x

প্রকাশিত | ৯২ তম মিছিল

মূল্যায়ন অর্থাৎ ইংরেজিতে গালভরে আমরা যাকে বলি ইভ্যালুয়েশন।

মানব জীবনের প্রতিটি স্তরেই এই শব্দটি অবিচ্ছেদ্য এবং তার চলমান প্রক্রিয়া। আমরা জানি পাঠক্রম বা সমাজ প্রবাহিত শিক্ষা দীক্ষার মধ্য দিয়েই প্রতিটি মানুষের মধ্যেই গঠিত হতে থাকে বহুবিদ গুন, মেধা, বোধ বুদ্ধি, ব্যবহার, কর্মদক্ষতা ইত্যাদি। এর সামগ্রিক বিশ্লেষণ বা পর্যালোচনা থেকেই এক মানুষ অপর মানুষের প্রতি যে সিদ্ধান্তে বা বিশ্বাসে উপনীত হয়, তাই মূল্যায়ন।

স্বাভাবিক ভাবে, মানব জীবনে মূল্যায়নের এর প্রভাব অনস্বীকার্য। একে উপহাস, অবহেলা, বিদ্রুপ করা অর্থই - বিপরীত মানুষের ন্যায় নীতি কর্তব্য - কর্ম কে উপেক্ষা করা বা অবমূল্যায়ন করা। যা ভয়ঙ্কর। এবং এটাই ঘটেই চলেছে -

চলুন মিছিলে 🔴

মঙ্গলবার, মে ০৯, ২০১৭

হরিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়

sobdermichil | মে ০৯, ২০১৭ | | মিছিলে স্বাগত
ঠুলি খুলে দেখ
 মানুষের চোখের সামনে মানুষ এসে দাঁড়াক 

ত মার্চের শেষে (২৭ মার্চ ) দিল্লি গিয়েছিলাম। সেখান থেকে বৃন্দাবন হয়ে মথুরা। ১ মার্চ সকালে মথুরা থেকে বাসে আগ্রা আসছি। পথে কংসের কারাগার দেখানোর জন্য বাস থামলো। আর সকলের মতো আমিও নামলাম। বাঁদরের নজর এড়িয়ে জুতো জমা দিয়ে গলদঘর্ম হয়ে কংসের কারাগার চত্বরে পা রাখলাম। বৃন্দাবনের পরিবেশের উপযোগী মানুষ আমি একেবারেই নই। আমার পৃথিবীর রঙ আলাদা ------- সেখানে শুরু হয় মানুষ দিয়ে আর শেষও হয় মানুষকে সামনে রেখে। 

তাই টানা তিনদিন বৃন্দাবন যাপন যখন একেবারে চরম বিরক্তির জায়গায় চলে গেছে তখন কংসের কারাগার আমার কাছে যে নতুন কিছু বয়ে আনবে না তা বলাই বাহুল্য। তাই ওই চত্বরে পা রেখে একটা ব্যাপার দেখে আমি রীতিমত বিস্ময়ে হতবাক হয়ে গেলাম। যত না মানুষ তার থেকে বেশি স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র হাতে পুলিশের দল। কী এমন মহার্ঘ্য বস্তু এখানে আছে যে এত প্রহরা! 

অনেককেই জিজ্ঞাসা করলাম কিন্তু কেউ কিছু বলতে পারল না। শেষকালে থাকতে না পেরে আমি এক পুলিশকে জিজ্ঞাসা করে ফেললাম। তিনি কথা না বলে একহাত দিয়ে তার অস্ত্রটি সামলে অন্য হাতটি তুলে যেদিকে দেখালেন তা দেখে সবকিছু আমার চোখের সামনে জলের মতো স্পষ্ট হয়ে গেল। দেখলাম একটা মসজিদ ( নামটা বলেছিল কিন্তু মনে রাখতে পারি নি )। আর কি চাই! মন্দির মসজিদের মর্যাদা রক্ষায় এটুকু তো আমাদের করতেই হবে। হাজার হোক আমরা ধর্মনিরপেক্ষ দেশের বাসিন্দা না! 

মনে পড়ে যায় সেই দিনটার কথা। রাম জন্মভূমি বাবরি মসজিদ মামলার রায় ঘোষণা হবে। পশ্চিমবঙ্গ সরকার সমস্ত সরকারি অফিসে হাফ ছুটি ঘোষণা করে দিলেন। আর সারাদিন সমস্ত টিভি চ্যানেলগুলো দেখিয়ে গেল --------- " সবার উপরে মানুষ সত্য তাহার উপরে নাই ", " জীবে প্রেম করে যেই জন সেই জন সেবিছে ঈশ্বর "। মানুষ হিসেবে সেদিন মাথা নিচু হয়ে গিয়েছিল। এই তাহলে আমাদের ধর্মের বাতাবরণ! কবি শিল্পী, বিভিন্ন সমাজসংস্কারকের এগিয়ে আসা সত্ত্বেও আমরা আমাদের অবস্থান থেকে একবিন্দুও সরি নি। 

বিজ্ঞানের নাকি বিরাট উন্নতি হচ্ছে, আমরাও নাকি অনেক এগিয়ে যাচ্ছি -------- এই তার নমুনা! মন তো পড়ে আছে সেই মধ্যযুগে। নিজে মানুষ ( দৈহিকভাবে ) হয়েও আর একটা মানুষকে এতদিনেও চোখের সামনে এনে দাঁড় করাতে পারলাম না! এর পরেও আমাদের দাবি, আমরা নাকি শিক্ষিত! এমন শিক্ষা আগুনে পোড়ে না কেন!জলেও তো ডুবতে পারে!





Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

�� পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ শব্দের মিছিলের সর্বশেষ আপডেট পেতে, ফেসবুক পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.