x

প্রকাশিত | ৯২ তম মিছিল

মূল্যায়ন অর্থাৎ ইংরেজিতে গালভরে আমরা যাকে বলি ইভ্যালুয়েশন।

মানব জীবনের প্রতিটি স্তরেই এই শব্দটি অবিচ্ছেদ্য এবং তার চলমান প্রক্রিয়া। আমরা জানি পাঠক্রম বা সমাজ প্রবাহিত শিক্ষা দীক্ষার মধ্য দিয়েই প্রতিটি মানুষের মধ্যেই গঠিত হতে থাকে বহুবিদ গুন, মেধা, বোধ বুদ্ধি, ব্যবহার, কর্মদক্ষতা ইত্যাদি। এর সামগ্রিক বিশ্লেষণ বা পর্যালোচনা থেকেই এক মানুষ অপর মানুষের প্রতি যে সিদ্ধান্তে বা বিশ্বাসে উপনীত হয়, তাই মূল্যায়ন।

স্বাভাবিক ভাবে, মানব জীবনে মূল্যায়নের এর প্রভাব অনস্বীকার্য। একে উপহাস, অবহেলা, বিদ্রুপ করা অর্থই - বিপরীত মানুষের ন্যায় নীতি কর্তব্য - কর্ম কে উপেক্ষা করা বা অবমূল্যায়ন করা। যা ভয়ঙ্কর। এবং এটাই ঘটেই চলেছে -

চলুন মিছিলে 🔴

বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ২৮, ২০১৭

পৃথা রায় চৌধুরী

sobdermichil | ডিসেম্বর ২৮, ২০১৭ | | মিছিলে স্বাগত
পৃথা রায় চৌধুরী
 মানুষ, পিশাচ বা দেব 

অলৌকিকের গল্প বলি, বলি মায়ের দেবধর্ষিতা হবার কাহিনী। বলি, শোনো। গর্ভাশয়ে পাপবীর্যের মেয়েভ্রুণ সমেত ছিঁড়ে নিচ্ছে মহানারী। দেবদল, চেয়েছিলে নিজ নিজ বীর্যের নিষেকে ভ্রূণের পিতৃত্ব, মহানারীর মহাকন্যা ভ্রূণ! ক্ষমতা অসীম!

কোন গাছে ফলিয়ে দিলে আদরের বোন, পবিত্র দেবপুরুষ, পাপাত্মা দেবকুলের কলঙ্কসম। গ্রহাধীশের আঁধার নিয়ে আসে পবিত্র কাকের ডানা। আঁধারে আলো, বীজবতী হও ফল, অঙ্কুরিত হও বীজ। রক্ষার্থে পুণ্যদেবগ্রহ রুখে দেয় পিশাচদৈবের দৈবপাপ।

অশুচি কাল, দখল নিতে আসো ঔরসজাতার! মহাকন্যা বিষমাস্ত্রে সেজেছি মহারণের সাজ। মহানারী শুনেছো? শোনো তোমার নাজন্ম, নামৃত্যু রূপের পাশে দাঁড়িয়েছে আজ বিষাক্ত তোমার ছায়া, ঘৃণিত পিতার অবয়বে।

যে অস্ত্রে তোমরা মেরেছো, সেই অস্ত্রে শাস্তি দিয়েছি জীবিত থাকার। তোমরা দেখাও খুবলে খাবার ভয়, পরিপাটী সেসব বদলে ফেলি সামরিক বিদ্যায়, ঘৃণায়। দেব অথবা পিশাচের পুরুষকার এবার মেপে নিতে এসেছি আমি।





Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

�� পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ শব্দের মিছিলের সর্বশেষ আপডেট পেতে, ফেসবুক পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.