x

প্রকাশিত

​মহাকাল আর করোনাকাল পালতোলা নৌকায় চলেছে এনডেমিক থেকে এপিডেমিক হয়ে প্যানডেমিক বন্দরে। ওদিকে একাডেমিক জেটিতে অপেক্ষমান হাজার পড়ুয়ার ভবিষ্যৎ।​ ​দীর্ঘ সাতমাসের এ যাপন চিত্র মা দুর্গার চালচিত্রে স্থান পাবে কিনা জানি না ! তবে ভুক্তভোগী মাত্রই জানে-

​'চ'য়ে - চালা উড়ে গেছে আমফানে / চ'য়ে - কতদিন হাঁড়ি চড়েনি উনুনে / চ'য়ে - লক্ষ্মী হলো চঞ্চলা / চ'য়ে - ধর্ষিতা চাঁদমনির দেহ,রাতারাতি পুড়িয়ে ফেলা।

​হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা মানুষটি লালমার্কার দিয়ে গোল গোল দাগ দেয় ক্যালেন্ডারের পাতায়, চোদ্দদিন যেন চোদ্দ বছর। হুটার বাজিয়ে শুনশান রাস্তায় ছুটে যায় পুলিশেরগাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স আর শববাহী অমর্ত্য রথ...। গঙ্গা দিয়ে বয়ে গেছে অনেকটা জল, 'পতিত পাবনী গঙ্গে' হয়েছেন অচ্ছুৎ!

এ কোন সময়ের মধ্যে দিয়ে চলেছি আমরা?

ছবিতে স্পর্শ করুন

শব্দের মিছিল

অতিথি সম্পাদনায়

সমীরণ চক্রবর্তী

বুধবার, ডিসেম্বর ২৮, ২০১৬

অনন্যা ব্যানার্জি

sobdermichil | ডিসেম্বর ২৮, ২০১৬ | | মাত্র সময় লাগবে লেখাটি পড়তে।
অনন্যা ব্যানার্জি




নবান্নের রেশ রেখে ধীরে ধীরে বিদায় নিয়েছে হেমন্ত, গ্রামবাংলায় আজ নতুন ধানের ঘ্রাণ মাখা শীতের কুয়াশা সকাল, শহরে যদিও গরম চায়ের চুমুকে শীতের আলতো ছোঁয়া। গুটি গুটি পায়ে হাজির পৌষ - পিঠে পুলি, নলেন গুড়, চিড়িয়াখানা, শীতের রোদ হাজারো স্বাদে এবং রঙীন মেলায়। শুধু বাঙালীয়ানা নয়, আমরা এই পৌষেই মুখিয়ে থাকি খ্রীসমাস এর জন্য এছাড়া বর্ষবরণ তো আছেই। 

খ্রীসমাসের কেক, নতুন বছরের আনন্দোৎসব, শীতের রোদে চড়াইভাতি আনন্দের ছাপ ছড়িয়ে থাকে সর্বত্র । ইংরাজী বছর শেষের এই মুহূর্তগুলোই নতুন বছরের চালিকাশক্তি হয়ে ওঠে, আমরাও এ আনন্দের প্রতিটি কণাকে সঞ্চয় করে রাখি মনের মনিকোঠায় । পৌষ কিন্তু আমাদের বাঙালীদের কাছে আরও এক বিশেষ কারণে উল্লেখযোগ্য। তা হল শান্তিনিকেতনের পৌষমেলা । বাঙালীর কৃষ্টিমেলা এক বিশেষ স্থান অধিকার করে আছে । প্রতিবছর ৭ ই পৌষ শান্তিনিকেতনের এই মেলা আমাদের টেনে নিয়ে যায় মাটির টানে । আর এই মেলার বিশেষ আকর্ষন অন্তত আমার কাছে বাঙলার লোকগীতি ,বাঙলার বাউলগান । একতারার ওই সুরের অমোঘ টান । বাউল সাধনা বড় কঠিন সাধনা অথচ কত সহজিয়া । রবীন্দ্রনাথ নিজেও বাউল সঙ্গীতের একনিষ্ঠ ভক্ত ছিলেন এছাড়াও তিনি বাউল চর্চাও করেছেন । এর প্রভাব পড়েছে ওনার গানে । তাঁর রচিত বহু গানেই আমরা মেঠো পথের গন্ধ পাই, মাটির সুর ছুঁয়ে যায় আমাদের মন । এই সংখ্যায় এই মাটির সুর আমাদের উপজীব্য । মাটির সুর শুনতে শুনতে বাউলদের সাথে পা মিলিয়ে মেঠো পথের বাঁকে আমরাও না হয় হারিয়ে যাই । শান্তিনিকেতনের ভুবন ডাঙার মাঠ পেরিয়ে খোয়াইয়ের পার ধরে পায়ে পায়ে পৌঁছে যাই কোপাইয়ের চরে । বীরভূমের লাল মাটি মেখে পেরিয়ে যাই "গ্রাম ছাড়া ওই রাঙা মাটির পথ " । এই সংকলনে বেছে নিয়েছি বাংলার লোকগীতিকে ,বাংলার বাউল গান কে । 

শব্দের মিছিলের প্রত্যেক পাঠক পাঠিকা ও শুভানুধ্যায়ীকে মেরী খ্রীসমাস ও নতুন বছর ২০১৭ -র অনেক অনেক শুভেচ্ছা জানিয়ে আমি অনন্যা শেষ করছি আপাতত এখানেই । দেখা হবে নতুন বছরে নতুন প্রভাতে । সাথে থাকুন পাশে থাকুন শব্দের মিছিলে । 

মিলন হবে কত দিনে ...   



খাঁচার ভিতর অচিন পাখি ...  


তোমায় হৃদ মাঝারে রাখবো ...  


গোলেমালে গোলেমালে পিরিত ...  


একদিন মাটির ভিতরে হবে ঘর রে ...  


ওরে দিন থাকিতে ...  


জাত গেলো বলে ...  


নবী না চিনলে সে কি খোদার ...  


মানুষ ভজলে সোনার ...  






Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

Support : FACEBOOK PAGE.

সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ ,আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা

Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.