x

প্রকাশিত

​মহাকাল আর করোনাকাল পালতোলা নৌকায় চলেছে এনডেমিক থেকে এপিডেমিক হয়ে প্যানডেমিক বন্দরে। ওদিকে একাডেমিক জেটিতে অপেক্ষমান হাজার পড়ুয়ার ভবিষ্যৎ।​ ​দীর্ঘ সাতমাসের এ যাপন চিত্র মা দুর্গার চালচিত্রে স্থান পাবে কিনা জানি না ! তবে ভুক্তভোগী মাত্রই জানে-

​'চ'য়ে - চালা উড়ে গেছে আমফানে / চ'য়ে - কতদিন হাঁড়ি চড়েনি উনুনে / চ'য়ে - লক্ষ্মী হলো চঞ্চলা / চ'য়ে - ধর্ষিতা চাঁদমনির দেহ,রাতারাতি পুড়িয়ে ফেলা।

​হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা মানুষটি লালমার্কার দিয়ে গোল গোল দাগ দেয় ক্যালেন্ডারের পাতায়, চোদ্দদিন যেন চোদ্দ বছর। হুটার বাজিয়ে শুনশান রাস্তায় ছুটে যায় পুলিশেরগাড়ি, অ্যাম্বুলেন্স আর শববাহী অমর্ত্য রথ...। গঙ্গা দিয়ে বয়ে গেছে অনেকটা জল, 'পতিত পাবনী গঙ্গে' হয়েছেন অচ্ছুৎ!

এ কোন সময়ের মধ্যে দিয়ে চলেছি আমরা?

ছবিতে স্পর্শ করুন

শব্দের মিছিল

অতিথি সম্পাদনায়

সমীরণ চক্রবর্তী

সোমবার, জুলাই ২৫, ২০১৬

কৌশিক রঞ্জন খাঁ

sobdermichil | জুলাই ২৫, ২০১৬ | | মাত্র সময় লাগবে লেখাটি পড়তে।
koushik



ট্রেনে ডাকাতির কবলে কোনদিন পড়তে হয়নি আমাকে. তাই প্রহর গুনছিলাম। মুহূর্তগুলি পার হতে চাচ্ছিল না। মাঝপথে ট্রেন থেমে আছে। কোথায় কে জানে! আমাদের কামরায় তখনও কেউ ওঠেনি। উত্কণ্ঠায় গলা শুকিয়ে কাঠ হয়ে আসছিল। বিশেষ করে ওই হুমদো মুখো রেল পুলিশ দুটো কে দেখে একদিকে যেমন রাগ অন্যদিকে তেমনই হতাশা পেয়ে বসেছিল।

এরাও শেষ পর্যন্ত এই চক্রান্তে জড়িত ? আবার হাসতে হাসতে বলে কি ব্যাটারা - আভি ডাকু আয়েগা ইস কামরে মে অউর আপলোগোকা সবসে কিমটি সামান মংগ্নে লাগেগা....

দরজাতে ধূপধাপ করে কারা যেন উঠে আসছে.. আমি সন্তর্পণে আঙ্গুল থেকে সোনার আংটি খুলে সিটের নিচে চালান করে দিলাম....। প্রথমে একজন বৃদ্ধ লোক উঠে এলো.. খালি গা.. সাদা ধুতি হাঁটুর উপর.. সাথে ছয়-সাত বছরের বাচ্চা মেয়ে.. মেয়েটা প্রথম এগিয়ে এলো, বাবু হামে পিনে কা পানি চাহিয়ে। দিজিয়ে না বাবু। ভগবান আপ কা ভালা করে গা.....

বৃদ্ধটি ও একই কথা বলছে। পরে পরে বিভিন্ন বয়সী নারী পুরুষ উঠলো। প্রত্যেকের হাতে পাত্র.. প্রত্যেকে খাওয়ার জল চাইছে.. রেল পুলিশ দুটো মাথা নিচু করে বসেছিল। ডাকাত পড়েছে কামরায়, অথচ কর্তব্য সম্পর্কে উদাসীন..

আমার চোখে জল চলে এসেছিল ডাকাত ও ডাকাতির প্রশ্রয়দাতা রেলপুলিশদের জন্য. চোখের জল মুছে নিলাম দ্রুত. এখন জলের অপচয় করার সময় না..





Comments
0 Comments
 

এই ব্লগটি সন্ধান করুন

Support : FACEBOOK PAGE.

সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ ,আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা

Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

Blogger দ্বারা পরিচালিত.