x

প্রকাশিত

অর্জন আর বর্জনের দ্বিধা কাটিয়ে উঠতে পারেনি বলেই মানুষ সিদ্ধান্তের নিরিখে দোলাচলে।সেখানে প্রতিবাদও ভঙ্গুর।আর যথার্থ প্রতিবাদের থেকে উঠে আসে টায়ার পোড়ার গন্ধ।আঘাত প্রত্যাঘাতের মাঝখানে জন্মদাগও মুছে যায়।সংশোধনাগার থেকে ঠিকানার দূরত্ব ভাবেনি কেউ।ভাবেনি হাজার চুরাশির মা’র প্রয়াণ কোন কঠিন বাস্তবকে পর্যায়ক্রমিক প্রহসনে রূপান্তরিত করেছে।একটা চরিত্র কত বছর বেঁচে থাকে ?কলম যাকে চরিত্রের স্বীকৃতি দেয় তেমন পোস্টমর্টমের পড়ও আরও কয়েকযুগ বাঁচিয়ে রাখতে পারে কলমই। অভয়ারণ্যেও ঘেরাটোপ! সেই আপ্তবাক্য -

“মানুষ নিকটে গেলে প্রকৃত সারস উড়ে যায়” – স্বভাবতই প্রশ্ন ওঠে – প্রকৃত সারসই তাহলে উৎকৃষ্টতর।

“মানুষ নিকটে গেলে প্রকৃত সারস উড়ে যায়” – স্বভাবতই প্রশ্ন ওঠে – প্রকৃত সারসই তাহলে উৎকৃষ্টতর।

ভাববার সময় এসেছে। প্রতিবাদটা কোথা থেকে আসে—বোধ ?মস্তিষ্ক ?মুঠো? না বাহুবল?

ছবিতে স্পর্শ করুন

শব্দের মিছিল

অতিথি সম্পাদনায়

বিদিশা সরকার

বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ২৬, ২০১৭

রাজিত বন্দোপাধ্যায়

sobdermichil | জানুয়ারী ২৬, ২০১৭ | | মাত্র সময় লাগবে লেখাটি পড়তে।
 চায়ের পেয়ালায় বিষ

" নাঃ স্যর , সেদিন বা চার পাঁচ দিন আগে পরেও কোলকাতা থেকে এই হোটেলে এসে ওঠা কাউকে দেখা যাচ্ছে না । আপনি রেজিস্টার টা দেখুন । " বলে রিসেপসনে বসে থাকা টাক মাথা আর গুঁফে পৌঢ় ভদ্রলোক আমার হাতে রেজিস্টার টা ধরিয়ে দিলেন । এই মানুষ টি প্রথম দর্শনে চমকে উঠে আমি লেখক কিনা জিঞ্জাসা করেছিলেন । 

আমি তন্ন তন্ন করে দেখেও কোলকাতা থেকে আসা কারুর নাম পেলাম না । রেজিস্টার টা ফেরত দিতে যাব , হঠাৎ পাতার তলার দিকের একটি নাম চোখে পড়ল । দেবাশীষ দাস , চার্চ রোড , ব্যান্ডেল , হুগলি । কোলকাতা বা তার কাছে পিঠের ঐ একজনই ঐ তারিখের আগে এসেছিলেন । আমি কি মনে কোরে ঠিকানাটা তুলে নিলাম পকেট নোট বুকে ।

ভদ্রলোক বিজয়ীর হাসি হেসে বললেন , " তাহলে পেলেন মিঃ ব্যানার্জ্জী আপনার কাজের লোকরু ? " 
আমি হেসে মাথা নাড়তেই , উনি রেজিস্টার বন্ধ করে রেখে , হোটেল বয়ের রেখে যাওয়া কফি কাপটা আমার হাতে তুলে দিয়ে প্রসন্নের নিঃশ্বাস ফেললেন । আমার লেখার যে এমন ভক্ত আছেন জেনে চমৎকৃত হলুম । আমি স্মিত হেসে কাপে চুমুক দিলাম।  রিসেপসনের বা দিকের জানালা দিয়ে দূরে কাঞ্চনজঙ্ঘার সমান্তরালে থাকা পাহাড় শ্রেণী দেখা যাচ্ছে ক্যালেন্ডারের ছবির মত । সোনালী রোদ পড়ে তা স্বর্ণাভ দেখাচ্ছে ।

আমার মন বলছে , একা সোনালীর পক্ষে এরকম কাজ করা সম্ভব নয় ।


এর আগে আমার কাছে কোন বধূ হত্যার কেস এলেও বর হত্যার কেস আসেনি। অক্টোবরের শুরুতে হঠাৎই একদিন ডোরবেল বেজে উঠল । খুলতেই এক দম্পতি হাত জোর করে নমস্কার জানালেন । মুখ দুটো কোথও যেন দেখেছি ! কথাবার্তা শুরু হতেই বুঝলাম , দৈনিক সংবাদ পত্রে দুদিন আগে ' নবনীল কান্ড ' -এর সঙ্গে ছাপা তার দাদা বৌদির ছবিতে দেখেছি ।

গ্যাংটকে বেড়াতে গিয়ে বুকের ব্যথায় মৃত নবনীল সরকারের মৃত্যু কাহিনী কোলকাতা থেকে বেরানো বাংলা পত্রিকায় প্রথম পাতায় ছাপা হয়েছিল । কিন্তু সেটা হত্যা বলে তেমন একটা স্ট্যান্ড করেনা । তাছাড়া বডি ও ছাড়া পেয়ে গিয়েছে ডাক্তার সার্টিফিকেটের জোরে । এখন কি বা করার থাকতে পারে ?

আমার কথায় প্রায় কান্না ভরা স্বরে নবনীলের দাদা বললেন, " ব্যানার্জ্জী স্যর , আমাদের সত্যটাও তো জানাতে পারবেন । আমরা বিশ্বাস করি না ওর হার্ট অ্যাটাক হয়েছিল । ও , সুস্থ ও সবল ছিল । আপনার সব খরচা আমাদের , আপনি শুধু সত্য টা খুঁজে বের করুন । "

ভদ্রলোকের কথায় চিন্তায় পড়ে গেলুম । তিনটি রাজ্য জুড়ে ব্যাপ্তি কেসটার । নবনীলের শ্বশুর বাড়ি কোলকাতায় । সেখান থেকেই সিকিম বেড়াতে গিয়েছিল তারা । স্ত্রী সোনালী এখন কোলকাতায় । খানিক চোখ বুজে থেকে বললাম , " ঠিক আছে । তবে কতটা কী বেরোবে বলতে পারছিনা । আমায় সোনালী ও নবনীলের সম্পর্ক ও কি কারণে আপনারা এটাকে হত্যা বলে মনে করেছেন পরিস্কার করে বলুন । "

নবনীল শান্ত ও অন্তর্মুখী মানুষ । বিয়ের কিছুদিন পর থেকেই অতি আধুনিকা সোনালীর সঙ্গে তার মতান্তর শুরু হয় । সোনালী ব্যাপারটাকে মানসিক নির্যাতনে নিয়ে গিয়েছিল । বৈবাহিক সম্পর্ক নিয়ে এই ঝামেলা চলা কালীন গত সপ্তাহের রবিবারে তারা দুজন কোলকাতায় যায় হলিডে কাটতে । সেখান থেকে হঠাৎ তারা চলে যায় গ্যাংটক ঘুরতে । হোটেলে গত বুধবার হঠাৎ নবনীলের বুকে ব্যাথা ওঠে এবং তিনি মারা যান । সোনালী তাদের জামশেদপুরের বাড়িতে এমন খবরই গ্যাংটক থেকে জানায় । তার দাদা বৌদির আরো অভিযোগ যে , এটা হত্যা । সোনালীর উদ্দেশ্য নবনীলের পুরো সম্পত্তি হস্তগত করে আরামের জীবন কাটাবে সে !

উনারা যাবার পরই আমি ফোনে যোগাযোগ করি সিটি পুলিশের ডিড. ডি ডি সি চারুচন্দ্র চাটার্জ্জীর সঙ্গে । উনি আমাকে আশ্বস্ত করলেন কিছু করার । বিকেল তিনটেয় ফোন পাই । উনার অফিসে পৌঁছাতেই শুনি , এর মধ্যেই পুলিশ কমিশনার হয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকে ও খবর গিয়েছে । তাছাড়া দুই রাজ্যের ডিডেকটিভ ডিপার্টমেন্টেকেই অনুরোধ করা হয়েছে আমাকে যেন সহায়তা করা হয় । আর ব্যাপার টা যেন গোপনে থাকে ।

হোটেল মালিক এসে উপস্থিত হলেন । তার কাছে গ্যাংটক পুলিশ থেকে ফোন করা হয়েছে । উনি শঙ্কিত কন্ঠে প্রশ্ন করলেন , " মিঃ ব্যানার্জ্জী আমাদের হোটেলের বদনাম হবে না তো ? " আমি মাথা নাড়তেই উনার উদ্বেগ কিছুটা কম হল । আমি ম্যানেজার কে ও হোটেলের সমস্ত লোকজন কে প্রশ্ন করে জানতে পারলাম , সেদিন মারা যাবার আগে চা খেয়েছিলেন নবনীল ।

হোটেলের একটা ছেলে বলল , " লাউঞ্জের টেবিলে দেবাশীষ বাবুও ছিলেন চা খাবার সময় । তিনি আগে থেকেই বসে ছিলেন । হঠাৎ ঐ মারা যাওয়া স্যারের হাত কেঁপে চা প্যান্টে পড়ে যাওয়ায় , তারা চায়ের কাপ টেবিলে রেখে স্যার কে ধরে ফেলেন । তারপর বুকে ব্যাথা অনুভব ও বমি পেতে থাকায় তাকে রুমে পৌঁছে দিয়ে আসেন । ডাক্তার ডেকে নিয়ে আসতে আসতে... । "

আমার কানে বাজল বুকে ব্যাথা সহ বমি । কিছু না বলে ডাক্তারের ঠিকানাটা সংগ্রহ করে সোজা বেরিয়ে পড়লাম হোটেলে ছেড়ে । ডাক্তার ভদ্রলোক কে পাওয়া গেল না । কলে বাইরে গিয়েছেন । আমার মনে হল নিশ্চই এমন কোন বিষ যা ঐ ধরণের সিম্পটম দেখায় । তবে কে দিলে ! সোনালী ? হতে পারে । কিন্তু কোথায় পেল ? কে যোগান দিলে ? আমি স্থানীয় থানায় এসে পৌঁছালাম । এখানে কথাবার্তা বলে উপকার হল । শোনা গেল এখানে এমন কিছু লোক আছেন যারা কেবল জড়ি বুটি বেঁচেন । চারিদিকে জঙ্গল হয়ে আছে নানা ঔষধি গাছ গাছড়ার । মনে মনে বললুম তারই স্ট্রং ডোজ দেওয়া হয়নি তো নবনীল কে ? সমস্ত জড়িবুটি বেঁচিয়েদের খুঁজলেও পাব না , যদি না সোনালী কিনে থাকে । মেয়ে মানুষ , মনে থাকতে ও পারে । তবু যতটা পারি চেষ্টা করতে নামলাম ।

এখন রাত আটটা । সামনের সোফায় ডিডেকটিভ ডিপার্টমেন্টের মিঃ ডিনজাগাপ্পা বসে। হোটেল ফিরে দুটো ভাইটাল ইনফরমেশন পাই । এক , রুম নম্বর আটত্রিশে ছিলেন ব্যান্ডেল থেকে আসা দেবাশীষ দাস । দুই , রুম নম্বর পঁচিশের কোনো কিছু তখনও পর্যন্ত সাফাই করা হয়নি ।  আমি থানার ও.সি কে ফোন করি । কিছু ক্ষণের মধ্যে সার্চে বেরিয়ে পড়ে একটা কাঁচের গ্লাস । হোটেল বয়ের থেকে জানা যায় নবনীল মারা যাবার আগে বার দুয়েক বমি করেন । যা ঐ গ্লাস দিয়ে সামলান সোনালী । বমির কন্টেন্ট ফেলে দিলেও তা ধুয়ে রাখবার কথা ভুলে গিয়েছিলেন সোনালী ।

পরের দিন গ্যাংটক ছেড়ে যখন বেরোচ্ছি , তখন হঠাৎ আমার ফোনে একটা কল এল । উঠাতেই চারুদার কন্ঠস্বর ভেসে এল , " আপনি তো মশাই হইচই ফেলে দিলেন দেখছি ! " আমি অপ্রস্তুতের মত বললাম , " সে কি , কি করলাম ! " " আজকের বাংলা কাগজ পড়েছেন ? " বলে উনি চাপা হেসে ফোন ছাড়লেন । একটা বাংলা খবর কাগজ কিনেছিলাম , কিন্তু খুলবার সময় পাইনি । বসে বসে খুলতেই  নিউজটা চোখে পড়ল, হৃৎপিন্ড রুদ্ধ নয় হত্যা ... তারপর সংবাদ দাতা জানাচ্ছেন , সিকিম ও পশ্চিবঙ্গ পুলিশের যৌথ উদ্যোগে অবশেষে ব্যান্ডেলে ধরা পড়ল সোনালীর প্রেমিক দেবাশীষ দাস । সোনালী সরকার ও পুলিশের কাস্টডিতে ।

সাতদিন পরে জনশতাব্দীর থেকে টাটানগর স্টেশনে পা রাখলাম । বাঁচা গেল । দু পা এগোতেই হঠাৎ দেখি নবনীলের দাদা বৌদি দাঁড়িয়ে । ওর দাদার চোখে কোণে জলের আঁচড় । মুখে একটা কৃতজ্ঞতা মাখা হাসি ঝুলে আছে । নবনীলের বৌদি বা হাতে পিছনে লুকিয়ে রাখা ফুলের তোড়াটা এগিয়ে দিলেন । হঠাৎ একটা ফ্ল্যাশ আলোয় চমকে উঠে তাকাতে দেখতে পেলুম স্থানীয় এক পত্রিকার চেনা চিত্র সাংবাদিক কে । মুখ দিয়ে বেরিয়ে এল , " থ্যাঙ্ক য়ূ । " কার উদ্দেশ্যে কে জানে !




Comments
0 Comments
 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

Support : FACEBOOK PAGE.

সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ ,আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা

Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.