x

প্রকাশিত | ৯৪ তম মিছিল

কান টানলেই যেমন মাথা আসে, তেমন ভাষার প্রসঙ্গ এলেই মানুষের মুখের ভাষার দৈনন্দিন ব্যবহারের কথাও মনে পড়ে যায়, বিশেষত আজকের দিনে। ভাষা দিবস মানেই শুধু মাতৃভাষা নিয়ে আবেগবিহ্বল হয়ে থাকার দিন বুঝি আজ আর নেই!

কেননা সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে যাঁরা মাথায় বসে আছেন, বিশেষত যাঁরা রাজনীতির পৃষ্ঠপোষকতায় ক্ষমতাভােগী এবং লােভী, তাঁদের মুখের ভাষা এবং তার প্রয়ােগ আজ ঠিক কতটা শিক্ষণীয় এবং গ্রহণীয় সেটা শুধু ভাবার নয়, রীতিমতো শঙ্কার এবং সঙ্কটের।

সবই কি তবে মহৎ ভাবনা, অনুপ্রেরণার জোয়ার? নাকি রাজনৈতিক কারবারিরা 'সুভাষিত' শ্রবণাতীত বয়ানে নিজেদের অক্ষমতার মদমত্ত প্রকাশ করছেন? সাধারণ ছাপােষা মানুষ বিস্ফারিত চিত্তে এই ভাষাসন্ত্রাস,এই ভাষাধর্ষণ দেখতে শুনতে ক্লান্ত। এর থেকে উত্তরণের উপায় এখনও অবধি কোনাে ভাষা দিবস দেখাতে পারেনি। এবারের ভাষা দিবসের কাছেও কি সেই উপায় আছে? নাকি এই খেলা হবে, চলবে ... মেধাহীন গাধাদের দৌলতে?

চলুন মিছিলে 🔴

রবিবার, ডিসেম্বর ২৫, ২০১৬

হরিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়

sobdermichil | ডিসেম্বর ২৫, ২০১৬ | | মিছিলে স্বাগত
ঠুলি খুলে দেখ









শিকড়ে ফেরা

ন্যাশনাল স্কুল অফ ড্রামার চেয়ারপার্সন রতন থিয়াম আদিবাসী সংস্কৃতির ওপর জোর দিয়েছেন। এটা খুবই ইতিবাচক সিদ্ধান্ত। আমরা কোট, প্যাণ্ট পরে মোবাইল হাতে নিয়ে বর্তমানে যে রূপ ধারণ করেছি তার পুরোটাই তো নকল। আমরা এটাকে সভ্যতা বলে মানলেও আসল সভ্যতার সঙ্গে এর কোনো সম্পর্কই নেই। বরং দিনের পর দিন এইসব নকল জিনিসের অনুশীলনে আমরা সভ্যতা থেকে অনেক অনেক দূরে সরে যাচ্ছি। শিকড়ে ফেরার জন্যই আমাদের আদিবাসী সংস্কৃতিকে জানা দরকার।

আজ আমাদের যা অবস্থা তাতে করে আমরা আমাদের দেখে মানুষ জাতিকে চিনতে পারব না। একজন আদিবাসীকে দেখলে একমাত্র আমরা বুঝতে পারি, মানুষ জাতির প্রকৃত সংজ্ঞা কী হওয়া উচিত। অদ্ভুত এক সরলতা তাদের জীবন বৈশিষ্ট্য। মানুষকে বিশ্বাস করার এক অসাধারণ ক্ষমতা রয়েছে তাদের মধ্যে যা আজকের দিনে একেবারই বিরল। আমাদের সামান্যতম বোধ যদি আজও অবশিষ্ট থেকে থাকে তাহলে বুঝতে পারব, আমরাও একদিন ওইরকমই ছিলাম। নকল সভ্যতা আমাদের গ্রাস করে ফেলেছে। আদিবাসীরা তথাকথিত শিক্ষিত নয়। আমাদের মতো শহুরে আদবকায়দায় তারা পোশাকও পরে না। কিন্তু ওদের যেটা আছে সেটা তো আবার আমাদের নেই। সেটি হল 'র', 'ক্রুড' এনার্জি। সরল জীবনযাত্রা থেকেই এটা তাদের মধ্যে আসে। দুবেলা দুমুঠো ভালো করে খেতে পায় না ঠিকই কিন্তু মানসিকভাবে ওরা ভীষণই শক্ত । নিজের সংস্কৃতিকে বুকে আগলে রাখে। 

তাই রতন থিয়ামকে অসংখ্য ধন্যবাদ। যা কেউ করেন নি তাই তিনি করে দেখাতে চলেছেন। অনেক দেরীতে হলেও এটা দরকার ছিল। কারণ মানুষ হিসাবে মানুষকে চেনা দরকার। আমার মনে হয় মানুষ চেনার ক্ষেত্রে এই পদক্ষেপ বিশেষ কার্যকরী হবে।



উল্টে টাকা, পাল্টে টাকা

যে রাতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী ঘোষনা করলেন, ৫০০, ১০০০ টাকার নোট একটা নির্দিষ্ট সময়ের পর বাতিল হয়ে যাবে, ঠিক তার পরদিনই বাজারে একটি লোক রাগে গজগজ করতে করতে বলে চলেছেন --------- "এইরকম মূর্খের মতো সিদ্ধান্ত কেন যে নেয়! কত সাধারণ মানুষের যে অসুবিধা হবে!" লোকটিকে আমি ব্যক্তিগতভাবে চিনি। এমন নয় যে তার প্রচুর কালো টাকা আছে যেগুলি ধ্বংস হয়ে যাবার জন্যই এই বিষোদ্গার। না, তিনি একেবারেই সাধারণ মানুষ। না বুঝেই বলে চলেছেন এইসব কথা। 

আমি মুখ খুলতে বাধ্য হলাম ---- আপনি এমন একটা সিদ্ধান্তের কথা বলুন যাতে একটা মানুষেরও অসুবিধা হবে না? একটা মানুষ যেমন সব মানুষকে খুশি করতে পারে না, ঠিক তেমন আপনি পৃথিবীতে যা-ই করুন কিছু মানুষ অসুবিধায় পড়বেই। তার মধ্যে আমি, আপনি যে কেউ থাকতে পারি। কিন্তু তা সত্ত্বেও আমাদেরকে ভাবতেই হবে, তাতে আমাদের দেশের সুবিধা হবে কিনা। দেশের যদি ভালো হয় তাহলে তাতে আমাদের সায় দিতেই হবে।

আমার ব্যক্তিগত অভিমত, এইরকম একটি ঘটনায় সাধারণ মানুষের সমর্থন থাকাই উচিত। আমাদের দেশে এমন অনেক মানুষ আছে, যারা তাদের আয়কে সঠিক ভাবে দেখায় না। নিজের বিশাল আয়কে কম করে দেখিয়ে সরকারকে কর ফাঁকি দেয়। কর ফাঁকি দেওয়া টাকাই কালো টাকা। এই কালো টাকাকে বাজেয়াপ্ত করার জন্যই তো এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। নিজের চোখ এবং খবরের কাগজ মারফত আমি যা দেখেছি তাতে এটা বলতেই হবে যে, মানুষের অসুবিধা হয়েছে। কিন্তু পাশাপাশি এটাও বলতে হবে যে, মানুষ হুজুগে মেতেছে। এটিএম খুলতে না খুলতেই মানুষের লাইন। ব্যক্তিগতভাবে আমি চিনি এমন অনেক মানুষকে আমি দেখেছি তারা ইচ্ছা করে লাইনে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু তাই বলে আমি বেশ কিছু মানুষের কষ্টকে ছোটো করে দেখছি না। ব্যাঙ্কে লাইন দিয়ে দাঁড়াতে হচ্ছে বলে অনেকে দারুণভাবে রাগান্বিত। সত্যিই অনেক বৃদ্ধ বৃদ্ধার কষ্টকে ভীষণ বলে মনে হয়েছে। কিন্তু এমন অনেক মানুষকে জানি যারা সম্প্রতি একটি লোভনীয় অফারের সিম তোলার জন্য ঘন্টার পর ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়েছে। সিনেমা দেখার জন্য তো লাইনে দাঁড়ানো জলভাত হয়ে গেছে। তাহলে তারা ব্যঙ্কের লাইনে দাঁড়িয়ে সরব হচ্ছে কেন?

অনেক কষ্ট করে আমাদের রোজগার করতে হয়। আর কিছু মানুষ কোটি কোটি কালো টাকায় দেশের মানুষ তথা দেশকে কিনে নেবার অপচেষ্টা চালাবে, এটা হতে পারে না। একটা নতুন ব্যবস্থা চালু হতে সময় লাগে। সেই সময়টুকু আপনারা অন্তত দিন। আমাদের ভালোই হবে।





Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ আপডেট পেতে,পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.