x

প্রকাশিত বর্ষপূর্তি সঙ্কলন

দেখতে-দেখতে ১০ বছর! শব্দের মিছিলের বর্ষপূর্তি সংকলন প্রকাশের সময় এ খুব অবিশ্বাস্য মনে হয়। কিন্তু অজস্র লেখক, পাঠক, শুভাকাঙ্ক্ষীদের সমর্থনে আমরা অনায়াসেই পেরিয়ে এসেছি এই দশটি বছর, উপস্থিত হয়েছি এই ৯৫ তম সংকলনে।

শব্দের মিছিল শুরু থেকেই মানুষের কথা তুলে ধরতে চেয়েছে, মানুষের কথা বলতে চেয়েছে। সাহিত্যচর্চার পরিধির দলাদলি ও তেল-মারামারির বাইরে থেকে তুলে আনতে চেয়েছে অক্ষরকর্মীদের নিজস্বতা। তাই মিছিল নিজেও এক নিজস্বতা অর্জন করতে পেরেছে, যা আমাদের সম্পদ।

সমাজ-সচেতন প্রকাশ মাধ্যম হিসেবে শব্দের মিছিল   প্রথম থেকেই নানা অন্যায়, অবিচার, অসঙ্গতির বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলেছে। এই বর্ষপূর্তিতে এসেও, সেই প্রয়োজন কমছে না। পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনের ফল প্রকাশের পরবর্তী বিভিন্ন হিংসাত্মক কাণ্ড আমাদের যথারীতি উদ্বিগ্ন করছে। যেখানে বিরোধী দলের হয়ে কাজ করা বা বিরোধী দলকে সমর্থন করার অধিকার এখনও নিরাপদ নয়, সেখানে যে গণতন্ত্র আসলে একটি শব্দের বেশি কিছু নয়, সেকথা ভাবলে দুঃখিত হতেই হয়। ...

চলুন মিছিলে 🔴

জয়িতা দে সরকার

sobdermichil | অক্টোবর ২৬, ২০১৭ |
জয়িতা দে সরকার
 "শেষ হইয়াও হইলো না শেষ...

"সমস্ত মাটি একদিন গা থেকে মুছে ফেলতে হবে জেনেও শিকড় মাটিকেই বুকে আঁকড়ে ধরেছিলো।
কানেকানে জানিয়েওছিলো নিজের ভালোবাসার কথা।
মাটিও অবলীলায় আশ্রয়টুকুই দিয়েছিল।
বাড়তে দিয়েছিলো শিকড়ের মহীরুহ স্বপ্নগুলোকে। ভালোবাসার গল্প মাটির কখনও বলা হয় নি শিকড়ের কানেকানে।
এরপর একদিন নিয়ম মেনেই ভেঙে পড়েছিল শিকড়ের তাসের ঘর। মাটির বুক শূন্য করে মহীরুহটি মুখ থুবড়ে পড়েছিলো ওর এক পৃথিবী আকাশের নীচে।
এখন সেই মাটিতেই মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে মানুষ রঙের ডুপ্লেক্স।
সেখান দিয়ে যাওয়ার সময় আজকাল মাটির বুকের ভিতর থেকে শুনতে পাই ভাতকাপড়ের গন্ধ।
দুধবালা আর ঝুমঝুমির শব্দদের।



 রোদেলা চুমু ছায়ার নূপুর পা'য় 

নদী জন্ম তোমার জন্য নয়
কোজাগরী রাত ছুঁয়ে যাওয়া চাঁদ আর মেঘ দেখতে দেখতে
নদীর বুকে নিজের স্থির ছায়া রেখে ফিরে যেও সোহাগে আদরে
প্রতিদিন ক্লান্ত পায়ের উপর নিজেকে ভাসিয়ে দেওয়াটাও প্রেম
বিলাসিতা..! ধ্বংসের গল্পই শোনায়
এই নদী জন্মে সে তো আকাশকুসুম স্বপ্ন মাত্র
রোদেলা চুমু,ছায়ার নূপুর পা'য় নদী হেঁটে যায়,
শুধুই হেঁটে যেতে চায়



 নিউক্লিয়ার সুখ 

বৃষ্টি ভেজা দেওয়াল অল্প অল্প করে
খসে পড়ে রোজ-
শব্দে ঘুম ভেঙে যায়
সকালের চায়ের রঙ আরো গাঢ় হয়ে যায়
আধুনিক চুলাতে
ছেলেমেয়েরা দুহাতে দু'টো দেওয়াল আগলে রাখে
স্কয়ারফিট মাপা সুসজ্জিত ফ্ল্যাটের
চারদেওয়াল হয় না,ছাদ হয় না
ছাদ আর বাকি দেওয়ালগুলো পড়ে আছে
শিকড়ের দেশে
ভীষণরকম একা,চুপচাপ



 চাঁদ আর মনখারাপের গল্প- 

ক্যামেরার লেন্সে ধরা দেয় চাঁদ
চার-পাঁচটা ক্লিকে চাঁদকে অন্য দেখায়
ক্রমশ ঝাপসা হয়ে আসা ঠোঁটেরা
মনখারাপের গান খুঁজে নেয়
"তুমিও কি একইভাবে জানলা দিয়ে আকাশ ভাবো?"
ডুব স্বরে ভাঙাচোরা প্রশ্ন লিখে শার্টের পকেটে
লুকিয়ে রেখেছে ছেলেটা
মেয়েটির কোনও নিশান না পেলে তুমি ভেবে নিও
ওর আজ ভীষণ অ-সুখ
অথবা অন্য কোন আকাশের চাঁদ
ওকেও আজ গল্প শুনিয়েছে-
মন খারাপের গল্প



 খেলনাবাটি ঘর 

হাতখোঁপা,লালটিপ,হাউসকোটের শক্ত বাঁধনে
তুমি রোজ মা সাজো
পাউরুটির উপরে লেপে দাও মাখন
যতটা লেপে দিলে মসৃন হয় সম্পর্কের জং
জানালার হাওয়াদের সাথে উড়ে যায় হাত নাড়া
ঘাম,ঝুল,রান্নায় নুন জল মেপে নিয়ে
দুপুরের অবসরে তুমি খেলনাবাটি খেলো
টুংটাং শব্দে ঘুমে ব্যাঘাত
কপালের টিপেও লেগে যায়
খেলনাবাটি রঙ
ওরা খেলনাবাটি কেড়ে নেয় নি
ওরা তোমাকে ঘড়ি দেখতে শিখিয়েছে!



Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন


বিজ্ঞপ্তি
■ আপডেট পেতে,পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.