x

প্রকাশিত

​মহাকাল আর করোনাকাল পালতোলা নৌকায় চলেছে এনডেমিক থেকে এপিডেমিক হয়ে প্যানডেমিক বন্দরে। ওদিকে একাডেমিক জেটিতে অপেক্ষমান হাজার পড়ুয়ার ভবিষ্যৎ।​ ​দীর্ঘ সাতমাসের এ যাপন চিত্র মা দুর্গার চালচিত্রে স্থান পাবে কিনা জানি না ! তবে ভুক্তভোগী মাত্রই জানে-

​'চ'য়ে - চালা উড়ে গেছে আমফানে / চ'য়ে - কতদিন হাঁড়ি চড়েনি উনুনে / চ'য়ে - লক্ষ্মী হলো চঞ্চলা / চ'য়ে - ধর্ষিতা চাঁদমনির দেহ,রাতারাতি পুড়িয়ে ফেলা।

​হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা মানুষটি লালমার্কার দিয়ে গোল গোল দাগ দেয় ক্যালেন্ডারের পাতায়, চোদ্দদিন যেন চোদ্দ বছর। হুটার বাজিয়ে শুনশান রাস্তায় ছুটে যায় পুলিশেরগাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স আর শববাহী অমর্ত্য রথ...। গঙ্গা দিয়ে বয়ে গেছে অনেকটা জল, 'পতিত পাবনী গঙ্গে' হয়েছেন অচ্ছুৎ!

এ কোন সময়ের মধ্যে দিয়ে চলেছি আমরা?

ছবিতে স্পর্শ করুন

শব্দের মিছিল

অতিথি সম্পাদনায়

সমীরণ চক্রবর্তী

শুক্রবার, নভেম্বর ২৫, ২০১৬

মন্দিরা ঘোষ

sobdermichil | নভেম্বর ২৫, ২০১৬ | | মাত্র সময় লাগবে লেখাটি পড়তে।
মন্দিরা  ঘোষ

রম্যভূমি

অসহ্যরাতের অন্ধকারে কুয়াশার ভিতর
ভ্রষ্টাচারী  হেঁটে যায় রম্যভূমির গন্তব্যে।
দুদন্ড জিরনোর সময় ধুয়ে নেয়
জমে থাকা শরীরের পাপ জোয়ারের জলে;
নদীগর্ভে রেখে যায়  অহংকারের বীজ।

গর্ভবাস  শেষ করে মাটির শৈশব
ছোট  ছোট  হাত মেলে
ছুঁতে চায় চাঁদ।
স্তননের বাধ্যতা নিভে এলে
চরাচর  শুধু মনে রাখে
গর্ভজ  সুখের দিন।
মনে থাকে জোয়ারের জলে অহংকারী
ধুয়ে ছিল মুখ;অজ্ঞাতে ভ্রষ্টতার কালি
ছুঁয়েছিল চাঁদের শরীর।

দলিত কুসুমদল উঠে বসে;
একদিন মেঘেদের ভিড়ে খুঁজে খুঁজে
রেখে আসে আলোর ঠিকানা;
কলঙ্কের বিষবাষ্পে মুছে দিতে
পৃথিবীর ভ্রষ্টাচারীর দোহন।
লালনের শর্তগুলি তখন মান্যতা  পায়
অনিবার্যতায়।


পঞ্চালিকা  আমি

একশো  তিতির ভালবাসা তোমার রাখি
বুকের মাঝে নরম সুখের বালিশ পাতি
ইচ্ছেধারীর ইচ্ছেগুলো ভীষণ  কঠোর
আমি তোমার খাঁচায় পোষা তিতির পাখি।

ভালবাসার শেকড় গুলো আলগা যখন
আকাশ আকাশ স্বপ্নগুলো ধূসর মলিন
গভীর রাতে তিতির পাখির পালক পোড়াও
আমি সদাই বৃষ্টিপাতের হিসেব রাখি।

জীবন জীবন যুদ্ধ জয়ের মুকুট  পড়ো
রক্তপাতের গল্পকথায় বাতাস ভারী
মধ্যরাতে মোমের আলো কান্না চাপে
আমি নরম বুকের ওপর বালিশ পাতি।

শেকল শেকল ভালবাসা  জীবন  জোড়া
মেয়ে তুমি বাতাস মেখে শূন্যে ওড়ো
কাঁটাতারের রক্তপাতে ভয় কি তোমার
রক্ত যখন ঝরছে বুকে জীবন গড়ো।

তবু কেন মন খারাপের শরীর যাপন
পুরুষ  তোমার অবহেলা ভূষণ  মানি
তোমার চোখে আমি হলাম পঞ্চালিকা
আমি নারী বুকের ওপর বালিশ পাতি।


আমি

বার বার শুধু দেখতে থাকো
অলীক  সংঘাতে ক্লান্ত তুমি
ঘুমাবে বলে বালিশ টানলে,
অথচ আমি অপেক্ষারত
তোমার উদারতায়।
নিস্তব্ধতা  না অন্ধকার কার
ঘনত্ব বেশী- অংক কষতে গিয়ে
রাত শেষে প্রাত্যহিকতার
আকচাআকচি।
স্কুলের টিফিন,ইলেকট্রিক  বিল,
সপ্তাহের বাজার সব রসাতলে।

রক্ত ঝরছে  ঝরুক দিনরাত,
আমি আমার গোপন আমির সাথে
ঝগড়া  করি;
দুপুরে কাঠবিড়ালীর জন্য দরজা খুলি
আর সর্বাঙ্গে কবিতা মাখি।
সংসার আমার আঁচল টানলে
যত্ন দিই খুব,
বেশী চাইলে তাও।

শুধু আমার অর্জিত অভিমান
সযত্নে লালন করি মোমের আলোয়,
আর একটি নির্ভার শিশির সকালের জন্য।



Comments
1 Comments
 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

Support : FACEBOOK PAGE.

সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ ,আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা

Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.