x

প্রকাশিত

​মহাকাল আর করোনাকাল পালতোলা নৌকায় চলেছে এনডেমিক থেকে এপিডেমিক হয়ে প্যানডেমিক বন্দরে। ওদিকে একাডেমিক জেটিতে অপেক্ষমান হাজার পড়ুয়ার ভবিষ্যৎ।​ ​দীর্ঘ সাতমাসের এ যাপন চিত্র মা দুর্গার চালচিত্রে স্থান পাবে কিনা জানি না ! তবে ভুক্তভোগী মাত্রই জানে-

​'চ'য়ে - চালা উড়ে গেছে আমফানে / চ'য়ে - কতদিন হাঁড়ি চড়েনি উনুনে / চ'য়ে - লক্ষ্মী হলো চঞ্চলা / চ'য়ে - ধর্ষিতা চাঁদমনির দেহ,রাতারাতি পুড়িয়ে ফেলা।

​হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা মানুষটি লালমার্কার দিয়ে গোল গোল দাগ দেয় ক্যালেন্ডারের পাতায়, চোদ্দদিন যেন চোদ্দ বছর। হুটার বাজিয়ে শুনশান রাস্তায় ছুটে যায় পুলিশেরগাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স আর শববাহী অমর্ত্য রথ...। গঙ্গা দিয়ে বয়ে গেছে অনেকটা জল, 'পতিত পাবনী গঙ্গে' হয়েছেন অচ্ছুৎ!

এ কোন সময়ের মধ্যে দিয়ে চলেছি আমরা?

ছবিতে স্পর্শ করুন

শব্দের মিছিল

অতিথি সম্পাদনায়

সমীরণ চক্রবর্তী

বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ২৬, ২০১৭

ঝুমা চট্টোপাধ্যায়

sobdermichil | জানুয়ারী ২৬, ২০১৭ | | মাত্র সময় লাগবে লেখাটি পড়তে।
রসগোল্লা

দীর্ঘ ছ ছটা বছর কাঞ্চনের সঙ্গে আমার কোনো যোগাযোগ নেই । ও ফোন করলে আমি ধরি না । ফেসবুক হোয়াটস্ অ্যাপে ওকে ব্লক করে রেখেছি । আজ সক্কালবেলা বলা নেই কওয়া নেই মালটা দেখি এসে হাজির । মুখে নিম পাতার স্বাদ নিয়ে এক কাপ লিকার চা সামনে ধরে দিলাম । দিতেই হল । নাহলে শুঁড়িখানায় নিজের মান জলের দামে বিকোবে । চা টা খাচ্ছে ও তারিয়ে তারিয়ে । বিস্কুটগুলো ছোঁয়নি । ঠিক করলাম চলে গেলে ডাস্টবিনে ফেলে দেবো ওগুলো। ঠিক তখনই বাবির ফোন ।

- আমার লাল ড্রেসিং গাউনটা কোথায় রেখে গেছিস দিদি ? খুঁজে পাচ্ছি না । ’ 

দ্যাখ না সবুজ ব্রীফকেশটায় রেখে এসছি মনে হয়  ...

দেখলাম । নেই ওখানে ।

তাহলে খুঁজে নে নিজে ! আমি ব্যস্ত ।

আড়চোখে কাঞ্চনকে দেখি চা শেষ করে ও একমনে জানলা দিয়ে বাইরে তাকিয়ে । বিরক্তিতে গা জ্বলে যায় । রাগে মাথা দপদপ করে । জিভ শুকনো । কতক্ষণ বসবে কে জানে ? উটকো আপদ ! চড়াম করে সব রাগটা গিয়ে পড়ে বাবির ওপর । লাল গাউন পরে উনি যাবেন পার্টি অ্যাটেন করতে । সুখের চোদ্দ পোয়া । এদিকে বড়দিদি সুগার প্রেশার কোলেস্টরল অ্যালঝাইমার সব নিয়ে কয়েদী সেজে বসে । কি করলি তুই দিদির জন্য ? না অফিস থেকে বড় প্যাজেরোটা পাঠিয়ে ফোন করে বলে দিলি , দিদি ডাক্তারখানা চলে যা ...... ড্রাইভারকে বলাই আছে ! ’ 

কিচেনে প্রেশার কুকারটায় হুশহুশ করে পরপর তিনটে সিটি পড়ে গেল । দৌড়ে গিয়ে একটা চামচ দিয়ে হুইশলটা তুলে ধরলাম । কিছুটা স্টীম বের না করে দিলে খাবার সময় ভেতরের বস্তুটা আর চেনা যাবে না । গলার কাছে হৃৎপিন্ডটা লোফালুফি করছে । হঠাৎ দৌড়ে আসার ফল । চোখের দৃষ্টিও ঝাপসা । নির্ঘাৎ সুগার ফল করেছে । স্নায়ু উত্তেজনাকে কোনো রকমে বাগে রেখে কেঠো স্বরে কাঞ্চনকে বললাম , আজ এসো ।

হঠাৎ ভীষণ ঘাম হচ্ছে । হাত পাগুলোও কেমন যেন ঝিমিয়ে আসছে । হায় আল্লা ! স্ট্রোক ফোক হবে না তো ? ডক্টর বলেই রেখেছিলেন এমন সিমটম দেখলে মিস্টি বা মিস্টি জাতীয় খাবার যা হোক কিছু খেয়ে নেবেন । 

কাঞ্চনের এঁটো কাপটা দেখে মনে পড়ল ও চায়ে চিনি খায়নি । কিন্তু কাপের পাশে ওটা কি ? কে আনল ? স্বচ্ছ পলিথিনের প্যাকেটের ভেতর গোটা ছয়েক বড় রসগোল্লা । নতুন গুড়ের ।



Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

Support : FACEBOOK PAGE.

সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ ,আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা

Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.