x

প্রকাশিত | ৯৪ তম মিছিল

কান টানলেই যেমন মাথা আসে, তেমন ভাষার প্রসঙ্গ এলেই মানুষের মুখের ভাষার দৈনন্দিন ব্যবহারের কথাও মনে পড়ে যায়, বিশেষত আজকের দিনে। ভাষা দিবস মানেই শুধু মাতৃভাষা নিয়ে আবেগবিহ্বল হয়ে থাকার দিন বুঝি আজ আর নেই!

কেননা সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে যাঁরা মাথায় বসে আছেন, বিশেষত যাঁরা রাজনীতির পৃষ্ঠপোষকতায় ক্ষমতাভােগী এবং লােভী, তাঁদের মুখের ভাষা এবং তার প্রয়ােগ আজ ঠিক কতটা শিক্ষণীয় এবং গ্রহণীয় সেটা শুধু ভাবার নয়, রীতিমতো শঙ্কার এবং সঙ্কটের।

সবই কি তবে মহৎ ভাবনা, অনুপ্রেরণার জোয়ার? নাকি রাজনৈতিক কারবারিরা 'সুভাষিত' শ্রবণাতীত বয়ানে নিজেদের অক্ষমতার মদমত্ত প্রকাশ করছেন? সাধারণ ছাপােষা মানুষ বিস্ফারিত চিত্তে এই ভাষাসন্ত্রাস,এই ভাষাধর্ষণ দেখতে শুনতে ক্লান্ত। এর থেকে উত্তরণের উপায় এখনও অবধি কোনাে ভাষা দিবস দেখাতে পারেনি। এবারের ভাষা দিবসের কাছেও কি সেই উপায় আছে? নাকি এই খেলা হবে, চলবে ... মেধাহীন গাধাদের দৌলতে?

চলুন মিছিলে 🔴

বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৭

মৃণাল চক্রবর্তী

sobdermichil | সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৭ | | মিছিলে স্বাগত
 মৃণাল চক্রবর্তী
 কথপোকথন 


১।

কলিংবেলে আঙুল রেখে দাঁড়ালো সে
গ্রিল খুলতেই বলল,  চলো

বললাম, ভেতরে এসো

সে চোখ রাঙালো,  জলদি কর সময় নেই
আমার মাথায় আগুন,  শোনো,  বিরক্ত কর না

সে চিৎকার করল

থাপ্পড় কষিয়ে বললাম, হিস....
কান ধরে নিলডাউন হও


২।

কাল সারারাত তার সঙ্গে কথা হল অনেক
ফেলে আসা দিন,  স্বজন - বন্ধু,  ভালোবাসা

কত কথা হল ,  কত প্রেম
শিশিরভেজা রাত পাশে নিয়ে

সুকতারা ভুলকি দিতেই -
সে বলল,  চলো এবার যাই

যাই বলতে নেই..... এসো
কাজ যে শেষ হয়নি...........


৩।

পাশাপাশি হাঁটছিলাম, বন্ধুর মতো
হঠাৎ ল্যাং মেরে বললে
এই নে শোধবোধ,
অনেক হল,  এবার চল.......

আমিও হালকা মারলাম টুক
পড়ল কেমন হুমড়ি খেয়ে
কটমট তাকাল যেই

হেসে বললাম,  যাব না..........


৪।

বাথরুমের দরজাটা হালকা হাতে খুলতেই
কেউ আমার পায়ে টোকা মারল

ফিরে তাকাতেই
উপেক্ষার ছড়িয়ে দিয়ে
খিকখিক হেসে বলল - আমি.........

সিধে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে বললাম - এই নে........


৫।

সে আসে প্রতি রাতে,
কথা বলে ভালো মন্দ
পাশে শুয়ে জানতে চায়
সংসারের টুকিটাকি
ভাগ নিতে চায় দুঃখ - কষ্টের

শুনতে শুনতে চিড়বিড় করে রাগ
লাথি মেরে বলি
                                শালা ভাগ......


৬।

 তুই যতই কেড়ে নে আমার সকাল - বিকেল
 কেড়ে নে সম্ভাবনাময় সময়, রাতের বিছানা
 কোনোভাবেই তোকে আমি মাথায় তুলব না

 তোর স্থান আমার পায়ের চটিতে......


৭।

পায়ে পায়ে চলমান দিন
আত্রাই- এর জল ছুঁয়ে
সারি-সারি জলন্ত চিতায়
আগুনকে বুকে নিয়ে হাঁটুজলে নামে
                         পশ্চিম আকাশ

সব সঞ্চয় নদীজলে জমা রেখে বলে
                             আমাকে শুদ্ধ করো


৮।

মর্ণিং ওয়াকে সূর্য ওঠা মুহূর্তে দেখা হল
সরোজসেতুর রেলিং- এ হেলান দিয়ে দাঁড়িয়ে

হেসে বললাম : কী হে,  একা কেন
খেঁকিয়ে বলল - তোর জন্য

-- তাই,  ম্যাজিক দেখবি,  দেখ......
গিলি গিলি গো....... ফটাস

ব্যাটা সো-- জা সেতুর নীচে অথৈ জলে......


৯।

সকালে জানালাটা খুলতেই
সেই পিত্তি জ্বলা হাসি
গরাদে মুখ,  বলল-- চল

নিজেকে সামলে,
কানটা ধরে ভেতরে এনে বললাম,
জুতো জোড়া ব্রাশ করো........


১০।

সন্ধ্যায় সে এল বধূবেশে,
সলাজ হেসে পাশে বসল
কথা হল প্রেম ও অপ্রেমে
কথা হল বন্ধুত্বের, আরও টুকিটাকি
বসতে চাইল কাঁধে

আলতো নামিয়ে বললাম
কুকুরের স্থান দরজার বাইরে





Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ আপডেট পেতে,পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.