x

আসন্ন সঙ্কলন


যারা নাকি অনন্তকাল মিছিলে হাঁটে, তাদের পা বলে আর বাকি কিছু নেই। নেই বলেই তো পালাতে পারেনা। পারেনা বলেই তারা মাটির কাছাকাছি। মাটি দ্যাখে, মাটি শোনে, গণনা করে মৃৎসুমারী। কেরলের মাটি কতটা কৃষ্ণগৌড়, বাংলার কতটা তুঁতে! কোন শ্মশানে ওরা পুঁতে পালালো কাটা মাসুদের লাশ, কোন গোরেতে ছাই হয়ে গেলো ব্রহ্মচারী বৃন্দাবন। কোথায় বৃষ্টি টা জরুরী এখন, কোথায় জলরাক্ষুসী গিলে খাচ্ছে দুধেগাভিনের ঢাউস পেট। মিছিলে হাঁটা বুর্বক মানুষ সেসবই দেখতে থাকে যেগুলো নাকি দেখা মানা, যেগুলো নাকি শোনা নিষেধ, যেগুলো নাকি বলা পাপ। দেশে পর্ণ ব্যন্ড হল মোটে এইতো ক'টা মাস, সত্য নিষিদ্ধ হয়েছে সেই সত্যযুগ থেকে। ভুখা মিছিল, নাঙ্গা মিছিল, শান্তি মিছিল, উগ্র মিছিল, ধর্ম মিছিল, ভেড়ুয়া মিছিল যাই করি না কেন এই জুলাইয়ের বর্ষা দেখতে দেখতে প্রেমিকের পুংবৃন্ত কিছুতেই আসবে না হে কবিতায়, কল্পনায়... আসতে পারে পৃথিবীর শেষতম মানুষগন্ধ নাকে লাগার ভালোলাগা। mail- submit@sobdermichil.com

ভালোবাসার  আষাঢ় শ্রাবণ

অতিথি সম্পাদনায়

সৌমিতা চট্টরাজ

সোমবার, জুলাই ৩১, ২০১৭

তারাশংকর বন্দ্যোপাধ্যায়

sobdermichil | জুলাই ৩১, ২০১৭ |
তারাশংকর বন্দ্যোপাধ্যায়
 মুগ্ধ চাষি 

সময় এলে আকাশ জুড়ে বৃষ্টি যখন
আমি তখন একরোখা এক নবীন কৃষক,
তপ্ত যাপন ছাতায় মুড়ে সরিয়ে রেখে
ভিজতে ভিজতে অমোঘ টানে জমির জলে।
বজ্রপাতের তীব্র কাঁপন সহ্য করে
আমি তখন হাল বওয়াতেই তৃপ্তি খুঁজি
লাঙল ফলায় নরম মাটি এফোঁড় ওফোঁড়
ভিজে বাতাস মখমলি সেই স্পর্শ মাখে।

প্রাণের চাওয়া কোন সময়ে কোন বাঁকে যায়
বৃষ্টিলিপি যে লিখেছে সেও কি জানে!
তাই বলে কার একনদী জল তৃষ্ণা ছিল
তাও বুঝিনা এমন তো নই মূর্খ আকাট!
সময় এলে আমিও তখন মুগ্ধ চাষি
জল ছল ছল বীজতলাতে হাঁটু ডোবাই,
হাতের মুঠোয় আষাঢ় শ্রাবণ সজলধারা
স্বপ্ন চারা রোপণ করি তৈরি কাদায়।


Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

Support : FACEBOOK PAGE.

সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ ,আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা

Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.