x

প্রকাশিত | ৯৪ তম মিছিল

কান টানলেই যেমন মাথা আসে, তেমন ভাষার প্রসঙ্গ এলেই মানুষের মুখের ভাষার দৈনন্দিন ব্যবহারের কথাও মনে পড়ে যায়, বিশেষত আজকের দিনে। ভাষা দিবস মানেই শুধু মাতৃভাষা নিয়ে আবেগবিহ্বল হয়ে থাকার দিন বুঝি আজ আর নেই!

কেননা সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে যাঁরা মাথায় বসে আছেন, বিশেষত যাঁরা রাজনীতির পৃষ্ঠপোষকতায় ক্ষমতাভােগী এবং লােভী, তাঁদের মুখের ভাষা এবং তার প্রয়ােগ আজ ঠিক কতটা শিক্ষণীয় এবং গ্রহণীয় সেটা শুধু ভাবার নয়, রীতিমতো শঙ্কার এবং সঙ্কটের।

সবই কি তবে মহৎ ভাবনা, অনুপ্রেরণার জোয়ার? নাকি রাজনৈতিক কারবারিরা 'সুভাষিত' শ্রবণাতীত বয়ানে নিজেদের অক্ষমতার মদমত্ত প্রকাশ করছেন? সাধারণ ছাপােষা মানুষ বিস্ফারিত চিত্তে এই ভাষাসন্ত্রাস,এই ভাষাধর্ষণ দেখতে শুনতে ক্লান্ত। এর থেকে উত্তরণের উপায় এখনও অবধি কোনাে ভাষা দিবস দেখাতে পারেনি। এবারের ভাষা দিবসের কাছেও কি সেই উপায় আছে? নাকি এই খেলা হবে, চলবে ... মেধাহীন গাধাদের দৌলতে?

চলুন মিছিলে 🔴

মঙ্গলবার, এপ্রিল ০৩, ২০১৮

পিনাকি

sobdermichil | এপ্রিল ০৩, ২০১৮ | | মিছিলে স্বাগত
এবং ঋষিকা...
শেষপর্ব

১।

ভোরের আলো খুব সরু হয়ে , ঋষিকার দু’ চোখের পাতা ভিজিয়ে দিল ! ঘুম ভেঙে যেতেই সে দেখল , মাথার উপর গাছেদের পাতার ফাঁকে -ফাঁকে ঝালরের মতন ঝুলে রয়েছে বিন্দু – বিন্দু আলো । সে নিজেকে বৃষের পেশী বহুল বুকের উপর আবিষ্কার করল । আগের রাতে ভয় আর ক্লান্তিতে কখন দু’চোখের পাতা এক হয়ে গিয়েছিল ! চোখ খুলতেই গত রাতের ভয়ংকর স্মৃতি তাড়া করছে । আজ নতুন কিছু ঘটতে চলেছে ।

যে অভিজ্ঞতা তারা নিয়েছে , তা সুখের ছিল না । যে অভিজ্ঞতা তাদের জন্য অপেক্ষা করে আছে -- তাও সুখের হবেনা । বৃষের তপ্ত বুকের ওম - ঘাড়ে , কানে এখনো উষ্ণতা দিচ্ছে । এই অনুভূতিটুকু সত্যি । টানা দুই দিন , দুটি মানুষ একসাথেই প্রতিমুহূর্তে মৃত্যু উদযাপন করে চলেছে । এই উদযাপিত মৃত্যু –সময় তাদের জীবনের প্রাপ্তি । দু’জনেই পরস্পরের খুব কাছে এসে গেল ।

পাশে শুয়ে আছে বৃষ । মুখে শান্তির ছবি । এত নিরাপত্তাহীনতার ভিতরেও , নিরাপদ স্বপ্নবিলাসিতা । ঠোঁটে শেষ রাতের পরিতৃপ্তি ।

ঋষিকা নিজের ঠোঁট ছুঁয়ে সেই মুহূর্তটুকু অনুভব করল । মুখে লাল ছাপ ।মনে –মনে বৃষের উদ্দেশ্যে বলল - ইস , খুব বীর পুরুষ , ভালোবাসে এই কথাটুকু স্বীকার করতে ভয় !

মাথার চুলে বিলি কাটছিল ।

বৃষ ঘুম থেকে জেগে উঠেছে । উদ্বিগ্ন কণ্ঠে বলল - অনেক বেলা হয়ে গেল !

-কত ?

-সে অনেক । কিছু খাবারের ব্যবস্থা করতে হবে । তোমার শরীর ঠিক আছে ?

কথাটা শুনে মিচকি হাসল ঋষিকা । বলল – কেন শরীর খারাপের মতন , শেষ রাতে কিছু ঘটেছিল ?

বলেই হাসতে শুরু করেছে ।

বৃষের লজ্জা লাগছে । বলল – চলো , আর সময় নেই ।


বৈবস্বত মনুর রাজত্বে , এক ভয়াবহ মন্বন্তর নেমে এসেছে । তাকে ক্ষমতাচ্যুত করবার জন্য বিদ্রোহীরা এক গোপন আক্রমণের পরিকল্পনা করেছে । তার আগে মনুর ক্ষমতাকে দৃঢ়তা দিচ্ছে যে নৈমিষারণ্য , সেখানকার ক্ষমতার উৎস জানবার জন্য বিদ্রোহীদের সংগঠন বৃষ আর ঋষিকাকে পাঠিয়েছে । এই অভিযান তাদের কাছে বেশ শক্ত । কেননা এই অরণ্যকে ঘিরে রয়েছে তিনটি অরণ্যের স্তর । প্রথম দুটো তারা পেড়িয়েছে । এখন তৃতীয় স্তরে তাদের প্রবেশ ঘটবে ।

সম্ভবত এই স্তরটিই সবচেয়ে বেশী বিপদজনক এবং মৃত্যুপ্রবণ । মুখে – মুখে প্রচলিত রয়েছে , এই স্তরটি পাহারা দেয় এক ভয়াবহ দৈত্য । অবশ্য এই দৈত্য হচ্ছে এক অদ্ভুত জন্তু । খুবই হিংস্র আর বর্বর । এতটুকুই জেনেছে তারা । এই স্তর থেকে যদি বেঁচে যেতে পারে তবেই নৈমিষারণ্যতে প্রবেশ করতে পারবে । সেখানে অনেকের চোখকে ফাঁকি দিয়ে গোপন কুঠুরিতে প্রবেশ করতে পারলেই , সভ্যতা সৃষ্টির আদি রহস্য জানা যাবে । ব্রক্ষ্মা প্রথমে এখান থেকেই সভ্যতার সূচনা করেছিল । আশ্রমিকদের এমন কিছু দিয়েছিল , যা আজও রহস্য । এখন দেখবার ---- এই অভিযান সেই রহস্যকে ভেদ করতে পারে কি না ?


২।

ওরা দু’জনেই এগিয়ে চলল । সামনে বৃষ কাঁধে ধনুক আর পীঠে তীর । পিছনে ঋষিকা তার কাঁধে ধনুক হাতে বল্লম । খুব ছুঁচালো । ঋষিকা বলল – আমাদের সজাগ থাকতে হবে ।

-ঠিক বলেছ । এই স্থান একদমই নিরাপদ নয় ।

-আচ্ছা বৃষ , আমরা স্বাধীন হতে পারব ?

-তা বলতে পারব না । তবে এতটুকু বুঝি , মনুর নিয়ম তার নিজের সুবিধা অনুযায়ী সৃষ্টি । এই নিয়ম শোষণের এক পন্থা । এই পন্থা বিলোপ করতে হবে । দুঃখের বিষয় , এখনো সাধারণ মানুষদের এর বিরুদ্ধে কিছুই উপলব্ধি নেই । তারা এই সব কিছুকে মেনে নিয়েছে ।

-নারীরাও পরাধীন । তাদের নিঃশ্বাস নিতে দেওয়া হয়না । স্বাধীন জীবনের জন্যই এত কিছু । আমাদের সফল হতেই হবে । আমরা স্বাধীন না হলে , মানবতার মুক্তি ঘটবে না ।

-ঋষিকা , মনুকে রাজনৈতিক দিক থেকে শক্ত ভিত্তি দিয়েছে পুরোহিতরা । তাদের হাতেই সমাজের সামাজিক স্বীকৃতি । ধর্মের শৃঙ্খলায় , মানুষকে পরাধীন করে রাখবার কৌশল তাদের হাতেই । আমাদের তাই ধার্মিক - সম্মানকে সামাজিক চেতনায় পরিবর্তন করতে হবে । ধর্মের পুনর্গঠন দরকার ।

-মানে ?

-দেখো , পুরোহিতরা আমাদের মতন শূদ্রদের অন্নে প্রতিপালিত হচ্ছে । অথচ মনু তাদের স্বীকৃতি দিয়েছে ! এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমাদের নতুন করে ভাবতে হবে । সমাজে নতুন কিছু শুধুই ধ্বংসের মধ্যে দিয়ে আসবে না । এই পুরানো প্রচলিত সমাজ ব্যবস্থা আমাদের শত্রু । তাদের বিরুদ্ধে লড়তে হলে নতুন মানসিকতাকে আহ্বান করে গঠন করতে হবে । শুধুই ধ্বংস নয় ।পরিবর্তনের অর্থ আরও শক্তিশালী কোন কিছু সৃষ্টি করা । মনে রেখো , সৃষ্টিতেই বিপ্লব রয়েছে । মুক্তি রয়েছে । ধ্বংসে কেবল অরাজকতা ।

-তুমি কখনো মানবশাস্ত্র অধ্যায়ন করেছো ?

-না । শুনেছি , বৈশ্য আর ব্রাক্ষ্মন ছাড়া এই শাস্ত্র কেউ শুনতে পারেনা । মনুর এক বিশেষ বাহিনী আছে , যারা শূদ্রদের হত্যা করে , যদি কোন শূদ্র বা নারী কৌতূহল বশত এই পাঠ নিতে আগ্রহী হয় , তাকে হত্যা করা হবে । এমন কী লুকিয়ে শুনে নিলেও মেরে ফেলবে । খুন করবে । যে শাস্ত্রে সকলের অধিকার নেই , তা কখনই মানুষের প্রয়োজনে আসতে পারেনা । শিক্ষা সমাজকে উন্নত করে । তার যুক্তির ধারেতে রক্তাক্ত হয়ে উঠবে দাসত্বের বোধ । তেমন জাগরণ দরকার । এই শাস্ত্রে দাসত্ব রয়েছে । মানবশাস্ত্র হতে পারে না ।

-আমরা পারব মুক্তি দিতে ?

-এটা খুব শক্ত প্রশ্ন করলে । মানুষের ভিতর ভয় উৎপাদন করা অপেক্ষাকৃত সহজ , চেতনার জন্ম দেওয়ার থেকে । কেননা ভয় সমষ্টিগত চেতনা , মানে সব সময় তুমি নিজে প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতা থেকেই এই অনুভূতি গ্রহন করবে , এমনটা নাও হতে পারে । লোকমুখে শুনে বা মনু কর্তৃক প্রচারিত করা হয় । তুমি খুব সহজেই ভয়কে বিশ্বাস করে ফেলবে । চেতনাকে নয় । কেননা চেতনা সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত উপলব্ধি । তাইতো আমাদের সমাজে পরিবর্তন করতে হলে আগে জানতে হবে , সভ্যতার অধিকাংশ মানুষকে নিজেদের মতাদর্শে বিশ্বাস করাতে হলে যে পথ মনুরা নিয়েছে , তার রহস্য ।

-সত্যি , আজ যে এত মানুষ মৃত্যুর মুখে শুয়ে আছে । দেশে অনাচার চলছে , এই সব কিছু মনুর ক্ষমতা লোভী চিন্তা ।

-মনু পরিবেশের বিরুদ্ধাচারণ করেছে । তাই দেশে এই মন্বন্তর । আমাদেরকে এই মোক্ষম সময় কাজে লাগাতে হবে । যে ভাবেই হোক না কেন , সেই রহস্যময় কক্ষ খুঁজে নিতে হবেই । নইলে আমাদের এই অভিযান ব্যার্থ ।

ওরা বনের ভিতর চলে এসেছে । চারপাশে অনেক গাছ –গাছালি রয়েছে । সূর্যের আলো থেমে – থেমে আসছিল । মনে হচ্ছে , এটাই সেই অভিশপ্ত এলাকার সীমান্ত ; যা পেড়িয়ে গেলেই মৃত্যুর অববাহিকা শুরু হবে ।

এই প্রথম , এক অজানা আতঙ্কে --- ঋষিকার ভিতরটা কেঁপে উঠল ! সে বুঝতেও পারছেনা , বিপদের চেহারা কেমন হবে !


বেশ কিছুটা পথ পেড়িয়ে , সামনে জলাশয় দেখতে পেল । ঋষিকা বলল – আগে কিছু ফল খেয়ে নিয়ে , তারপর মুখ ধোব ।

বৃষ বলল - মাথার উপরে সূর্য দেখা না গেলেও , বেশ বেলা হয়েছে বুঝতে পারছি । ক্লান্তিতে ভরে উঠেছে দেহ । একটু জল পান করতেই হবে । তুমি এখানে দাঁড়াও । বলা যায়না জলাশয়ে কোন সরীসৃপ আমাদের খাদ্য করবে বলে অপেক্ষা করছে !

-তুমি একা যাবে কেন ?

-কারণ , যদি কোন হিংস্র সরীসৃপ আক্রমণ করে , তুমি প্রতি -আক্রমণ করতে পারবে । তাই নিজেকে সজাগ রাখো । আমি আসছি । 


বৃষ খুব ধীরে –ধীরে নামছে । জলাশয়ে পা রাখবে । জলাশয় আর বৃষের পায়ের মধ্যে একটি মাত্র ধাপের দূরত্ব । এমন সময় কানে শুনতে পেল ঋষিকার চিৎকার – বৃষ ফিরে এসো ......ওটা মৃত্যু !!

আর দেখল , কানের পাশ থেকে অতিদ্রুত একটা তীর জলাশয়ের ধারে পড়তেই – তা অতি দ্রুত চুম্বকীয় টানে জলাশয়ের মাঝখানে চলে গেল । ঘূর্ণির সৃষ্টি হয়ে , কিছুক্ষণ বাদেই তীরটি জলাশয়ের গভীরে তলিয়ে যাচ্ছে !

বৃষ ঘাবড়ে গিয়েছে । গোটা ঘটনার কোন ব্যাখ্যা তার কাছে নেই । পিছনে ফিরে এসে কাঁপতে – কাঁপতে ঋষিকাকে জড়িয়ে ধরল । নরম ঠোঁটে , উত্তেজনায় চুমু খেয়ে বলল – প্রাণ রক্ষা করলে ।

ঋষিকা , নিজের হাত দিয়ে বৃষের শুকনো ধুলো জমা মাথা বুলিয়ে দিল । বলল – এমন এক ধরণের জলাশয়ের অস্তিত্ব আমি বাবার কাছে শুনেছিলাম । এই জলাশয়ে জল নেই । জলের মতন দেখতে এক বিশেষ পদার্থ , যা ভীষণ আঠালো । কেউ নামলেই তাকে টানতে – টানতে চুম্বকীয় টানে জলাশয়ের মাঝে নিয়ে যায় । তারপর সে জলাশয়ের মাঝে চোরা বালির স্থানে হারিয়ে যায় । এরজন্যই আমি তীর চালিয়ে দেখলাম । আমাদের আগে আরও সজাগ হতে হবে ।

৩।

শেষ কয়েক ঘণ্টায় নতুন কোন বিপদ আসেনি । সন্ধ্যা নামবে , এই প্রহর চলে গেলেই জঙ্গল আচমকাই অন্ধকারে ঢেকে যাবে , তখন আরও মৃত্যুপুরী হয়ে উঠবে। যে কোন অবুঝ পদক্ষেপ , তাদের অভিযান ব্যার্থ করতে যথেষ্ট। তাই ওরা ভাবছে – আজ রাত এখানেই বিশ্রাম নেবে । আগামীকাল নতুন ভাবে শুরু করা যাবে ।

সন্ধ্যার দিকে কিছু ফল খেয়েছে । এই ফলই তাদের তৃষ্ণা মেটাতে সাহায্য করল । অত্যন্ত চতুরতার সাথে , শত্রুদের জলের জন্য হাহাকার করবার জন্য পরিকল্পিত ভাবে কোন জলাশয় স্থাপন করা হয়নি । এর থেকেই বোঝা যাচ্ছে , নিষ্ঠুরতা । আশ্রমিকরা শত্রুকে বিন্দুমাত্র রেয়াত করে না । তাদের কাছে ভয়াবহতার কোন অন্তিম সীমারেখা হয়না । অবশ্য খুব চতুর আর রণকৌশলে পটু না হলে এই স্তর অতিক্রম করা যায়না ।

ওরা দু’জনে শুয়ে আছে । বৃষের বুকের উপর মাথা রেখেছে ঋষিকা । খোলা চুলে রাতের অন্ধকার মিশে আছে । বন ফুলের গন্ধ ঋষিকাকে আরও মায়াবি করে তুলছে । বৃষের নিম্মাঙ্গে কাপড় । ঊর্ধ্বাঙ্গ নগ্ন । ঋষিকার স্তন দুটো অন্তর্বাসে আচ্ছাদিত । নিম্মাঙ্গে কাপড় । মধ্যরাত ।

বৃষের চোখের দিকে চোখ রেখে , ঋষিকা বলল – তুমি জীবনে কাউকে ভালবেসেছো ?

খোলা গভীর চুলের রাশিতে নাক চুবিয়ে , বন্য ফুলের গন্ধে মেতে গিয়েছে । বৃষ বলল –হ্যাঁ

-কে !

ঋষিকার গলায় চিন্তার স্বর ।

-কেউ একজন । রাজকন্যা । যাকে পাওয়ার জন্য অনেকেই পাগল । তেমন মেয়েকে...

-কে ?

-যে আমার সাথে এসেছে , আমার কাঁধে কাঁধ ঠেকিয়ে লড়ছে । আমার প্রাণ বাঁচালো ...

কিছুক্ষণ তাকিয়ে বলল – ভারী মন রেখে কথা বলতে পারো ... এই কথার ধরণ শিখলে কোত্থেকে ? শুধু যোদ্ধা নও , একজন কবিও ।

-আমি প্রেমিক । জানোনা , কবিতা লিখতে হলে আগে প্রেম করা শিখতে হয় ।

-আমার জীবনে তুমিই প্রথম ।

-ঋষি , আমার মধ্যে এমন কিছু পেয়েছ , তোমাকে আমার দিকে টেনে এনেছে ?

-হু । পেয়েছি বলেই , তোমাকে পাগলের মতন ভালবাসছি । মেয়েরা মিথ্যা – মিথ্যা ভালবাসতে জানেনা । এই ভালবাসা আছে বলেই এখন ভয় হচ্ছে খুব । তোমাকে হারাতে চাইনা ।

-সময় বলবে আমরা এক হতে পারব কি না ? তবে ঋষি , যদি আমার কিছু হয়েও যায় , তুমি এই লড়াই থামিও না । যারা শোষিত , নিপীড়িত তাদের জন্য এই জীবন একবার নয় শত –সহস্রবার দিতে প্রস্তুত । এই যে ভালোবাসা আমরা পাচ্ছি । এই পাওয়ার রেসটুকুই থেকে যাক । 

ওরা যেখানে শুয়ে রয়েছে , আগুন জ্বালায়নি । এখানে আগুন জ্বালানো মানেই বিপক্ষ শিবিরকে বার্তা দেওয়া । 

অনেক রাত । এই রাতের সীমা জানা নেই । গভীর অরণ্য ভেদ করে , চাঁদের আলো ভূমি স্পর্শ করতে পাচ্ছে না । বেশ বড় আর গভীর বৃক্ষের পাতার ভিতর থেকে যে আলো এসেছে , সে আলোয় চারপাশে ছায়া – ছায়া দৃশ্য দেখা যাচ্ছে ।

বৃষই প্রথম টের পেল ব্যাপারটা । বুকের উপর ঋষিকা ঘুমোচ্ছে । তাকে ডাক দিতেই , সে জেগে গিয়ে বুঝতে পারল কিছু একটা ঘটছে । ফিসফিস করে বলল

-সে এসেছে !

-খুব কাছেই । আমার পিছনেই নিঃশ্বাস টের পাচ্ছি । সাবধান ! তুমি আস্তে – আসতে ডানদিকে গড়িয়ে নেমে যাও । অস্ত্র প্রস্তুত করো ।

বৃষ নিজের হাতে অস্ত্র নিয়ে উঠে গেল । সে টের পাচ্ছে খুব কাছেই কিছু আছে । হাত নেড়ে বলল – আর নিরাপদ নই আমরা । সে আমাদের সাথেই আসবে । চলো ...


ওরা রাতের অন্ধকারে , দুটো পাথরে ঠুকে -আগুন জ্বালিয়ে নিল । মশালটা ঋষিকার হাতে রয়েছে । সামনে বৃষ বল্লম ধরে আছে । লোহার ফলা । মনে হচ্ছে রাতের অন্ধকারে জঙ্গলের বুক চিড়ে এক বিন্দু আলোর স্রোত বইছে !

অনেকটা ছুটবার পর বৃষের খেয়াল হল ঋষিকা তার সাথে নেই ! তখনই মেয়েটার চিৎকার শুনতে পেল !


৪।

না , এমন বীভৎস সরীসৃপ সে আগে দেখেনি ! দেহের উপরিভাগ কুমীরের মতন । লেজটা কাঁটা – কাঁটা বেশ লম্বা আর চওড়া । হাতের নখ অনেকটা বাঘের নখের মতনই । গোটা দেহ থেকে বিশ্রী দুর্গন্ধ বেরোচ্ছে ! চোখ দুটোর দিকে তাকালেই দেহ অবশ হয়ে আসে ।

বৃষ আর সেই ভয়ঙ্কর দৈত্যটার মাঝে ঋষিকার সংজ্ঞাহীন দেহ । না , ভয় পেলে চলবে না ।

নিজের মনে বল সঞ্চয় করে বর্শাটা ছুঁড়ে দিল । দৈত্যটাও লাফ মেরেছে । বৃষ গড়িয়ে গেল ডানদিকে । অস্ত্রটা বুকে বিঁধে গিয়েছে ! তাও দৈত্যটাকে থামানো যাচ্ছে না । তার গলায় কোন চিৎকার নেই । শুধু চোখে তীব্র হিংসার বহিঃপ্রকাশ । আবার তার দিকে ছুটে এসেছে । বৃষ এইবার খুব দ্রুত তীর মারল । সে জানে আক্রমণ করবার আগেই সরীসৃপটিকে বিদ্ধ করতে হবে ।

বৃষ উঠে দাঁড়িয়ে আরেকবার ধনুকে –তীর রেখেছে । দৈত্যটা লাফ মারল । 

বৃষের বুকে যখন পড়ল , বোঝাই গেল দেহের ওজন এতটাই , মনে হচ্ছে মাটির নীচে চাপা পড়ে যাবে । এইবার সব শক্তি দিয়েও রুখতে পাচ্ছে না । দৈত্যটা মুখটা হা করে কামড়াতে আসছে । দেহের সব শক্তি দিয়ে যে প্রতিরোধ , তা ব্যার্থ হবে !

চোখ বন্ধ করে খুলতেই দেখল , বৃষের মুখে রক্ত মেখে রয়েছে । দৈত্যের মুণ্ডু কাটা । পিছনে ধারালো অস্ত্র নিয়ে দাঁড়িয়ে ঋষিকা । এই লড়াইয়ের মাঝে জ্ঞান ফিরেছে ! হাঁপাচ্ছে । সে নিজেও জানত না , এক কোপে এমন মাথা নেমে যাবে ! কাঁপতে- কাঁপতে বলল – বৃষ ঠিক আছতো ? আমি দেখলাম দৈত্যটা তোমার উপর আক্রমণ করবে । নিজেকে সামলাতে পারিনি । খুব ভয়ানক জন্তু !

-হ্যাঁ , নৈমিষারণ্যের নিরাপত্তার জন্য জন্তু আর সরীসৃপের সংমিশ্রণে তৈরী করা হয়েছে ।

-এই জন্তু এখানেই থাকে ?

-আমার মনে হয় আশ্রমে ঢুকবার অধিকার এর নেই । মূলত নৈমিষারণ্যে প্রবেশের আগে তিনটি একই রকম অরণ্যের স্তর তৈরী করা হয়েছে । সেই স্তরের তৃতীয় স্তরের নিরাপত্তায় এই জন্তুটা রয়েছে । খাবারের সন্ধানে দ্বিতীয় স্তরে চলে আসে । আমাদের সাথে তাই আগে এর একবার মুখোমুখি হয়েছিল । তখন অবশ্য আমাদের সন্ধান পায়নি বলে পালিয়ে গিয়েছিল । এখন মুখোমুখি হয়ে গেলাম ! এই বনে অন্য কোন মাংসাশী নেই তার প্রধান কারন , এমন একটা জন্তুর থাকা । সেই সবাইকে খাদ্য করেছে । আমরা এই জন্তুটির কথাই শুনেছিলাম ।

আকাশে আলো ফুটছে । ওদের দু’জনের খেয়াল হল --- এতক্ষণ অরণ্যের যে বন্দী দশা ছিল তা আর নেই । বৃষ উঠে দাঁড়িয়ে বলল – আর ভয় নেই , এই সংকর প্রজাতির হিংস্র সরীসৃপটি মারা গিয়েছে । ওই দেখো ... নৈমিষারণ্যের সীমারেখা শুরু হয়েছে । মুক্তির দ্বার । ওই যজ্ঞবেদী । এসো ...

ঋষিকা নিজের চোখকে বিশ্বাস করতে পাচ্ছে না ! শেষ পর্যন্ত তারা একটা মিথকে ছুঁয়েই ফেলল !


৫।

যে পথ দিয়ে তারা ঢুকেছে , তা গোপন পথ । আশ্রমের ভিতরে উপাসনায় মগ্ন সাধুদের দেখে ঋষিকা বলল – আমাদের খুব দ্রুত গোপন কক্ষ খুঁজে নিতে হবে । আর সময় নেই । পুরোহিতরা উপাসনায় মগ্ন , এখন কেউ আসবে না ।

-আমার কাছে খবর আছে , যজ্ঞ বেদীর দক্ষিণে নকশা করা স্থান রয়েছে । সেখান থেকে বাঁদিকে দশ ‘পা হাঁটলেই ... সুরঙ্গ দেখতে পাবে । এই সুড়ঙ্গের ভিতর দিয়ে কিছুক্ষণ যেতে হবে , তাহলেই রহস্যের সমাধান । এই অরণ্যে ব্রক্ষ্মা যে গোপন জিনিসটি দিয়েছিলেন সেটি জানতে পারব ।

-তোমার কী মনে হচ্ছে ? সেই গোপন অস্ত্র কেমন হবে ?

-বলতে পারব না ঋষিকা । তবে এতটুকু বলতে পারি , তা নিশ্চই কোন ভয়ঙ্কর অস্ত্র হবে ।যা ব্যবহার করে একটা সভ্যতাকে মুহূর্তে নিশ্চিহ্ন করা যায় ।

-নিশ্চিহ্ন !

-নচেৎ সকলেই কেন তাদের বশ্যতা মেনে নিয়েছে । এত দ্রুত সভ্যতা বিস্তার করল । এখানকার আদি লোকেদের সাংস্কৃতিক দিক দিয়েও দখল করে নিল ! আজই এই রহস্যের সমাধান ঘটবে । জানতে পারব , সেই অস্ত্রের ক্ষমতা । রূপ ।

বৃষ যজ্ঞ বেদী থেকে কিছুটা দূরে দাঁড়িয়ে । কাছেই সুড়ঙ্গের হদিস পেল !

-ঋষিকা , আমাদের এই সুড়ঙ্গের ধরতে হবে । এখানেই আছে সেই রহস্য । আমাদের সেই শায়িত রহস্য দেখেই ভবিষ্যতের পরিকল্পনা করা যাবে । 


সুড়ঙ্গের ভিতরে দুজনেই নেমে , বুক উপুড় হয়ে মাটিতে ঘঁষে- ঘঁষে এগিয়ে চলেছে । সুড়ঙ্গের মুখটা অন্ধকারে ভরা । কিছুটা গিয়ে দেখল , সামনেই বেশ বড় কক্ষ । সেখানে এক অদ্ভুত জিনিস শায়িত রয়েছে । গোটা কক্ষের চারদিকে বাতিদানী রয়েছে । সেখান থেকে আলো বেরিয়ে আসছে । সেই আলোয় কক্ষটি উজ্জ্বল হয়ে উঠেছে । বাইরে থেকে কেউ বুঝতেই পারবেনা , মাটির নীচে এমন একটা কক্ষ রয়েছে ! এই কক্ষের ভিতরেই রয়েছে সেই বহু কথিত রহস্য । লোকমুখে যা রহস্যাবৃত ।

ঋষিকা আর বৃষ কক্ষের সামনে এসে দাঁড়িয়ে দেখল , ভিতরে --- ব্রক্ষ্মার ধর্মচক্রের গোল চাকার হাল! ধাতুর । খুব সুন্দর আর অত্যাশ্চর্য ।


এই হাল চালিয়ে জমিতে ফসল ফলানো হয় । খাবার সংগ্রহ করা হয় । ওরা দু’জনে এতক্ষণ যে শক্তিশালী অস্ত্রের কথা আলোচনা করছিল , সামনে থাকা চাকাটি সেই অস্ত্র ! ক্ষিধেই মানুষের প্রাচীনতম ও প্রধান শত্রু । চাকার হাল সেই শত্রুকে মুহূর্তে হত্যা করতে সমর্থ । আধুনিক চাষাবাদের পদ্ধতি লুকিয়ে রয়েছে , নৈমিষারণ্যের এই গোপন কক্ষে । মানুষকে বশ্যতা স্বীকার করাতে হলে , তাকে ক্ষুধা মুক্তির পথ দেখাতে হবে । ব্রক্ষ্মার সেই পদ্ধতি এখানে লুকিয়ে রাখা হয়েছে । খাদ্য উৎপাদনের জ্ঞান দেওয়ার পরিবর্তে ক্ষত্রিয়রা পুরোহিতদের রক্ষা করে । শূদ্ররা খাদ্যের জন্যই বশ্যতা স্বীকার করেছে । আর এইসব কিছু লুকিয়ে রাখা হয়েছে , শুধুমাত্র মানুষের চোখে ভগবান সাজতে । পরিত্রাতা হতে ।

ওরা দু’জনেই পরস্পরের দিকে তাকিয়ে রইল ! 




Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ আপডেট পেতে,পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.