x

প্রকাশিত | ৯৪ তম মিছিল

কান টানলেই যেমন মাথা আসে, তেমন ভাষার প্রসঙ্গ এলেই মানুষের মুখের ভাষার দৈনন্দিন ব্যবহারের কথাও মনে পড়ে যায়, বিশেষত আজকের দিনে। ভাষা দিবস মানেই শুধু মাতৃভাষা নিয়ে আবেগবিহ্বল হয়ে থাকার দিন বুঝি আজ আর নেই!

কেননা সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে যাঁরা মাথায় বসে আছেন, বিশেষত যাঁরা রাজনীতির পৃষ্ঠপোষকতায় ক্ষমতাভােগী এবং লােভী, তাঁদের মুখের ভাষা এবং তার প্রয়ােগ আজ ঠিক কতটা শিক্ষণীয় এবং গ্রহণীয় সেটা শুধু ভাবার নয়, রীতিমতো শঙ্কার এবং সঙ্কটের।

সবই কি তবে মহৎ ভাবনা, অনুপ্রেরণার জোয়ার? নাকি রাজনৈতিক কারবারিরা 'সুভাষিত' শ্রবণাতীত বয়ানে নিজেদের অক্ষমতার মদমত্ত প্রকাশ করছেন? সাধারণ ছাপােষা মানুষ বিস্ফারিত চিত্তে এই ভাষাসন্ত্রাস,এই ভাষাধর্ষণ দেখতে শুনতে ক্লান্ত। এর থেকে উত্তরণের উপায় এখনও অবধি কোনাে ভাষা দিবস দেখাতে পারেনি। এবারের ভাষা দিবসের কাছেও কি সেই উপায় আছে? নাকি এই খেলা হবে, চলবে ... মেধাহীন গাধাদের দৌলতে?

চলুন মিছিলে 🔴

বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ২৬, ২০১৭

নীপবীথি ভৌমিক

sobdermichil | অক্টোবর ২৬, ২০১৭ | | মিছিলে স্বাগত
আকাশপ্রদীপ
বারবার এই শব্দটা ভেসে আসছে, অথচ চারপাশের ঘরবাড়ি, পথ-ঘাট ছুঁয়ে এতো আলোর অভিবাদন। রং-বেরঙের মোমবাতি, ফুলঝুরির আগুনের মায়া স্পর্শ করে গড়ে উঠেছে অসংখ্য পতঙ্গের তীব্র আকর্ষিত মোহ। তবু কেন যে সামান্য একটা আওয়াজ টেনে নিয়ে যাচ্ছে ক্রমশ দূরে আরও দূরে... হয়তো কোনো এক সময়কালের মায়াজালে। অথচ, দ্যাখো হুইসেল বাজাতে বাজাতে ট্রেনটা কিন্তু বেশ অনেকটা পথই এগিয়ে গিয়েছে তার গন্তব্যস্থলের দিকে। কিন্তু সে যদি এগিয়েই যায়,তবে তার ফেলে যাওয়া আওয়াজ কেনই বা এভাবে আমাকে পিছিয়ে নিয়ে যায় আমার নিজস্ব লক্ষ্যপথ থেকে অনেক পিছনে ?

ক্রমশ পিছিয়ে চলে এসেছি কোনো এক মুহূর্তকালের সন্ধিক্ষণে! আসলে, এই রেলগাড়ি বা ট্রেন যাই বা বলে ডাকি না কেন সে কোথায় যেন সেই দূর রাঙাপথ ছুঁয়ে ঢেউ খেলে যাওয়া কাশফুল, নদীর চরের হাতধরে অপু আর দুর্গার হাতছানি, আবার কখনো ঋত্বিক ঘটকের “ কোমল গান্ধার” এসে ভিড় করে আমার সান্ধ্য ধানেশ্রীর ‘ ধৈবত ‘কে ছুঁয়ে। অথচ দ্যাখো , এই জল কত শান্ত , এই হেমন্তের শিশির স্নাতা মেঠো বালিকাও কত সুকোমল। মনে পড়ে যায় বিখ্যাত সেই চার লাইনঃ- 

Behold her , single in the field,
Yon solitary Highland Lass !
Reaping and singing by herself;
Stop here , or gently pass !

এইমাত্র খবর পেলাম দূরভাষ যন্ত্র মারফ্ত , আমার মা আকাশপ্রদীপ জ্বালিয়েছেন , আমিও সাজিয়েছি তাকে , এবং ঘরে ঘরে হয়তো সবাই! পূর্বপুরুষদের উদ্দ্যেশে !

এই রোবোটিক যুগেও কয়েক মুহূর্তের জন্য হলেও সবারই সময় আজও মনে হয় ফেলে আসা দিনকেই ছুঁয়ে থাকতে চায় ।



Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ আপডেট পেতে,পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.