x

প্রকাশিত | ৯৪ তম মিছিল

কান টানলেই যেমন মাথা আসে, তেমন ভাষার প্রসঙ্গ এলেই মানুষের মুখের ভাষার দৈনন্দিন ব্যবহারের কথাও মনে পড়ে যায়, বিশেষত আজকের দিনে। ভাষা দিবস মানেই শুধু মাতৃভাষা নিয়ে আবেগবিহ্বল হয়ে থাকার দিন বুঝি আজ আর নেই!

কেননা সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে যাঁরা মাথায় বসে আছেন, বিশেষত যাঁরা রাজনীতির পৃষ্ঠপোষকতায় ক্ষমতাভােগী এবং লােভী, তাঁদের মুখের ভাষা এবং তার প্রয়ােগ আজ ঠিক কতটা শিক্ষণীয় এবং গ্রহণীয় সেটা শুধু ভাবার নয়, রীতিমতো শঙ্কার এবং সঙ্কটের।

সবই কি তবে মহৎ ভাবনা, অনুপ্রেরণার জোয়ার? নাকি রাজনৈতিক কারবারিরা 'সুভাষিত' শ্রবণাতীত বয়ানে নিজেদের অক্ষমতার মদমত্ত প্রকাশ করছেন? সাধারণ ছাপােষা মানুষ বিস্ফারিত চিত্তে এই ভাষাসন্ত্রাস,এই ভাষাধর্ষণ দেখতে শুনতে ক্লান্ত। এর থেকে উত্তরণের উপায় এখনও অবধি কোনাে ভাষা দিবস দেখাতে পারেনি। এবারের ভাষা দিবসের কাছেও কি সেই উপায় আছে? নাকি এই খেলা হবে, চলবে ... মেধাহীন গাধাদের দৌলতে?

চলুন মিছিলে 🔴

শুক্রবার, জুন ৩০, ২০১৭

জয়িতা দে সরকার

sobdermichil | জুন ৩০, ২০১৭ | | মিছিলে স্বাগত
জয়িতা দে সরকার
শব্দের মিছিলের পক্ষ থেকে রান্নার খোঁজে আমি জয়িতা এবার উঁকি দিয়েছিলাম বালিগঞ্জ (কলকাতা) -এর নিবেদিতা মজুমদারের রান্নাঘরে। দিদির সাথে নানান কথার ফাঁকে ফাঁকে শিখে নিয়েছিলাম তিন-তিনটে লোভনীয় রেসিপি। রেসিপিগুলো তো আপনাদের সাথে অবশ্যই শেয়ার করবো। কিন্তু তার আগে চলুন নিবেদিতা মজুমদারের সম্পর্কে দু-চার কথা। রান্না এবং নিজের সম্পর্কে জানতে চাওয়ায় নিবেদিতা দি যা যা বললো সেগুলো হুবহু তুলে দিচ্ছি পাঠকের দরবারে। 

“অল্প বয়েসে বিয়ে হয়, রান্নাটাও ঠিক মত জানতাম না, কিন্তু মা খুলনার মেয়ে ছিলেন আর সাবেকি থেকে আধুনিক সব রান্নাই তার হাতে অসাধারণ ছিলো, তাই রক্তে রান্না টা ছিলোই, আর শাশুড়ি মা বরিশালের তাই তার রান্নাও অনেক শিখেছি, আর এখন নিজের মন থেকে পছন্দ মতো রেসেপি করে নি যখন যেটা ঘরে থাকে..... আর শখ বলতে রান্না করা ছাড়াও, বই পড়তে একটু আধটু লিখতে খুব ভালবাসি ...... এই আমি নিবেদিতা” 

দিদির কাছে জানতে চাইলাম আজ আমরা কি কি শিখবো? চটপট জবাব এলো, একটা পনীরের পদ, বাকি দুটো মাছের।  রেসিপিদের নাম যথাক্রমে - 

১-পনির পসন্দ্ 
২-ভেটকি মাছের কোপ্তা কারি
৩-ক্যাপসি পমফ্রেট



 পনির পসন্দ্  

সাদা তেলে পনিরের টুকরো আর বড় ফালি করে কাটা পেঁয়াজ আর ক্যাপসিকাম দিয়ে হালকা আঁচে ভাজতে হবে, এরপর স্বাদমতো নুন, চিনি, চেরা কাঁচা লঙ্কা আর সবুজ কড়াইশুঁটি দিয়ে একটু নাড়তে হবে একটু জল দেবে এরপর । ঢাকা দিয়ে একটু রাখবে অল্প আঁচেই এরপর হয়ে গেছে মনে হলে একটু কন্ফ্লাওয়ার গুলে ছড়িয়ে দিতে হবে আর দু চা চামচ মতো গোলমরিচ ছড়িয়ে নামিয়ে ফেলতে হবে। এটা ভেজ ফ্রায়েড রাইসএর সাথে বেশ ভালো লাগবে। (যেহেতু খুব সহজ এবং চটজলদি রেসিপি তাই উপকরণ-প্রণালী একসাথে লিখলাম না। 

 ভেটকি মাছের কোপ্তা কারি রেসিপি -

( সম্পুর্ণভাবে নিজের মন থেকে করা । না কোনো নেটের গ্রুপ না কোনো বই থেকে নেওয়া)
যা যা লাগবে -ভেটকি মাছ, রসুন বাটা(8/9কোয়া), আদা বাটা এক টেবল্ চামচ, পেঁয়াজ বাটা দু টেবল্ চামচ, কাঁচা লঙ্কা 4টে, বেসন দু টেবল্ চামচ, একটা ছোটো আলু সেদ্ধ করা আর কারির জন্যে আলু, টমেটো, আদা পেঁয়াজ রসুন বাটা, ধনে ও জীরে গুঁড়ো, হলুদ নুন চিনি ও শাহি গরমমশলা পাউডার । সাদা তেলে ভাজার জন্যে আর সরষের তেল কারির জন্যে। 

কিভাবে করবেন-মাছের টুকরোগুলো একটু নুন আর এক চিমটে হলুদ দিয়ে সেদ্ধ করে নিতে হবে, সেদ্ধ মাছ ঠান্ডাকরে কাঁটা বেছে নিতে হবে এবারে মাছ আর বাটা রসুন,আদা,পেঁয়াজ আর কাঁচা লঙ্কা(একসাথেই মিক্সি তে পেস্ট করেছি), বেসন আলু সেদ্ধ আর নুন ও এক টেবল্ চামচ সাদা তেল ভাল করে মেখে, মিশ্রণ টা কোপ্তার আকারে হাতে গড়ে নিতে হবে । কড়ায় সাদা তেল ভালো করে গরম করে গ্যাসের আঁচ কমিয়ে কোপ্তা গুলো ভালো করে ভাজতে হবে । কম আঁচে ভেতর টাও ভাজা হয়। এরপর সাদা তেল নামিয়ে সরষের তেল দিয়ে সেটা গরম হলে টুকরো করা আলু গুলো বাদামি করে ভেজে তাতে একে একে টমেটো, নুন, বাটা মশলা ও গুঁড়ো মশলা গুলো দিয়ে আর স্বাদ অনুযায়ী চিনি দিয়ে হালকা আঁচে নাড়তে হবে । মশলা থেকে তেল ছাড়তে থাকলে তাতে জল দিতে হবে আর আলু একটু পরে সেদ্ধ হলে কোপ্তা গুলো দিয়দিতে হবে। আর একটু চাপা দিয়ে রেখে নামানোর আগে শাহি গরম মশলা ভালো করে ছড়িয়ে দিতে হবে।


 ক্যাপসি পমফ্রেট 
যা যা লাগবে পমফ্রেট মাছ, দুটে ক্যাসিকাম, একটা বড় টমেটো, দুটো পেঁয়াজ আর 6/7 কো রসুন ও কাঁচা লঙ্কা, মশলা লাগবে নুন, সাদা তেল, লেবুর রস বা সাদা ভিনিগার দু চা চামচ, (একটু হলুদ একটু জীরে একটু ধনে আর একটু লঙ্কা) গুঁড়ো, একটু চিনি।

প্রণালী- মাছ ভালো করে ধুয়ে তাতে লেবুর রস বা সাদা ভিনিগার আর নুন মাখিয়ে আধঘন্টা রাখতে হবে, ক্যাপসিকাম, টমেটো, পেঁয়াজ ডুমো ডুমো করে কেটে রাখতে হবে আর রসুনের কোয়া গুলো জুলিয়ান করে কাটতে হবে আর কাঁচা লঙ্কাও চিরে দু ফালা করে নিতে হবে,এবার একটা ননস্টিক কড়া তে পরিমাণ মতো সাদা তেল দিয়ে তেল গরম হলে তাতে মাছ গুলো সাজিয়ে দিয় তার ওপরে কাটা সব সবজি গুলো দিয়ে নুন, হলুদ জীরে, ধনে, লঙ্কা গুঁড়ো ও চিনি ছড়িয়ে দিতে হবে , এরপর ওপরে কাঁচের ঢাকা টা দিয়ে রাখতে হবে ও কম আঁচে কিছুক্ষণ অন্তর মাছ গুলো উলটে দিতে হবে এমন ভাবে কিছুক্ষণ রেখে গ্যাস বন্ধ করে ঢাকা দিয়ে রেখে দিন । তৈরি ক্যাপসি পমফ্রেট।

ব্দের মিছিলের পক্ষ থেকে আমি জয়িতা দে সরকার নিবেদিতা মজুমদার দিদিকে জানাই অনেক ধন্যবাদ জানাই এত সুন্দর ভাবে আমাদের পাঠকদের তিন-তিনটে লোভনীয় পদ শেখানোর জন্য। আশা করছি আগামীদিনেও দিদি আমাদের নানান পদ শেখাবেন। এবং পাঠকদের উদ্দেশ্যে বলি, আপনারা যারা রেসিপিগুলো পড়ছেন তারা অবশ্যই মতামত দিন। এবং আপনারা যদি নতুন ধরনের রেসিপি শিখতে চান সেটাও আমাদের জানাতে ভুলবেন না। আমরা আপনাদের আব্দার মেটাবার সাধ্যমত চেষ্টা করব। ভালো থাকবেন সবাই এই আশা নিয়েই এবারের মত বিদায়,দেখা হবে শব্দের মিছিলের পরবর্তী সংখ্যায়। 

Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ আপডেট পেতে,পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.