x

প্রকাশিত | ৯২ তম মিছিল

মূল্যায়ন অর্থাৎ ইংরেজিতে গালভরে আমরা যাকে বলি ইভ্যালুয়েশন।

মানব জীবনের প্রতিটি স্তরেই এই শব্দটি অবিচ্ছেদ্য এবং তার চলমান প্রক্রিয়া। আমরা জানি পাঠক্রম বা সমাজ প্রবাহিত শিক্ষা দীক্ষার মধ্য দিয়েই প্রতিটি মানুষের মধ্যেই গঠিত হতে থাকে বহুবিদ গুন, মেধা, বোধ বুদ্ধি, ব্যবহার, কর্মদক্ষতা ইত্যাদি। এর সামগ্রিক বিশ্লেষণ বা পর্যালোচনা থেকেই এক মানুষ অপর মানুষের প্রতি যে সিদ্ধান্তে বা বিশ্বাসে উপনীত হয়, তাই মূল্যায়ন।

স্বাভাবিক ভাবে, মানব জীবনে মূল্যায়নের এর প্রভাব অনস্বীকার্য। একে উপহাস, অবহেলা, বিদ্রুপ করা অর্থই - বিপরীত মানুষের ন্যায় নীতি কর্তব্য - কর্ম কে উপেক্ষা করা বা অবমূল্যায়ন করা। যা ভয়ঙ্কর। এবং এটাই ঘটেই চলেছে -

চলুন মিছিলে 🔴

বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ২৬, ২০১৭

ঝুমা চট্টোপাধ্যায়

sobdermichil | জানুয়ারী ২৬, ২০১৭ | | মিছিলে স্বাগত
রসগোল্লা

দীর্ঘ ছ ছটা বছর কাঞ্চনের সঙ্গে আমার কোনো যোগাযোগ নেই । ও ফোন করলে আমি ধরি না । ফেসবুক হোয়াটস্ অ্যাপে ওকে ব্লক করে রেখেছি । আজ সক্কালবেলা বলা নেই কওয়া নেই মালটা দেখি এসে হাজির । মুখে নিম পাতার স্বাদ নিয়ে এক কাপ লিকার চা সামনে ধরে দিলাম । দিতেই হল । নাহলে শুঁড়িখানায় নিজের মান জলের দামে বিকোবে । চা টা খাচ্ছে ও তারিয়ে তারিয়ে । বিস্কুটগুলো ছোঁয়নি । ঠিক করলাম চলে গেলে ডাস্টবিনে ফেলে দেবো ওগুলো। ঠিক তখনই বাবির ফোন ।

- আমার লাল ড্রেসিং গাউনটা কোথায় রেখে গেছিস দিদি ? খুঁজে পাচ্ছি না । ’ 

দ্যাখ না সবুজ ব্রীফকেশটায় রেখে এসছি মনে হয়  ...

দেখলাম । নেই ওখানে ।

তাহলে খুঁজে নে নিজে ! আমি ব্যস্ত ।

আড়চোখে কাঞ্চনকে দেখি চা শেষ করে ও একমনে জানলা দিয়ে বাইরে তাকিয়ে । বিরক্তিতে গা জ্বলে যায় । রাগে মাথা দপদপ করে । জিভ শুকনো । কতক্ষণ বসবে কে জানে ? উটকো আপদ ! চড়াম করে সব রাগটা গিয়ে পড়ে বাবির ওপর । লাল গাউন পরে উনি যাবেন পার্টি অ্যাটেন করতে । সুখের চোদ্দ পোয়া । এদিকে বড়দিদি সুগার প্রেশার কোলেস্টরল অ্যালঝাইমার সব নিয়ে কয়েদী সেজে বসে । কি করলি তুই দিদির জন্য ? না অফিস থেকে বড় প্যাজেরোটা পাঠিয়ে ফোন করে বলে দিলি , দিদি ডাক্তারখানা চলে যা ...... ড্রাইভারকে বলাই আছে ! ’ 

কিচেনে প্রেশার কুকারটায় হুশহুশ করে পরপর তিনটে সিটি পড়ে গেল । দৌড়ে গিয়ে একটা চামচ দিয়ে হুইশলটা তুলে ধরলাম । কিছুটা স্টীম বের না করে দিলে খাবার সময় ভেতরের বস্তুটা আর চেনা যাবে না । গলার কাছে হৃৎপিন্ডটা লোফালুফি করছে । হঠাৎ দৌড়ে আসার ফল । চোখের দৃষ্টিও ঝাপসা । নির্ঘাৎ সুগার ফল করেছে । স্নায়ু উত্তেজনাকে কোনো রকমে বাগে রেখে কেঠো স্বরে কাঞ্চনকে বললাম , আজ এসো ।

হঠাৎ ভীষণ ঘাম হচ্ছে । হাত পাগুলোও কেমন যেন ঝিমিয়ে আসছে । হায় আল্লা ! স্ট্রোক ফোক হবে না তো ? ডক্টর বলেই রেখেছিলেন এমন সিমটম দেখলে মিস্টি বা মিস্টি জাতীয় খাবার যা হোক কিছু খেয়ে নেবেন । 

কাঞ্চনের এঁটো কাপটা দেখে মনে পড়ল ও চায়ে চিনি খায়নি । কিন্তু কাপের পাশে ওটা কি ? কে আনল ? স্বচ্ছ পলিথিনের প্যাকেটের ভেতর গোটা ছয়েক বড় রসগোল্লা । নতুন গুড়ের ।



Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

�� পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ শব্দের মিছিলের সর্বশেষ আপডেট পেতে, ফেসবুক পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.