x

প্রকাশিত | ৯৪ তম মিছিল

কান টানলেই যেমন মাথা আসে, তেমন ভাষার প্রসঙ্গ এলেই মানুষের মুখের ভাষার দৈনন্দিন ব্যবহারের কথাও মনে পড়ে যায়, বিশেষত আজকের দিনে। ভাষা দিবস মানেই শুধু মাতৃভাষা নিয়ে আবেগবিহ্বল হয়ে থাকার দিন বুঝি আজ আর নেই!

কেননা সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে যাঁরা মাথায় বসে আছেন, বিশেষত যাঁরা রাজনীতির পৃষ্ঠপোষকতায় ক্ষমতাভােগী এবং লােভী, তাঁদের মুখের ভাষা এবং তার প্রয়ােগ আজ ঠিক কতটা শিক্ষণীয় এবং গ্রহণীয় সেটা শুধু ভাবার নয়, রীতিমতো শঙ্কার এবং সঙ্কটের।

সবই কি তবে মহৎ ভাবনা, অনুপ্রেরণার জোয়ার? নাকি রাজনৈতিক কারবারিরা 'সুভাষিত' শ্রবণাতীত বয়ানে নিজেদের অক্ষমতার মদমত্ত প্রকাশ করছেন? সাধারণ ছাপােষা মানুষ বিস্ফারিত চিত্তে এই ভাষাসন্ত্রাস,এই ভাষাধর্ষণ দেখতে শুনতে ক্লান্ত। এর থেকে উত্তরণের উপায় এখনও অবধি কোনাে ভাষা দিবস দেখাতে পারেনি। এবারের ভাষা দিবসের কাছেও কি সেই উপায় আছে? নাকি এই খেলা হবে, চলবে ... মেধাহীন গাধাদের দৌলতে?

চলুন মিছিলে 🔴

বুধবার, জানুয়ারী ৩১, ২০১৮

কোয়েলী ঘোষ

sobdermichil | জানুয়ারী ৩১, ২০১৮ | | | মিছিলে স্বাগত
ঐতিহ্যময় বাড়ির সন্ধানে ---
ই সেই বাড়ি বিংশ শতাব্দীর বিশিষ্ট কথা সাহিত্যিক তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনেক সৃষ্টি যেখানে হয়েছিল । সেই ঐতিহ্যময় বাড়িটি বিক্রির খবর টি ভি তে শুনে মর্মাহত হত হয়ে পোস্ট দিয়েছিলাম ।তখনই বন্ধু কেয়া বলেছিল -আসুন ,একদিন বাড়িটি দেখিয়ে আনি ।পরে বাড়িটি শুনলাম বঙ্গীয় সাহিত্য পরিষদ কিনে নিয়েছে । তাতে স্বস্তি পেয়েছি ।

পাইক পাড়ায় নেমে রিকসা করে পৌঁছে গেলাম সেই প্রসিদ্ধ বাড়িতে । দোতলা বাড়িটির গেট বন্ধ । ওপরে দরজা জানলা সব বন্ধ । কাউকে পাওয়া গেল না যাকে জিজ্ঞাসা করা যায় । বেশ হতাশ হয়ে ফিরে এলাম । মনের ইচ্ছা , লেখকের বাড়িটি যেন ঠিকমত সংরক্ষণ করে সর্বসাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হয় ।

এরপর কেয়ার সাথে গেলাম প্রিন্স দ্বারকানাথ ঠাকুরের বাড়ি । বাড়িটির সারা গায়ে কালের ছাপ , গায়ে বড় বড় গাছ ইটের খাঁজে ।চারিদিকে আবর্জনার স্তুপ ,নিচের রংকরা অংশটি বিক্রি হয়ে গুদাম ঘরে পরিণত হয়েছে । দরজাগুলো ইট দিয়ে বন্ধ । একজন স্থানীয় মানুষ জানালেন । বাড়িটি মিউজিয়াম হবে বলে সরকার নিয়ে নিয়েছে । আমরা ছবি তুললাম ।
বাঁদিকের গলি দিয়ে গিয়ে যে বাড়িটি বাইরে থেকে দেখে এলাম সেটি এক বিশাল বাড়ি । সেই বাড়িও একদিন ছিল দ্বারকানাথ ঠাকুরের ।পরে বিক্রি হয়ে যায় । বাড়িটিতে এখন তাঁরাই বাস করেন । একদিন চারিদিকে গোলাপের বাগান ছিল , এখন সব আবাসন ।


হারিয়ে যাচ্ছে পুরনো দিনের ঐতিহ্যময় বাড়ি সঠিক সংরক্ষণের অভাবে । হারিয়ে যাচ্ছে সংস্কৃতি । এখন কি তার কোন মূল্য নেই ? এই ভাবনা ভাবতে ভাবতে আমরা বিষণ্ণ মনে ফিরে এসেছি ।




Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ আপডেট পেতে,পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.