবেই নিয়ামত । 

জয় হিন্দ ! আজাদী মুবারক ভাই !


dr.sayannya34@gmail.com


Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

Support : FACEBOOK PAGE.

সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ ,আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা

Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.