x

প্রকাশিত

অর্জন আর বর্জনের দ্বিধা কাটিয়ে উঠতে পারেনি বলেই মানুষ সিদ্ধান্তের নিরিখে দোলাচলে।সেখানে প্রতিবাদও ভঙ্গুর।আর যথার্থ প্রতিবাদের থেকে উঠে আসে টায়ার পোড়ার গন্ধ।আঘাত প্রত্যাঘাতের মাঝখানে জন্মদাগও মুছে যায়।সংশোধনাগার থেকে ঠিকানার দূরত্ব ভাবেনি কেউ।ভাবেনি হাজার চুরাশির মা’র প্রয়াণ কোন কঠিন বাস্তবকে পর্যায়ক্রমিক প্রহসনে রূপান্তরিত করেছে।একটা চরিত্র কত বছর বেঁচে থাকে ?কলম যাকে চরিত্রের স্বীকৃতি দেয় তেমন পোস্টমর্টমের পড়ও আরও কয়েকযুগ বাঁচিয়ে রাখতে পারে কলমই। অভয়ারণ্যেও ঘেরাটোপ! সেই আপ্তবাক্য -

“মানুষ নিকটে গেলে প্রকৃত সারস উড়ে যায়” – স্বভাবতই প্রশ্ন ওঠে – প্রকৃত সারসই তাহলে উৎকৃষ্টতর।

“মানুষ নিকটে গেলে প্রকৃত সারস উড়ে যায়” – স্বভাবতই প্রশ্ন ওঠে – প্রকৃত সারসই তাহলে উৎকৃষ্টতর।

ভাববার সময় এসেছে। প্রতিবাদটা কোথা থেকে আসে—বোধ ?মস্তিষ্ক ?মুঠো? না বাহুবল?

ছবিতে স্পর্শ করুন

শব্দের মিছিল

অতিথি সম্পাদনায়

বিদিশা সরকার

রবিবার, ডিসেম্বর ২৫, ২০১৬

অনিন্দিতা মন্ডল

sobdermichil | ডিসেম্বর ২৫, ২০১৬ | | মাত্র সময় লাগবে লেখাটি পড়তে।
অনিন্দিতা মন্ডল




এখন সকাল সাতটা । বাথরুমে শাওয়ার নিতে নিতেই নেট এন্যবেলেড ভিউয়ারে গলা ভেসে এলো স্বাতীর । আয়ুশ আজ নর্থ এ যাচ্ছে । আমি কুর্গেই । আজ কফি লোড হবে । অরিন্দম শুনে নেয় । ওকে , আমি একটু ইস্টে । বে ওফ বেঙ্গলের ওয়েল রিগ নিয়ে কথা ফাইনাল । 

ফ্রেশ হয়ে অরিন্দম তার প্রাইভেট জেটে উঠে বসে । এটা একদম নতুন । ইউ নিড নো ম্যান হ্যান্ডলিং । পুরোটা মেকানিকাল । ইউ জাস্ট হ্যাভ টূ স্টার্ট ইট ! আর অটোম্যাটিক ওয়াশিং মেশিন চালাবার মত তোমাকে অ্যাডজাস্ট করে নিতে হবে। গন্তব্য , যাত্রাপথ , গতি ও উচ্চতা । ব্যস , চুপ করে বসে থাকো । দেখতে দেখতে চলো । স্বাতী এখন কফি প্ল্যান্টেশান দেখছে । আয়ুশের কথা ছিল মাইকা মাইনস গুলো দেখার । সে চলল নর্থ এ । কি জানি কেন ! অরিন্দম আস্তে আস্তে! সিটটা রিক্লাইন করে । বেশি উঁচুতে উড়ছেনা প্লেন । ওই যে নীচে দেখা যাচ্ছে তার সাম্রাজ্য । ভাবতেও অবাক লাগে যে ক বছর আগেও সে ছিল একটা হাজার স্কোয়ার ফুট ফ্ল্যাটের মালিক । কিন্তু এখন ? একশো তিরিশ কোটির দেশটা এখন মাত্র এক লাখের ! সরকার এখন যাবতীয় সম্পদ এই এক লাখের মধ্যে বন্টন করে দিয়েছে । প্রকৃত সাম্য । দুর্ভিক্ষ, গরীবিয়ানা, অনগ্রসর জাতি, এসব এখন ইতিহাসের পাতায় । এখন সীমান্ত রক্ষা থেকে শুরু করে কৃষি , বাণিজ্য সব আউটসোর্সড । এই যেমন তার জেটটা । প্রতিমাসে সার্ভিস করে একটা জার্মান সংস্থা। জাস্ট একাউন্ট টু একাউন্ট ট্রান্সফার হয়ে যায় পেমেন্ট। গোটা সীমান্ত জুড়ে নিরাপত্তা রক্ষার ভার একটা অ্যামেরিকান কম্পানির হাতে । ডোমেস্টিক সাপ্লাই অবশ্য এক দেশীয় বণিক সংস্থার হাতে । কোথাকার টোম্যাটো কোথায় যাচ্ছে কেউ জানেনা । মাথাব্যথার দরকারই বা কি ? যেমন স্বাতীর কফি প্ল্যান্টেশানের কফি চাষ থেকে হারভেস্টিঙ্গ পর্যন্ত একটা ব্রাজিলীয় কম্পানির দায় । বদলে ? ওই । একাউন্ট টু একাউন্ট ! অরিন্দম আর স্বাতী কিন্তু সেই কফির স্বাদই জানেনা । তত্সত্বেও এরা সুখী । কি আরাম কি আরাম । এ এখন সব পেয়েছির দেশ । 

গোল বেধেছে আয়ুশকে নিয়ে । ও একটা বিশ্ববিদ্যালয়ে হিস্ট্রি নিয়ে পড়ছিল । তখনও এখানে একশো তিরিশ কোটি । হঠাত ক বছরে এই নতুন সাম্রাজ্যের মালিক হওয়াটা সে ভালো চোখে দেখছে না । এমন ভূত চেপেছে মাথায় যে ওই মাইন এলাকায় আগে যারা থাকত , মানে ভূমিপুত্র যাকে বলে , তাদের সব রিমেইনস খুঁজে বের করতে চায়। আভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা এখন একটা চৈনিক কম্পানির হাতে । তারা বিষয়টা অরিন্দমের নজরে আনে । অরিন্দম ছেলেকে ওয়ার্নিং দিয়েছিল , নো ফিডলিং উইদ দ্য পাস্ট । এখন সে নর্থ এ যাচ্ছে । যাক একটু ঘুরে আসুক । একটা ফ্রেঞ্চ কম্পানি এখন হিমালয়ান এক্সপিডিশানের দায়িত্বে । 

হঠাত নেট এন্যাবেল্ড ভিউয়ারে ছবি ভেসে ওঠে । অরিন্দম দেখতে পায় ভীষণ উঁচু , ন্যাড়া আর পাথুরে পাহাড় , মাথায় বরফ , মাঝখান দিয়ে গ্লেসিয়ার দেখা যাচ্ছে এরকম পটভূমিতে আয়ুশ দাঁড়িয়ে । হাসি হাসি মুখ । অরিন্দম হাত নাড়ে । হাসে । গুড । এনজয় ইয়োরসেল্ফ ! আয়ুশ হাসতে হাসতে পিছিয়ে যায় । দেখা যায় একটা বড় বোল্ডারের ওপর দাঁড়িয়ে আছে । ওকে ঘিরে শয়ে শয়ে মানুষ । না তো ! ওরা ফ্রেঞ্চ নয় ! ওদের গায়ের রং বাদামী কালো আর কি বিশ্রী ! রুক্ষ চুল । কোটরে ঢোকা চোখ । বেরিয়ে আসা কণ্ঠার হাড় । আর গায়ে জামাকাপড় ও যাকে বলে স্ক্যান্টি । অরিন্দম চেয়ার ছেড়ে উঠে দাঁড়িয়ে পড়ল । হু আর দে ? দোস ডীমনস ? আয়ুশ হাসল । বাবা এরা ভারতীয় । ইন্ডিয়ান নয় । টেক ইট ইজি বাবা । এদের খোঁজ কেউ পায়নি । পেলেও ক্ষতি নেই । নো বডি উইল ডু এনি হার্ম । আবার হাসল আয়ুশ । অরিন্দমের রগ দপদপ করছে । আয়ুশের গলা শোনা যাচ্ছে । বাবা আমি কিছু ডোমেস্টিক সাপ্লাইয়ের অর্ডার করেছি । ফান্ড ট্রান্সফার করে দিও । ছেলের বালখিল্যপনায় বিরক্তিতে বিষিয়ে যেতে যেতেও অরিন্দম হাসি ফোটালো মুখে । ওকে ওকে । তুমি ফিরছ কবে ? আয়ুশ তীক্ষ্ণ হাসি ছড়ালো মুখে । না বাবা । আমি ফিরছি না । আমি ফিরলেই তুমি ইন্টারনাল সিক্যুরিটিকে দিয়ে মাস মার্ডারটা করিয়ে দেবে । অবশ্য এরা এমনিতেই ক্ষিদে তেষ্টায় আধমরা । ওহ তুমি তো আবার ক্ষুধা তৃষ্ণা কাকে বলে জানো না । ফার্স্ট ওয়ার্ল্ড । যাকগে । তুমি বরং টাইম টু টাইম ফান্ড ট্রান্সফারটা করে যেও । যতদিন না এই বোল্ডারে সবুজ ফোটাতে পারি । টা টা বাবা । আয়ুশের মুখটা মিলিয়ে যায় । 

অরিন্দম হতাশ হয়ে ল্যান্ডেড জেটটার পেটে বসে থাকে । আয়ুশের আইডি দিয়ে নর্থ টাইপ করতে সফটওয়্যার নিলনা । ছেলেটা তবে হারিয়ে গেল ?



Comments
1 Comments
 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

Support : FACEBOOK PAGE.

সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ ,আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা

Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.