x

প্রকাশিত | ৯৪ তম মিছিল

কান টানলেই যেমন মাথা আসে, তেমন ভাষার প্রসঙ্গ এলেই মানুষের মুখের ভাষার দৈনন্দিন ব্যবহারের কথাও মনে পড়ে যায়, বিশেষত আজকের দিনে। ভাষা দিবস মানেই শুধু মাতৃভাষা নিয়ে আবেগবিহ্বল হয়ে থাকার দিন বুঝি আজ আর নেই!

কেননা সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে যাঁরা মাথায় বসে আছেন, বিশেষত যাঁরা রাজনীতির পৃষ্ঠপোষকতায় ক্ষমতাভােগী এবং লােভী, তাঁদের মুখের ভাষা এবং তার প্রয়ােগ আজ ঠিক কতটা শিক্ষণীয় এবং গ্রহণীয় সেটা শুধু ভাবার নয়, রীতিমতো শঙ্কার এবং সঙ্কটের।

সবই কি তবে মহৎ ভাবনা, অনুপ্রেরণার জোয়ার? নাকি রাজনৈতিক কারবারিরা 'সুভাষিত' শ্রবণাতীত বয়ানে নিজেদের অক্ষমতার মদমত্ত প্রকাশ করছেন? সাধারণ ছাপােষা মানুষ বিস্ফারিত চিত্তে এই ভাষাসন্ত্রাস,এই ভাষাধর্ষণ দেখতে শুনতে ক্লান্ত। এর থেকে উত্তরণের উপায় এখনও অবধি কোনাে ভাষা দিবস দেখাতে পারেনি। এবারের ভাষা দিবসের কাছেও কি সেই উপায় আছে? নাকি এই খেলা হবে, চলবে ... মেধাহীন গাধাদের দৌলতে?

চলুন মিছিলে 🔴

শুক্রবার, নভেম্বর ২৫, ২০১৬

মোকসেদুল ইসলাম

sobdermichil | নভেম্বর ২৫, ২০১৬ | | মিছিলে স্বাগত
মোকসেদুল ইসলাম



মানুষ

মাঝেমধ্যে কিছু প্রশ্ন মাথার মধ্যে ঘুরপাক খায়
আমি গণিতের ছাত্র নই বন্ধু, অংকে ভীষণ কাঁচা
শুধু শূন্যগুলোই বারবার ফিরে আসে লকলকে হাসির দিনে
পুচ্ছ দেখে ময়ূর ভেবো না, মানুষও সে হতে পারে
কেননা এখন মানুষেরও পুচ্ছ হয়, তারা পশু হয়েছে বলে।

নিকষ অন্ধকারে আমি মানুষ হাতড়ে খুঁজে ফিরি
প্রেয়সী জেনেছি যাকে তাঁর শুধু অবয়বটুকুই মনে আছে
বাঁকিটুকু দেখি বোধের আয়নায় সব শূন্যপথে চলে গেছে।

গোপন ব্যথা ভুলে আমরা প্রতিবিম্বের পিছে দৌড়াতে থাকি
দীর্ঘশ্বাসের মতো সঙ্গীবিহীন নির্জন দ্বীপে পড়ে রই
জমকালো অন্ধকারে কেউ কেউ হাসে তবু যক্ষের হাসি।


শেষ দেখার পর যা হয়েছিল

আমাদের পুরাতন মুখগুলো নিয়মিত পাল্টে যায়
অথচ স্মৃতির উল্টো পিঠে বাঁধা থাকে সব পৌরাণিক কাহিনী
যে ভালোবাসতে জানে চুমো দেয়ার অধিকার তারই থাকা উচিৎ
নয়তো শূন্যেই পড়ে থাকবে জ্যোৎস্না মোড়ানো প্রেম।

আমাদের আনন্দগুলো নাকি বিবর্ণ হয়ে গেছে কাশ্মীরি রংঢংয়ে
ক্লান্ত পৃথিবীতে শাদা সুখ খুঁজে খুঁজে ভাবি আমিও মানুষ ছিলাম
দশর্কের হাততালি পাওয়ার আশায় ভুলে গেছি মৃত্যুশোক।

অশান্ত পৃথিবীতে শেষ দেখার পর কে মনে রাখে পথের ঠিকানা
স্রোতহীন নদীতেও আজকাল ভেসে যায় তৃণের সংসার।


ইতিহাসের পাঠ

বিস্ময় ভরা চোখে পথের দূরত্ব মেপেই এতদূর এসেছি হেঁটে
আততায়ী রাত উদভ্রান্ত আলোক শিখায় নিঃসঙ্গ স্মৃতি
শুদ্ধতা কোথায়? রক্তক্ষরণের দহন জ্বালায় ঝরছি আমি নিত্য
যে ঘুড়ি শূন্যে দিয়েছি ছেড়ে তাঁর আশা তো ছাড়িনি আমি।

সাহসী পুরুষ, রাতের আঁধার ছিঁড়ে অনিদ্রার সুখে ভাসি
জোনাক শরীর বুকে একটা মৃত্যুকামড় দিতে চাই
অসংখ্য ইচ্ছের ভীড়ে পোড় খাওয়া স্বপ্নেরা দীর্ঘশ্বাস ছাড়ে।
এসব শূন্যতার আগ্রাসন, বধির প্রহসনে পেরিয়ে যাই ধূপছায়া পথ।

মায়াদৃষ্টি ছড়িয়ে দিওনা ও পথে
আহা! আমার কৈশোরকাল তুমি দীর্ঘজীবী হও
এই পথে হেঁটে হেঁটে নিই ইতিহাসের পাঠ।



Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ আপডেট পেতে,পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.