x

প্রকাশিত

​মহাকাল আর করোনাকাল পালতোলা নৌকায় চলেছে এনডেমিক থেকে এপিডেমিক হয়ে প্যানডেমিক বন্দরে। ওদিকে একাডেমিক জেটিতে অপেক্ষমান হাজার পড়ুয়ার ভবিষ্যৎ।​ ​দীর্ঘ সাতমাসের এ যাপন চিত্র মা দুর্গার চালচিত্রে স্থান পাবে কিনা জানি না ! তবে ভুক্তভোগী মাত্রই জানে-

​'চ'য়ে - চালা উড়ে গেছে আমফানে / চ'য়ে - কতদিন হাঁড়ি চড়েনি উনুনে / চ'য়ে - লক্ষ্মী হলো চঞ্চলা / চ'য়ে - ধর্ষিতা চাঁদমনির দেহ,রাতারাতি পুড়িয়ে ফেলা।

​হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা মানুষটি লালমার্কার দিয়ে গোল গোল দাগ দেয় ক্যালেন্ডারের পাতায়, চোদ্দদিন যেন চোদ্দ বছর। হুটার বাজিয়ে শুনশান রাস্তায় ছুটে যায় পুলিশেরগাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স আর শববাহী অমর্ত্য রথ...। গঙ্গা দিয়ে বয়ে গেছে অনেকটা জল, 'পতিত পাবনী গঙ্গে' হয়েছেন অচ্ছুৎ!

এ কোন সময়ের মধ্যে দিয়ে চলেছি আমরা?

ছবিতে স্পর্শ করুন

শব্দের মিছিল

অতিথি সম্পাদনায়

সমীরণ চক্রবর্তী

বৃহস্পতিবার, মার্চ ২৩, ২০১৭

মৌসুমী মণ্ডল. দেবনাথ

sobdermichil | মার্চ ২৩, ২০১৭ | | মাত্র সময় লাগবে লেখাটি পড়তে।
মৌসুমী মণ্ডল. দেবনাথ
 আমি অথবা তুমি 

এক কুয়াশা জড়ানো সকালবেলায়
আমার শুভ্রমেঘের মত চায়ের কাপে
মিশিয়ে ছিলে ক 'ফোটা স্নিগ্ধ ইক্ষু রস
সবুজ চায়ের উষ্ণ বাষ্প ছুঁয়ে গেলো অরণ্য
সেদিন থেকে আমার শ্বাস -প্রশ্বাসে,
চোখের তারায় আলো করে আছে
সবুজ প্রান্তর, শুধুই সবুজের আকাঙ্ক্ষা
আজ সোমত্ত তিস্তা নদীর মোহনা থেকে
উড়ে আসা কোকিলের ডানার
ভিতরে জমিয়ে রাখি
ঘুমিয়ে পড়া সেই মেয়ের বাড়ির রাস্তার ঠিকানা
পৃথিবীর সব মেয়ে রাস্তাগুলো কেন যে বদ্ধ ঘরের অন্ধকারে
যুগ যুগান্তর ধরে আটকে পড়ে আছে !
হে কবিতা, তুমি আমার মেরুদণ্ড কঠিন করো
আজ অই তিস্তা নদী আমি সাঁতরে পার হবো
শোন হে সূর্যদেব
এ পৃথিবী যতোটা তোমার সম্পদ
ততোটাই চন্দনা আর শালিখের
আর ততোটাই আমার পেলব মানবী জন্মের
আমি কন্যা তাইতো আজ তুমি পুরুষ ...



 ভয় 

আমার শিরা উপশিরা বেয়ে নামে
তারাদের ছায়াপথের
বিন্দু বিন্দু আলো—
আকাশের কিনারায় গাঁথা অই চাঁদ
আজ বড় দুর্গম লাগে
আমার আর সাহস হয়না
শেষের সেই দৃশ্যে দাঁড়াতে
বাবার দেহ শুইয়ে রাখা বারান্দায়
ভোররাতে নীহারিকার আলো গলেছিলো
তখনও তার দাগ লেগে রয়েছে তাঁর শরীরে
আমি দেখলাম মায়ের ভাঙা শাঁখা পড়ে আছে
প্রিয় বকুল বৃক্ষের তলায়
পাশের দীঘির জলতরঙ্গে
রাক্ষুসে মাছের মুখ হাঁ করা
বকুলগাছের মাথায় থ্যাবড়ানো সূর্যে
মায়ের সবটুকু সিঁদুর লাল হয়ে আছে
সাদা থানে ঢাকা বিধবার সাজ জুড়ে
নেমেছিলো দুর্গম চাঁদ জোছনা নিয়ে
আমি আকাশের উল্কাবৃষ্টি ঢকঢক্ করে
পান করেছিলাম সেই রাতে
মা শুয়েছিলো সমুদ্রের উপরে
সকাল এসেছিলো আকাশের তলায়
এসেছে দুপুর, বিকেল, সন্ধ্যে
সব প্রহর বয়েছে নিয়মের সন্ধি মেনে
শুধু আসেনি ফিরে চেনা মানুষটার ঘ্রাণ

মা দাঁড়িয়ে আছে চেনা দরোজায়
বকুলতলায় ছড়িয়ে আছে
ফুলের সাথে মায়ের সাদা শাঁখা
এমন কঠিন দিনের আলোয়
চোখ ধাঁধিয়ে যায় মানুষের
মা তবু দাঁড়িয়ে আছে আকাশের মত
তলায় মেঘের ছায়া দীঘির নিটোল জলে
বুকের এতোটা কাছে জ্যোৎস্না নেমে এসেছে
ভয় লাগে চাঁদমুখো করোটিকে
কেউ জানেনা, আমি আর
সেরকম শেষের সকাল চাইনা


Comments
0 Comments
 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

Support : FACEBOOK PAGE.

সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ ,আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা

Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.