x

প্রকাশিত | ৯৪ তম মিছিল

কান টানলেই যেমন মাথা আসে, তেমন ভাষার প্রসঙ্গ এলেই মানুষের মুখের ভাষার দৈনন্দিন ব্যবহারের কথাও মনে পড়ে যায়, বিশেষত আজকের দিনে। ভাষা দিবস মানেই শুধু মাতৃভাষা নিয়ে আবেগবিহ্বল হয়ে থাকার দিন বুঝি আজ আর নেই!

কেননা সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে যাঁরা মাথায় বসে আছেন, বিশেষত যাঁরা রাজনীতির পৃষ্ঠপোষকতায় ক্ষমতাভােগী এবং লােভী, তাঁদের মুখের ভাষা এবং তার প্রয়ােগ আজ ঠিক কতটা শিক্ষণীয় এবং গ্রহণীয় সেটা শুধু ভাবার নয়, রীতিমতো শঙ্কার এবং সঙ্কটের।

সবই কি তবে মহৎ ভাবনা, অনুপ্রেরণার জোয়ার? নাকি রাজনৈতিক কারবারিরা 'সুভাষিত' শ্রবণাতীত বয়ানে নিজেদের অক্ষমতার মদমত্ত প্রকাশ করছেন? সাধারণ ছাপােষা মানুষ বিস্ফারিত চিত্তে এই ভাষাসন্ত্রাস,এই ভাষাধর্ষণ দেখতে শুনতে ক্লান্ত। এর থেকে উত্তরণের উপায় এখনও অবধি কোনাে ভাষা দিবস দেখাতে পারেনি। এবারের ভাষা দিবসের কাছেও কি সেই উপায় আছে? নাকি এই খেলা হবে, চলবে ... মেধাহীন গাধাদের দৌলতে?

চলুন মিছিলে 🔴

রবিবার, ডিসেম্বর ২৫, ২০১৬

পলাশ কুমার পাল

sobdermichil | ডিসেম্বর ২৫, ২০১৬ | | | মিছিলে স্বাগত
 পলাশ কুমার পাল

স্যালুট বিপর্যয়

যেই ঠুকেছি স্যালুট আমি
প্যান্টুল যায় খুলে,
তাই না দেখে সহপাঠিরা
হাসিতে ওঠে দুলে।

ঘ্যাচ্চা ঘ্যাচাং ভেংচি কেটে
রাগে দেমাক ফোলে,
'আয় না তবে মুখ্খেরা সব
দেখা স্যালুট তুলে!'

এক-একে এক দুই একে দুই
সবাই স্যালুট তোলে,
কারুর প্যান্টে তালির বোঝা
কেউ বা জামা খুলে।

কারুর গায়ে গন্ধ বিকট
শুটকি মাছের ঘোর,
কেউ বা সেই আমার মতো
প্যান্টুল ধর ধর!

গোমরামুখো হাসির বাতাস
ভীষণ অট্টরোল,
তারই মাঝে হঠাত্ করেই
ঘটল গণ্ডগোল-

গান গেয়ে এক ল্যান্টপাগল
দিল স্যালুট তুলে,
ফিকফিকিয়ে হাসল কেবল
পোশাকটুকু ভুলে।

দাঁতকপাটি মোদের হাসি
পোড়া হাঁড়ির মতো,
পরল খসে সকল পোশাক;
হাত রইল ঠুঁটো।



Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ আপডেট পেতে,পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.