x

আসন্ন সঙ্কলন

গোটাকতক দলছুট মানুষ হাঁটতে হাঁটতে এসে পড়েছে একে অপরের সামনে। কেউ পূব কেউ পশ্চিম কেউ উত্তর কেউ দক্ষিণ... মাঝবরাবর চাঁদ বিস্কুট, বিস্কুটের চারপাশে লাল পিঁপড়ের পরিখা। এখন দলছুট এক একটা মানুষ এক হয়ে হাঁটছে চাঁদ বিস্কুটের দিকে। আলাদা আলাদা মানুষ এক হয়ে হাঁটছে সারিবদ্ধ পিঁপড়েদের বিরুদ্ধে। পথচলতি যে ক'জনেরই নজর কাড়ছে মিছিল তারাই মিছিল কে দেবে জ্বলজ্বলে দৃষ্টি। আগুন নেভার আগেই ঝিকিয়ে দেবে আঁচ... হাত পোহানোর দিন তো সেই কবেই গেল ঘুচে, যেটুকু যা আলো বাকী সবটুকু চোখে মেখে চাঁদ বিস্কুট চেখে চেখে খাক এই মিছিলের লোক। মানুষ বারুদ কিনতে পারে, কার্তুজ ফাটাতে পারে, বুলেট ছুঁড়তে পারে খালি আলো টুকু বেচতে পারেনা... এইসমস্ত না - বেচতে পারা সাধারণদের জন্যই মিছিলের সেপ্টেম্বর সংখ্যা... www.sobdermichil.com submit@sobdermichil.com

অতিথি সম্পাদনায়

মৌমিতা ঘোষ

শব্দের মিছিল

অতিথি সম্পাদনায়

মৌমিতা ঘোষ

বুধবার, জানুয়ারী ৩১, ২০১৮

তপশ্রী পাল

sobdermichil | জানুয়ারী ৩১, ২০১৮ |
শেষ দৃষ্টি
ফিস শেষ হতে আর মিনিট পনের বাকি । সারাদিন ট্রেনিং এ ছিল রাধিকা । একটি তথ্য প্রযুক্তি কম্পানির সিনিয়ার ম্যানেজার । দিনের শেষে নিজের রুমে ফিরে সারাদিনের কাজকর্মগুলো মিটিয়ে নিচ্ছিল দ্রুত । তার অধীনে কাজ করে একাধিক প্রোজেক্ট টিম । টেবিলের উপর অনেক ডকুমেন্ট পড়েছিল আপ্রুভালের জন্য । চটপট সই করছিল রাধিকা ।

হঠাত মনে পড়ল – দেবারতির প্রোজেক্ট এর আজ ডেলিভারী ছিল না ! সব কোড সারভার এ তুলে ক্লায়েন্টকে মেল করার কথা ! করেছে কিনা বুঝতে পারছে না রাধিকা । কয়েকবার দেবারতির ডেস্কে ফোন বেজে গেলো । কেউ ধরল না । দ্রুত রুম থেকে বেরিয়ে এল রাধিকা । এই ফ্লোর জুড়ে তার টিমগুলো বসে । দেবারতির টিম দুরের ডান্ দিকের কিউবিকল গুলোতে বসে । খুব চটপটে আর কাজের মেয়ে দেবারতি । তাই তো প্রোজেক্ট লিডার হয়ে গেছে তাড়াতাড়ি । দূর থেকে দেখা যাচ্ছে না কাউকে । রাধিকা একটু গলা তুলে ডাকে “দেবারতি !” হঠাত নিজের কিউবিকল থেকে উঠে দাঁড়ায় দেবারতি । রাধিকা বলে “ডেলিভারি করেছ?” “হ্যাঁ ম্যাম” বলে দেবারতি । কিন্তু এ কেমন চেহারা মেয়েটার ! শুকনো মুখ যেন রক্ত শূন্য সাদা ! চোখ দুটো জ্বলজ্বল করছে । কি ভীষন ঠাণ্ডা সেই দৃষ্টি ! যেনও কোন সুদুরের দিকে তাকিয়ে জবাব দিল সে । কিন্তু এত ভাবার সময় ছিল না রাধিকার । বলল “আমাকে মেলের কপি পাঠাও” বলে রুমে ঢুকে গেলো । প্রায় সঙ্গে সঙ্গে মেল এসে গেলো । নিশ্চিন্ত হয়ে অন্যান্য কাজ সেরে যখন বেরল রাধিকা তখন চারিদিক নির্জন । প্রায় সব ছেলে মেয়ে বাড়ি চলে গেছে । খালি কয়েকটা প্রোজেক্ট কল চলছে । ব্যাগ নিয়ে লিফটে নীচে নেমে গেলো রাধিকা।

পরদিন জথাসময় অফিসে এসে নিজের ফ্লোরের দরজা দিয়ে ঢুকতে গিয়ে থতমত খেয়ে গেলো রাধিকা ! প্রায় সবাই দাঁড়িয়ে । এখানে ওখানে কিউবিকল গুলোতে জটলা হচ্ছে ! সবার মুখে আতঙ্কের ছাপ ! নিজের রুমের বাইরে অনুপম, কোরক, শর্মিষ্ঠা, মৃণাল, দাঁড়িয়ে ছিল । রাধিকা বলল “কি ব্যাপার ! সবাই দাঁড়িয়ে ? কি হয়েছে ! তোমরা কাজ কর্ম করছ না?” সবাই চুপ ! রাধিকা রীতিমতো অস্বস্তিতে । কেউ কোন কথা বলছে না ! হঠাত কোরক বলে উঠল – “কাল ! দেবারতি !” “কি ! কি হয়েছে দেবারতির !” চেঁচিয়ে বলে রাধিকা ! “কাল দেবারতি – দেবারতি সুইসাইড করেছে !” “কি ! “ নিজের কানকে বিশ্বাস করতে পারে না রাধিকা । মাথাটা কেমন ঘুরে ওঠে ! হঠাত ফোন বেজে ওঠে ওর রুমে ! ধরতেই ভি পি র গলা । “রাধিকা একবার ওপরে এসো – এক্ষুনি !” দ্রুত লিফটে উঠে নবারুনদার ঘরে ঢোকে রাধিকা । নবারুন বলেন “বস, হোয়াট এ হরিবল ইন্সিডেন্স ! তুমি জান কাল কি হয়েছে !” আস্তে আস্তে ঘাড় নাড়ে রাধিকা । নবারুনদার ঘরে অ্যাডমিন হেড, এইচ আর হেড, সব ডিরেক্টররা জড়ো হয়েছেন ! “কাল তুমি কখন বেরিয়েছ? দেবারতির সঙ্গে তোমার দেখা হয়েছিল ?” “সাতটা নাগাদ সার ! ওর সঙ্গে কথা বলেই তো বেরলাম ।“ কিছু মনে হয়েছিল ওকে দেখে ?” “নাহ – মানে –“ অ্যাডমিন হেড সুকোমলদা বলেন “কাল অত্যন্ত আনফরচুনেট ব্যাপার হয়েছে । এই টপ ফ্লোরের সাথে আমাদের যে খোলা ছাদ আছে – যেখানে মোরাম বিছিয়ে সাজান হয়েছে – কোল্ড ড্রিঙ্ক ভেন্ডিং মেশিন রয়েছে – সেখানে বিকেলে বা সন্ধ্যায় ছেলে মেয়েরা একটু রিলাক্স করতে যায় জান তো – কাল বিকেলে দরজাটা খোলাই ছিল । দেবারতি কোন এক অবসরে ছাদে যায় – হয়ত তুমি বেরিয়ে যাওয়ার ঠিক আগে বা পরে – সন্ধে হয়ে গেছিল বলে নিশ্চই তেমন কেউ ছিল না – সে ছাদে যায় এবং ছাদে যে ঘোরানো সিঁড়ি লাগান আছে ট্যাঙ্কের টপে ওঠার তাতে নিজের ওড়না লাগিয়ে ঝুলে !! উঃ ! কি দৃশ্য !” তখন কেউ খেয়াল করে নি । তারপর রাতের শিফটের সিকিউরিটি আটটা নাগাদ দরজা বন্ধ করার আগে চেক করতে ঢুকে হঠাত এই ঘটনা দেখে – তারপর দৌড়ে এসে অ্যাডমিনে রাতের শিফটের ছেলেটি – পরীক্ষিৎ - ছিল, তাকে বলে ! সে এত শকড হয়ে যায় – যে হতবুদ্ধি হয়ে আমাকে ডাকে অফিসে – তারপর নবারুনদাও আসেন ! সি ই ও নিজে আসেন ! আনবিলিভেবল ব্যাপার রাধিকা ! সেক্টর ফাইভের অফিসে এরকম ঘটনা – চিন্তার বাইরে !” নবারুনদা বলেন “নিচে পুলিস এসছে – কনফারেন্স রুমে বসে আছে – আমাদের কোশ্চেন করবে । মিডিয়াও বাইরে রয়েছে । তোমরা কেউ কোন কথা বলবে না ! যা বলার আমি বলব ! পরে তোমার সাথে কথা বলব – তোমার প্রোজেক্ট এ তো ও ছিল !”

রাধিকা বলে “আর শুভদীপ ! ওর বর !” সুকোমলদা বলেন “শুভদীপ তো কাল বিকেলে অফিস টিমের হয়ে টেবিল টেনিস প্রাক্টিসে ছিল – গেস্ট হাউসে খেলা চলছিল ! ওকে আমরা খবর দিয়ে অফিসে আনি নটা নাগাদ ! ও তো আকাশ থেকে পড়েছে ! এর বিন্দু বিসর্গ বুঝতে পারছে না । খুব শকড ! রাতে কয়েকজন ছেলে তো ওর সাথে ফ্ল্যাটে থাকবে কদিন ! আর তো কেউ ছিল না ওদের ।

আস্তে আস্তে নীচে নামে রাধিকা । মাথাটা কেমন ফাঁকা হয়ে গেছে । দেবারতি – কি ঘটেছিল দেবারতির ! বড় চাপা ছিল মেয়েটা – নিজের কথা বেশি বলত না । খুব প্রফেসনাল ছিল ।

লাঞ্চ টেবিলে কোরক, অনুপম, শরমিষ্ঠা, মধুর সাথে বসল রাধিকা । ওদের সবার সাথে খুব ঘনিষ্ঠ ছিল দেবারতি । মেয়েটা মনিপুরি ছিল । কিন্তু দেখলে কেউ বুঝবে না । ফরসা সুন্দর চেহারা । পুরপুরি বাঙালি মনে হত । আই টি তে ছিল গত সাত আট বছর । এটা ওর থার্ড চাকরি । ও আর ওর বর শুভদীপ একসাথে জয়েন করেছিল । শুভদীপ কোনদিন ই কাজে সিরিয়াস ছিল না । অফিস ক্লাব, খেলাধুলা এসবেই ওর উৎসাহ বেশি । কিন্তু দেবারতি – যেমন তার কাজ, তেমনি কথা বারতা । ক্লায়েন্টরা খুব পছন্দ করত ওকে । দু তিন বার ইউ এস ঘুরে এসেছে - অন্তত তিন বছর কাটিয়ে এসেছে । দেখতে গেলে ঝকঝকে একটি মেয়ে ।

শরমিষ্ঠা বলল “দেবারতি তো আকিউট ডিপ্রেশনে ভুগছিল - ওষুধ খেত নিয়মিত, কাউন্সেলিং করাত – কিন্তু বেরতে পারছিল না ডিপ্রেশন থেকে ।“ মধু বলল “এই ডিপ্রেশনের কারন কি ওর কোন বাচ্চা না থাকা ? একাকিত্ত?” কোরক বলল “না না, শি ওয়াস ভেরী প্রফেসনাল । এই সামান্য কারনে এত ভেঙ্গে পড়ার মেয়ে ছিল না । টা ছাড়া আজকাল তো কত ভাবে এই সমস্যা মেটান যায় !” শরমিষ্ঠা বলল “খুব সম্ভবত ওর নন ওয়ারকিং বিয়েটাই এর জন্য দায়ী !” “কেন? কেন? নন-ওয়রকিং কেন ?” জিজ্ঞাসা করে অনুপম । মধু বলল “দেখ শুভদীপ আর ওর টাইপটা সম্পূর্ণ আলাদা । শুভদীপ মফস্বলের ছেলে । ওদের পরিবার নিম্ন মধ্যবিত্ত । সব জেনেই দেবারতি ওকে লাভ মারেজ করেছিল । কিন্তু ওর শ্বশুর বাড়ি কোনদিনই ওর সাথে ভাল ব্যাবহার করে নি । আর শুভদীপের দাদাও শুনেছি ডাউটফুল ক্যারেক্টার ! তার নিজের বউও অদ্ভুত ভাবে অ্যাক্সিডেন্টে মারা যায় – অনেকে বলে সে বউকে খুন করিয়েছিল ! দাদার বাচ্চাটার সাথে দেবারতি খুব ক্লোস ছিল – শুনেছি ওকে দত্তক নিতে চেয়েছিল – কিন্তু কেউ রাজি হয় নি ।“শরমিষ্ঠা বলল “দেখ এগুলো হয়ত কিছুটা কারন – তবে মূল হল শুভদীপের সঙ্গে ভঙ্গুর সম্পরক । শুভদীপ নিজে ইনফিরিয়ারিটিতে ভুগত – ইগোর সমস্যা ছিল । খুব কোল্ড বিহেভ করত দেবারতির সঙ্গে – দেবারতি বড় একা ছিল ।“ সব শুনে রাধিকা বলল “কিন্তু ওর মত ঠান্ডা মাথার একটা মেয়ে এই কাজ করল? তাও আবার অফিসে ! অ্যাডমিনের লকেদের ওপর কি চাপ বলত ! এরকম একটা ঘটনা – এখন খবরের কাগজ, টি ভি, পুলিস – কোম্পানিরও একটা বদনাম ! দেখ পোস্ট মরটেমে কি বলে !” 

শরমিষ্ঠা জিজ্ঞ্যাসা করে “রাধিকা দি, তুমি তো ওর সঙ্গে কাজ করতে – তোমাকে কিছু বলে নি কখনো ? কাল কোন কথা হয়েছিল ?” রাধিকা বলে “ওর সঙ্গে কাল আমার দু বার দেখা হয়েছে । আমি ট্রেনিং এ ছিলাম । ওটা ওরও আটেন্ড করার কথা ছিল । কিন্তু ও আসে নি । একবার ট্রেনিং রুমে ঢুকে ট্রেনার কে বলে গেলো ওর খুব কাজের চাপ, ও আটেন্ড করতে পারবে না । তারপর তো বিকেলে ওই দেখা ! – ম্যা গো ! কি চোখের দৃষ্টি ! তখন তো বুঝিনি – ও মনস্থির করছিল এই শক্ত কাজ করার জন্য !”

মধু বলল “এটা ওর প্রি প্লান্ড ! ও তো কাল লাঞ্চ ও খায় নি ! জিজ্ঞ্যাসা করতে বলল শরীর খারাপ । কাল গোটা দিন শুধু কাজ করে সব আপডেট করে গেছে ।“

রাধিকা বলে “সত্যি ট্রু প্রফেসনাল ছিল মেয়েটা । একবারও জানতে পারি নি ওর ডিপ্রেশনের কথা !” 

নবারুনকে প্রচুর জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিস । সব কাগজে বেরয় এই ঘটনা ! টপ ফ্লোরের ছাদের দরজায় পারমানেন্ট তালা পড়ে যায় । দেবারতির বাবা মা আসেন মনিপুর থেকে – তারপর অফিসের সবার উপস্থিতিতে চোখের জলে শেষ কাজ মেটে দেবারতির ।

এই কদিন রাধিকা একদম ঘুমতে পারে নি । ক্ষণে ক্ষণে মনে পড়ছে দেবারতির সেই দৃষ্টি ! মানুষের মনে কি কি ভাব খেলা করে – যখন মানুষ এই ভাবে নিজেকে শেষ করার সিদ্ধান্ত নেয় ? কি ভাবে ভিতরে ভিতরে ক্ষয়ে যায় – হেরে যায় একটা মানুষ ! শুভদীপ একটা কাওয়ারড ! নইলে এইভাবে একটা মেয়ে একা হয়ে যায় !

সিদ্ধান্ত করে রাধিকা – এবার থেকে প্রতিটা টিম মেম্বারের আরও অনেক কাছের মানুষ হতে হবে তাকে । জানতে হবে কাজের বাইরে তাদের জীবনকে – তবে তো সে বাঁচাতে পারবে এমন এক একটা ফুটন্ত ফুলের মত অমুল্য জীবন ! হয়ে উঠবে আসল লীডার !


Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

Support : FACEBOOK PAGE.

সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ ,আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা

Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.