x

প্রকাশিত

অর্জন আর বর্জনের দ্বিধা কাটিয়ে উঠতে পারেনি বলেই মানুষ সিদ্ধান্তের নিরিখে দোলাচলে।সেখানে প্রতিবাদও ভঙ্গুর।আর যথার্থ প্রতিবাদের থেকে উঠে আসে টায়ার পোড়ার গন্ধ।আঘাত প্রত্যাঘাতের মাঝখানে জন্মদাগও মুছে যায়।সংশোধনাগার থেকে ঠিকানার দূরত্ব ভাবেনি কেউ।ভাবেনি হাজার চুরাশির মা’র প্রয়াণ কোন কঠিন বাস্তবকে পর্যায়ক্রমিক প্রহসনে রূপান্তরিত করেছে।একটা চরিত্র কত বছর বেঁচে থাকে ?কলম যাকে চরিত্রের স্বীকৃতি দেয় তেমন পোস্টমর্টমের পড়ও আরও কয়েকযুগ বাঁচিয়ে রাখতে পারে কলমই। অভয়ারণ্যেও ঘেরাটোপ! সেই আপ্তবাক্য -

“মানুষ নিকটে গেলে প্রকৃত সারস উড়ে যায়” – স্বভাবতই প্রশ্ন ওঠে – প্রকৃত সারসই তাহলে উৎকৃষ্টতর।

“মানুষ নিকটে গেলে প্রকৃত সারস উড়ে যায়” – স্বভাবতই প্রশ্ন ওঠে – প্রকৃত সারসই তাহলে উৎকৃষ্টতর।

ভাববার সময় এসেছে। প্রতিবাদটা কোথা থেকে আসে—বোধ ?মস্তিষ্ক ?মুঠো? না বাহুবল?

ছবিতে স্পর্শ করুন

শব্দের মিছিল

অতিথি সম্পাদনায়

বিদিশা সরকার

বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ২৬, ২০১৭

তাপসকিরণ রায়

sobdermichil | জানুয়ারী ২৬, ২০১৭ | | মাত্র সময় লাগবে লেখাটি পড়তে।
তাপসকিরণ রায়

 প্রজাপুত্র কোটাল ও অন্যান্য 

প্রজাপুত্র কোটাল 

সান্ধ্য পাখিদের উড়ে যাওয়া দেখি, অন্ধকার যখন একাকার,
তখন তোমার মত আমিও ঢেকে যাই,
তুমি কি ওড়ো নৈঃশব্দের কান্নায়--
ফিরে আসার গান গাও ? --
আমি আকাশে রাজকন্যার উড়ে যাওয়া দেখি !
মিলন হবে না জানি--অন্তর্বাসে ভালবাসা ছুঁয়ে থাকে, এক স্বপ্ন,
তবুও তো মন, তোমায় সাজিয়ে চুমু কাটি অগাধ মাটির বিছানায়--
সবুজ ঘাস ও পলাশের মাঝে মুঠো রোদ্দুর হাতের তালুতে ভরে
তোমায় ছুঁয়ে দিতে পারি।
একি, রাজকুমারীর হাতে দেখি এক প্রজাপুত্র কোটাল !


রাজা ও প্রজা

কখনও মৃতগন্ধে আতরের বাস পাই,
সেলাই জুড়ে নিতে চায় পুরানো ও নতুনে,
খাপ ছাড়া এক তালির তাবুতে
অস্তিত্বের নাভিশ্বাস ওঠে,
ধনীর ধারণে দারিদ্রের উদ্বেগ ঘেঁষে,
পোড়া মৃত্তিকা প্রলেপে তবু ফাটল জোড়ে নি দেখো--
আজও সেই আকাশ পাতাল দূরত্বে দাঁড়িয়ে
রাজা ও প্রজার দল।



প্রাসাদশীর্ষ ও মাটি

তোমায় নাবতে হবে জানি--
প্রাসাদ শীর্ষ তোমার  ঠিকানা নয়, দিনান্তে একবার মাটি ছুঁতে--
একবার জিয়ন কাঠি ছুঁয়ে নিয়ে দেখো তুমি বেঁচে আছো কি না !
মাটিতে বাস করি আমি,
তাই বুঝি আমাদের স্বপ্ন ওড়ে--
তোমাদের প্রাসাদ শীর্ষের এক ঢাল মেঘচুলে।



ধানশীষের স্বপ্ন  

ধানশীষের স্বপ্নে গাঢ়া প্রজার শ্রম-ঘাম,
রক্তে মিশেছে মাটির স্বাদ,
মৃতের শেষ যাত্রাতেও দেখি স্বপ্নের খৈ বাতাসা ওড়ে--
চাবুকের ঘায়ে ন্যুব্জ নাঙলের কাঁধে রাখা মানুষের গর্দান।
আজও দলনের পা দেখি, তোমাদেরই মালিকানা দেখি !


জানালা

তোমার জানালায় আমার স্বপ্নভাস--
স্বপ্নরা মাটিতে নামে না বুঝি !
পাখির ডানায় আকাশ উড়ে যায়
নাকি পাখিরা উড়ে যায় আকাশের ডানায় ?
বড় উঁচুতে দাঁড়িয়ে তুমি,
ঝিলমিল রঙগুলি একদা আদল টেনে আনে--
যেখানে তুমি থাকো--রাতের স্বপ্নে শুধু তুমি তুমি, তুমি দেখি।
তোমার মাটিতে নেমে আসা দেখি,
পালঙ্কে তুমি ভাসমান, ধোঁয়ার জাল অস্তিত্বে ক্রমশ
বিন্দু বিন্দুতে বস্তুর অস্তিত্ব ফুটে উঠতে দেখি।




Comments
0 Comments
 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

Support : FACEBOOK PAGE.

সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ ,আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা

Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.