x

প্রকাশিত | ৯৪ তম মিছিল

কান টানলেই যেমন মাথা আসে, তেমন ভাষার প্রসঙ্গ এলেই মানুষের মুখের ভাষার দৈনন্দিন ব্যবহারের কথাও মনে পড়ে যায়, বিশেষত আজকের দিনে। ভাষা দিবস মানেই শুধু মাতৃভাষা নিয়ে আবেগবিহ্বল হয়ে থাকার দিন বুঝি আজ আর নেই!

কেননা সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে যাঁরা মাথায় বসে আছেন, বিশেষত যাঁরা রাজনীতির পৃষ্ঠপোষকতায় ক্ষমতাভােগী এবং লােভী, তাঁদের মুখের ভাষা এবং তার প্রয়ােগ আজ ঠিক কতটা শিক্ষণীয় এবং গ্রহণীয় সেটা শুধু ভাবার নয়, রীতিমতো শঙ্কার এবং সঙ্কটের।

সবই কি তবে মহৎ ভাবনা, অনুপ্রেরণার জোয়ার? নাকি রাজনৈতিক কারবারিরা 'সুভাষিত' শ্রবণাতীত বয়ানে নিজেদের অক্ষমতার মদমত্ত প্রকাশ করছেন? সাধারণ ছাপােষা মানুষ বিস্ফারিত চিত্তে এই ভাষাসন্ত্রাস,এই ভাষাধর্ষণ দেখতে শুনতে ক্লান্ত। এর থেকে উত্তরণের উপায় এখনও অবধি কোনাে ভাষা দিবস দেখাতে পারেনি। এবারের ভাষা দিবসের কাছেও কি সেই উপায় আছে? নাকি এই খেলা হবে, চলবে ... মেধাহীন গাধাদের দৌলতে?

চলুন মিছিলে 🔴

বুধবার, আগস্ট ১৫, ২০১৮

সায়ন্ন্যা দাশদত্ত

sobdermichil | আগস্ট ১৫, ২০১৮ | | মিছিলে স্বাগত
তিনরংয়ের ট্যানা ।
আকণ্ঠ মদ গিলেছে নিয়ামত । উপুড় হয়ে গন্ধ শুঁকছে ধুলোর । মেরে দেশ কি ধরতি' বলে কথা ! পেটে দুপয়সার বাংলা ঢুকলে গুষ্টিশুদ্ধ সব্বার জন্যে কাঁদতে পারে নিয়ামত । আমিনার কোলের ছ্যানাটা কাঁদতে পারেনি ।শুধু বুকটা ওঠাপড়া করে । চোখ থেকে জল গড়ায় ।নাকের ডগায় মাছি । বুকে দুধ নেই ।দুধ কিনার পুয়সা নেই । শালা নিকুচির পুয়সা । বুক পকেটের দু তিনটে পুরোনো লটারির টিকিট কুচিকুচি করে হাওয়ায় ওড়ায় নিয়ামত । লে ,লে পুয়সা গুলে খা । মাইকে বাজছে 'অ্যা মেরে বতনকে লোগো '... থেবড়ে খানিক উঠে বসলো সে । কপালে হাত ছোঁয়ালো । চোখ গড়িয়ে জল । শালা যারা বেমালুম মরে গেলো তাদের জন্যি কাঁদবোনি? বালের বানচোত পাটি !কার পাটি বে ? শালা সবাই যদি মরেই যাব ,পাটি লিয়ে কি করবি বল ? আমার চাঁদ নওয়াজ না খেতে পেয়ে মরবে।আমি মদ গিলে মরব ।আমিনা গলায় দড়ি দিবে।'বতন কে লোগো ' ঠাঁই ঠাঁই করে গুলি ছুঁড়ে মারবে । তার লাগানা আছে। শালা ওইপার টা আমাদের দেশের নয় ! ওখানের লোকগুলা তিন পায়া না মুখ দিয়ে হাগে বলতে পারবনি । ওরা দেশের সত্তুর শালা ! দু পা জড়ো করে সোজা হতে চেষ্টা করে নিয়ামত । পারেনা ।পড়ে যায় । ধাক্কা খায় দেওয়ালে । মাথা ফুলে যায় ।

উল্টোদিকের ছোকরাদুটা হাসে । গুটখা ফেলে থু করে । একটা ইংরিজি বলা মেয়ে নাক সিটকে পেরিয়ে যাচ্ছে নিয়ামতকে। মদের গন্ধে বমি আসছে ওর । ও এবার মাস্টার্স করবে । দামী বয়ফ্রেন্ড অপেক্ষা করছে পাবে । আজ পনেরো । মস্ত ছুটির দিন । বিকেলটা একসাথে কাটাবে বলেই সিনেপ্লেক্সের টিকিট কেটেছে ওরা । এই মদো মাতাল গলিটা পেরিয়ে গেলেই হাইরাইজ ফ্ল্যাটবাড়ির মুখ । তারপর সুদৃশ্য পার্ক ।আপতত স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠান চলছে সেখানে । ছোট ছোট ছেলেমেয়েরা কেক খাচ্ছে এ ওর গায়ে পড়ে। প্লাস্টিকের কাপ উড়ছে মাঠে । মাইকে মাইকে ও আমার দেশের মাটি । নাচ দিদিমণি প্রতীকী ধুলো নিলেন কপালে । নমস্কারের ভঙ্গীতে দাঁড়িয়ে আছেন মঞ্চে ! আর নিয়ামত হুমড়ি খেয়ে পড়লো । জিভ ঘষে গেলো ধুলোয় । নোনতা স্বাদ , বিচিত্র ধুলোবালিতে ভরা ।একটু যেন রক্ত লেগে আছে । চেটে খাচ্ছে সে । নেশার মুখে ভালোই লাগছে ! চাকনা মতো ,নোনতা ! 

নিজের রক্ত নিজেই খাচ্ছে নিয়ামত । আজ পনেরো তারিখ মাসের ,ঘরে একফোঁটা ডালচাবল নেই ! পাটি মিছিলে গেলে কেক ডিমটা মিলবে ।তাই যাহোক করে সেখানে যাবেই নিয়ামত । 

জয় হিন্দ ! আজাদী মুবারক ভাই !


dr.sayannya34@gmail.com


Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ আপডেট পেতে,পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.