x

প্রকাশিত | ৯৪ তম মিছিল

কান টানলেই যেমন মাথা আসে, তেমন ভাষার প্রসঙ্গ এলেই মানুষের মুখের ভাষার দৈনন্দিন ব্যবহারের কথাও মনে পড়ে যায়, বিশেষত আজকের দিনে। ভাষা দিবস মানেই শুধু মাতৃভাষা নিয়ে আবেগবিহ্বল হয়ে থাকার দিন বুঝি আজ আর নেই!

কেননা সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে যাঁরা মাথায় বসে আছেন, বিশেষত যাঁরা রাজনীতির পৃষ্ঠপোষকতায় ক্ষমতাভােগী এবং লােভী, তাঁদের মুখের ভাষা এবং তার প্রয়ােগ আজ ঠিক কতটা শিক্ষণীয় এবং গ্রহণীয় সেটা শুধু ভাবার নয়, রীতিমতো শঙ্কার এবং সঙ্কটের।

সবই কি তবে মহৎ ভাবনা, অনুপ্রেরণার জোয়ার? নাকি রাজনৈতিক কারবারিরা 'সুভাষিত' শ্রবণাতীত বয়ানে নিজেদের অক্ষমতার মদমত্ত প্রকাশ করছেন? সাধারণ ছাপােষা মানুষ বিস্ফারিত চিত্তে এই ভাষাসন্ত্রাস,এই ভাষাধর্ষণ দেখতে শুনতে ক্লান্ত। এর থেকে উত্তরণের উপায় এখনও অবধি কোনাে ভাষা দিবস দেখাতে পারেনি। এবারের ভাষা দিবসের কাছেও কি সেই উপায় আছে? নাকি এই খেলা হবে, চলবে ... মেধাহীন গাধাদের দৌলতে?

চলুন মিছিলে 🔴

শুক্রবার, ডিসেম্বর ৩০, ২০১৬

আর্যতীর্থ

sobdermichil | ডিসেম্বর ৩০, ২০১৬ | | মিছিলে স্বাগত
আর্যতীর্থ


 আমরা ওরা 

বাইরেটা বেশ মসৃণ চকচকে,  অশোক চক্রে তেরঙা পতাকায়
ভেতর যদি খুঁড়ে দেখতে চাও, ভারত নামটা নেই কোনো জায়গায়।
যেটা আছে, সেটা আমরা আর ওরা। কি বলেন,  আমার দেশোয়ালি বন্ধুরা?
আমরা বলতে ধর্ম হতে পারে, আমরা তো পুব, ওরা পশ্চিমমুখো
ওই পাড়াতে ওই যে ওরা থাকে, ও মেয়ে তুমি সাবধানে খুব ঢুকো।
আমরা মানে জাতও অনেক সময়, ওদের আছে কয় শতাংশ কোটা?
আমাদেরও দু এক ছটাক দাও,  আন্দোলনে  'পিছড়ে' হতে ছোটা।
আমরা মানে বিহারি বা বং
আমরা মানে লাল বা সবুজ রং
আমরা মানে শুওর কিংবা গরু
আমরা হলে চাকরি হবে গুরু!
আমরা মানে ওরা কেন আছে?
আমরা মানে ওরা কেন বাঁচে?
আমরা ওরায় আগুন ফুলকি ছোটে, আমরা ওরায় বাড়ি জ্বলে ওঠে,
আমরা ওরায় গন্ধ পোড়া লাশের, আমরা ওরায় ফসল জ্বলে চাষের,
কাগজ পড়ে হঠাৎ বেজায় খুশী, কালকে ওদের লাশ পড়েছে বেশি,
আমরা ওরা সাপ নেউলের লড়াই, আমরা ওরায় সবাই স্বজন হারাই,
আমরা ওরায় উগ্রবাদী মাও, নাম লেখালো ছোটো ছেলেটাও....
আমরা ওরা এক দেশেতেই বাঁচি, আমরা ওরা আসুক কাছাকাছি
তেরঙাকে দেখিয়ে সবাই বলুক, এই এখানে আমরা সবাই আছি।


 কথা খোঁজা 

কথাগুলো মাঝে মাঝে দুম করে দেয় বনধ ডেকে 
ছন্দগুলো আমায় ফেলে মজা দেখে দূর থেকে
যতই চেঁচাই আয় ফিরে আয়,
বুড়ো আঙুল দেখায় আমায়
ছেঁদো কবির খেলো ডাকে পাত্তা আবার দিচ্ছে কে!

খালি খাতা বেজায় খেপে হাঁকে 'এসব হচ্ছে কি!
সাদা পাতায় ফুল বানিয়ে বাঁধবো তোমার পুচ্ছে কি?
যেখান থেকে  যেমন করে
আনো কিছু শব্দ ধরে,
গদ্যকথায় পচবো আমি, এমন তোমার ইচ্ছে কি?

কি আর করা, মগজ ঢুঁড়ে আলুকঝালুক শব্দ খুঁজি
কোনটুকু আর আছে বলো গরীব কবির কথার পুঁজি!
ইনিয়ে করি বাবা বাছা
আয় কথারা আমায় বাঁচা
তোরা যদি এমন করিস, কষ্ট আমার হয়না বুঝি?

কিছু কিছু সরল কথার মন গলে সেই তোষামোদে
ভরসা ফেরে এই অকবির শিক্ষানবিশ ছন্দবোধে
আলগা সেসব শব্দ নিয়ে
হালকা পদ্য দিই বানিয়ে
ভয়ে আছি আবার যদি কথারা যায় অবরোধে!


Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ আপডেট পেতে,পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.