x

প্রকাশিত | ৯৪ তম মিছিল

কান টানলেই যেমন মাথা আসে, তেমন ভাষার প্রসঙ্গ এলেই মানুষের মুখের ভাষার দৈনন্দিন ব্যবহারের কথাও মনে পড়ে যায়, বিশেষত আজকের দিনে। ভাষা দিবস মানেই শুধু মাতৃভাষা নিয়ে আবেগবিহ্বল হয়ে থাকার দিন বুঝি আজ আর নেই!

কেননা সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে যাঁরা মাথায় বসে আছেন, বিশেষত যাঁরা রাজনীতির পৃষ্ঠপোষকতায় ক্ষমতাভােগী এবং লােভী, তাঁদের মুখের ভাষা এবং তার প্রয়ােগ আজ ঠিক কতটা শিক্ষণীয় এবং গ্রহণীয় সেটা শুধু ভাবার নয়, রীতিমতো শঙ্কার এবং সঙ্কটের।

সবই কি তবে মহৎ ভাবনা, অনুপ্রেরণার জোয়ার? নাকি রাজনৈতিক কারবারিরা 'সুভাষিত' শ্রবণাতীত বয়ানে নিজেদের অক্ষমতার মদমত্ত প্রকাশ করছেন? সাধারণ ছাপােষা মানুষ বিস্ফারিত চিত্তে এই ভাষাসন্ত্রাস,এই ভাষাধর্ষণ দেখতে শুনতে ক্লান্ত। এর থেকে উত্তরণের উপায় এখনও অবধি কোনাে ভাষা দিবস দেখাতে পারেনি। এবারের ভাষা দিবসের কাছেও কি সেই উপায় আছে? নাকি এই খেলা হবে, চলবে ... মেধাহীন গাধাদের দৌলতে?

চলুন মিছিলে 🔴

রবিবার, ডিসেম্বর ২৫, ২০১৬

সোনালি মুখার্জী

sobdermichil | ডিসেম্বর ২৫, ২০১৬ | | মিছিলে স্বাগত
এ শহর ও যৌনতা








সে দিন এক পেয়ার মানুষ চেম্বারে এল। অত্যাধুনিক। সাজে গোজে পাশ্চাত্যরীতি। একেবারে গ্লোবাল সিটিজেন যাকে বলে। ভিতরটা ততটা আধুনিক নয় যতটা বুঝলাম কথা শুরু করে।

মেয়েটির বিয়ের আগে শারীরিক সম্পর্কে আপত্তি। অপরদিকে ছেলেটির স্মার্টনেস আর আগ্রহ দুটোই বেশি। তবে বেশিভাগ ক্ষেত্রে টেস্টোস্টেরন এ ভাবেই কাজ করে। আমায় কাউন্সেলর মানতে এসেছে। খুব সপ্রতিভ ভাবে বলল, এই অযথা যৌনতা সম্পর্কে ভয় কি ভাবে কাটানো উচিৎ একটু যদি হেল্প করেন।

আমি পরীক্ষা করে, বায়োলজি পড়িয়ে, কন্যের ভয় কাটিয়ে দিলাম।

স্বাগতিক উচ্ছাসে হিরো বলে উঠল, তবে তো আর কোন সমস্যা নেই, থ্যাংকস। বাই দা ওয়ে, ও যখন ইউজড টু হয়েই যাবে, তারপর যদি মিউচুয়াল পার্টনার এক্সচেঞ্জ করি, কোন সমস্যা নেই তো?

মস্তকটা গরম হয়ে গেল। কিন্তু চটলে হেরে যাওয়া হয়। এক মিনিট দম নিয়ে, খুব হাসি মুখে বললাম, কোন সমস্যা নেই যদি দুজনেরই সহমত থাকে। এদিকে পাশে বসা মেয়েটা ক্রমশ ফ্যাকাসে হচ্ছিল।

একটু থেমে বললাম, তবে মাথায় রেখো, মানুষের ভিতরে কিন্তু ইরেজার নেই। অন্য পার্টনার যদি তোমার চেয়ে বেটার পারফর্ম করে, শি উইল কম্পেয়ার এভরি টাইম, আর তুমি বাদের খাতায় চলেও যেতে পারো। এবার হিরোর ভ্যাবাচেকা খাবার পালা। সব স্মার্টনেস উড়ে গিয়ে চার বার ঢোক গিলে বলল, না না ... তা হলে নিজের পার্টনার এর প্রতি লয়াল থাকাটাই হেলদি বলুন।

মেয়েটি এবার মুচকি হাসিতে ফিরে এসেছে। ওর সঙ্গে একটু চোখাচোখি করে হেসে নিয়ে, গম্ভীর হয়ে হিরোর দিকে ফিরলাম। বললাম, হ্যাঁ সেটাই সবচেয়ে ভাল থাকার উপায়, মনে রেখো।





Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ আপডেট পেতে,পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.