x

প্রকাশিত | ৯৪ তম মিছিল

কান টানলেই যেমন মাথা আসে, তেমন ভাষার প্রসঙ্গ এলেই মানুষের মুখের ভাষার দৈনন্দিন ব্যবহারের কথাও মনে পড়ে যায়, বিশেষত আজকের দিনে। ভাষা দিবস মানেই শুধু মাতৃভাষা নিয়ে আবেগবিহ্বল হয়ে থাকার দিন বুঝি আজ আর নেই!

কেননা সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে যাঁরা মাথায় বসে আছেন, বিশেষত যাঁরা রাজনীতির পৃষ্ঠপোষকতায় ক্ষমতাভােগী এবং লােভী, তাঁদের মুখের ভাষা এবং তার প্রয়ােগ আজ ঠিক কতটা শিক্ষণীয় এবং গ্রহণীয় সেটা শুধু ভাবার নয়, রীতিমতো শঙ্কার এবং সঙ্কটের।

সবই কি তবে মহৎ ভাবনা, অনুপ্রেরণার জোয়ার? নাকি রাজনৈতিক কারবারিরা 'সুভাষিত' শ্রবণাতীত বয়ানে নিজেদের অক্ষমতার মদমত্ত প্রকাশ করছেন? সাধারণ ছাপােষা মানুষ বিস্ফারিত চিত্তে এই ভাষাসন্ত্রাস,এই ভাষাধর্ষণ দেখতে শুনতে ক্লান্ত। এর থেকে উত্তরণের উপায় এখনও অবধি কোনাে ভাষা দিবস দেখাতে পারেনি। এবারের ভাষা দিবসের কাছেও কি সেই উপায় আছে? নাকি এই খেলা হবে, চলবে ... মেধাহীন গাধাদের দৌলতে?

চলুন মিছিলে 🔴

সোমবার, আগস্ট ১৫, ২০১৬

অনুপম চ্যাট্টার্জ্জী

sobdermichil | আগস্ট ১৫, ২০১৬ | | মিছিলে স্বাগত
anupom

এবং প্রেম 

পীঠস্থানের জ্যোতির্ময়ে চুপ করে যাই ,
চুপ করে যাই অগ্নি-গিরি , খেয়াল-পরী ;
তিরস্কারে জ্বলে জীবন , চাঁদের আলো ,
দু-চোখ জ্যাঠা ,  চীনামাটির রূপ দেখাল ।

উপযুক্ত তৃপ্তি আশায় জীবন-ছিলা ,
জটিল , তোমার ব্যতিরেকে ন্যস্ত বরণ ;
সাধারণের হিসাবি-মাস যাত্রীবাহী ,
তৃণভোজীর ব্যঞ্জনাতে আকাশ-মারণ ।

ঘ্রাণেন্দ্রিয় ,টাট্টুঘোড়া - আলোড়নে
স্মৃতির কণা নাকাল করে মুষ্টিমেয় ;
প্রাকৃত সব উপায় যখন সন্তোষী-মা -
জীব-জগতই - আশার ছলে দাবার-স্নেহ ।

বিপদ বুঝে অন্ধকারের নিদ্রা আসে
বিকট আকার যোগ-ত্রয়ের আস্তাবলে ;
অর্পিত সব অশ্বারোহী ভরসা জোগান ,
যদিও তখন গভীর রাতে ব্যাঙ ডাকে না ।

নিঃশব্দ - অশোধিত , উঁচুদরের -
ইস্তাহারের আবেশ লেগে অবাঞ্ছিত ;
উপায় কেবল পাতলা খরচ প্রবৃত্তিতে
যদিও তখন অশ্বারোহীর মান থাকে না ।

প্রাণ থাকে না দাবার স্নেহ অতিক্রমণ ,
দিক-চালনা নাকাল করে বুনো-আঁধার ;
তখন 'তারা'-তৃপ্তি সাধন ব্যঞ্জনাতে
জীবের সাথে চীনামাটির ভাব থাকে না ।


কবি কাকাতুয়া এবং প্রতিশ্রুতি 

১।
মনের নির্মোক দোলায় 
শিশিরের মাকড়সা এবং সামাজিক লোভ । 

কবি কাকাতুয়া 
মদন ভস্মের প্রাথমিক লিপি ; 
তোমাকে দেবো প্রেম ,  
শর ও স্বর গোলাপ ;  

কোনো রামী রজকিনী , ডাকের চিঠি , 
কয়েকটি অক্টোপাস , কিছু চ্যাপ্টা তালি , 
অন্তঃকরণের মেঘমল্লার আর অসহযোগ ; 

বাঁশির কসাই , কণ্ঠের মালাকার , 
বহু-ভাষিক পৃথিবী যেমন 
তেমনি তোমাকে দেবো শাঁখের শব্দ----- 
বাজাবো বিকার ; 

অবিকল নীড়ের পালক , আর 
বিচালির বুক দেবো - মন রাখবার । 


২।

ফিঙের পালকে আগুন লাগলে  
যতখানি আয়না দোলায় শীতল চাঁদ ,
অনেকটা তেমনই পথ ; 
আর কিছু না হোক আমি আমাতেই সৎ । 

পাতার চিবুকে করে জল তুলে ভেজাবো 
চোরা শিকারি-নখের মাল্লা পলক 
নামাবলী হারেম-খানায় , 
গুহার চিত্রলিপি চুম্বন ; 
থাকবো সাথে গঙ্গোত্রী - মোহনায় । 

রাত পেড়ে এনে দেবো , 
দিন ছিঁড়ে রাখব ভ্যানিটি ব্যাগে এবং 
গ্রহান্তরের পেপার কাটিং ; 

শুধু তোমারই জন্য পাথরের গাঙচিল ওড়াবো , 
মিউজিয়ামের সুখ ; 
শুধু তোমারই সাথে খেলবো --- 
হাট্টি-মাটিম-টিম ।  


Comments
0 Comments

-

সুচিন্তিত মতামত দিন

পাঠক পড়ছেন

 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

■ আপডেট পেতে,পেজটি লাইক করুন।
সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ | আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা
Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.