x

প্রকাশিত ৯৬তম সংকলন

শব্দের মিছিল শুরু থেকেই মানুষের কথা তুলে ধরতে চেয়েছে, মানুষের কথা বলতে চেয়েছে। সাহিত্যচর্চার পরিধির দলাদলি ও তেল-মারামারির বাইরে থেকে তুলে আনতে চেয়েছে অক্ষরকর্মীদের নিজস্বতা। তাই মিছিল নিজেও এক নিজস্বতা অর্জন করতে পেরেছে, যা আমাদের সম্পদ।

সমাজ-সচেতন প্রকাশ মাধ্যম হিসেবে শব্দের মিছিল   প্রথম থেকেই নানা অন্যায়, অবিচার, অসঙ্গতির বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলেছে। এই বর্ষপূর্তিতে এসেও, সেই প্রয়োজন কমছে না। পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনের ফল প্রকাশের পরবর্তী বিভিন্ন হিংসাত্মক কাণ্ড আমাদের যথারীতি উদ্বিগ্ন করছে। যেখানে বিরোধী দলের হয়ে কাজ করা বা বিরোধী দলকে সমর্থন করার অধিকার এখনও নিরাপদ নয়, সেখানে যে গণতন্ত্র আসলে একটি শব্দের বেশি কিছু নয়, সেকথা ভাবলে দুঃখিত হতেই হয়। ...

চলুন মিছিলে 🔴

সুনন্দা চক্রবর্তী

sobdermichil | এপ্রিল ০৩, ২০১৮ |
বাসন্তিকা
সন্তের আগমন উপলক্ষ করে আমাদের বাংলায় ঋতুর সেজে ওঠাকে আমরা কতশত কবিতায়, গানে বর্ণনা করি। ফাগুণ আসলেই মন অকারণ চঞ্চল আমের বোলের গন্ধে উদাসপারা মন নিয়ে মাঝে মাঝে কি যে করব তাই বুঝতে পারি না এই মধ্যবয়সে এসে। পুরুষ কোকিলের কামার্ত কুহুতানে নারী  কোকিলের মন যেমন উতলা  হয়,  ঠিক তেমনি দক্ষিণা বায়ে আমাদেরও মনের মাঝের অপূর্ণতাগুলো মেরামতি করে নিতে চাই প্রাণপণ। ফাগ ফাগুয়ায় আবির রঙ্গে নিজেকে রাঙ্গিয়ে নেবার মনবাসনায় পলাশ, শিমুলে রঙ প্রার্থনা করি।

কত কত দিন কলেজে পড়ার সময় হোলী এলে ভাবতাম – আহারে! রঙ কে দেবে? আমার বাল্যবান্ধবি সুমি ছাড়া রঙ দেওয়ার কেউ নেই। চারদিক এত খা খা শূন্যতা কি থাকা উচিত একটা উনিশ কুড়ি বছরের মেয়ের? নিজেকেই ছিঃ ছিক্কার দিতাম।একটা ভ্রমর আসতে নেই বুঝি ? আর তরোয়াল হাতে দুস্মন্ত?

সারা ছাদ ঘুরে আমের মুকুলে নাক রেখে কেমন আবেশে জড়িয়ে যেতে যেতে বসন্তবাবুকে আমার ভালো লেগে যেত। আমার তখন কল্প পুরুষ বসন্তবাবু আর আমি বাসন্তিকা। একরাশ লম্বা চুলে বেণী আর তার ফাঁদে আম্রমুকুল। কি রোম্যান্টিক! কি আবেগ!  সব ছাদ জানে। আর জানে গলা বাড়িয়ে দাঁড়িয়ে থাকা দুটো নারকেলগাছ, একদম ছাদ ঘেঁষে জলট্যাঙ্কির পাশের কচিকলাপাতা রঙের পাকানো সরু লাজুক লাজুক কলাপাতাটা। পাশের পরিত্যাক্ত বাগানের কল্কেফুলগাছটাও উঁকিঝুঁকি দিতে ছাড়ত না। আর বিশাল বড় আমড়া গাছ শূন্য হয়ে হাড় জিরজিরে কাঙালের মতন তাকিয়ে থাকত তা কি আমি দেখিনি? ও তো জানে যে এই বাড়ির মেয়ে যখন বেশি বেশি গান গাইবে, ছাদের আলসে ধরে ঝুঁকে নবীন কিশোরের খোঁজ করবে তখন ওর ডালে ছোট ছোট পাতার কুঁড়ি আসবে। ঝিরঝিরি হাওয়ায় সবে গৌতমদার ( গানের মাস্টারমশাই ) থেকে শেখা গানটা গেয়ে গেয়ে নেচে বেড়াবে বাসন্তিকা – ওরা  অকারণে চঞ্চল/ ডালে ডালে দোলে নব হিল্লোলে/ নব পল্লবদল.........।।

আজও প্রবাস জীবনে আমি ছাদবিলাসী হই, হাইরাইজের ছাদে আমগাছ নামাই। তাতে কোকিল ডাকে। আম্র মুকুলের জন্য মন টনটন করে। দূরে আমাদের আবাসনের রাস্তায় গোলাপি চেরিব্লসমে চোখ রেখে ভাঙ্গা গলায় গান গাই। আবাসনে নতুন লাগানো কৃষ্ণচূড়ায় কি রঙ লাগল? আমার মেয়ের গালেও কি সেই রঙের আভা খুঁজি? আজকাল আতিপাতি করে খুঁজে যাই আমার মেয়েবেলা নিয়ে এক দুপুরে মেয়ের কাছে যাই। ঝোলাটা উজাড় করে দি। কত গল্প, গান, গাছ, পাথর, ফুল দেখাতেই থাকি। আমার এলোঝেলো অবস্থা দেখে রুপালী চুল সরাতে সরাতে আমার মেয়ে বলে – মা , আমার বড্ড অবুঝ একরত্তি মেয়ে। বাসন্তিকা মেয়েবেলার পোঁটলাটা নিয়ে ঘুরে বেড়ায় আজি এ বসন্তে।


sunandaa.chakravorty29@gmail.com


Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন


বিজ্ঞপ্তি
■ আপডেট পেতে,পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.