সোমবার, ডিসেম্বর ৩১, ২০১৮

রুমকি রায় দত্ত

sobdermichil | ডিসেম্বর ৩১, ২০১৮ |
রুমকি রায় দত্ত
রাতের নির্জন অন্ধকার ধীরে ধীরে সরে যাচ্ছে। একটা সাদা ঘোলাটে কুয়াশার চাদর ক্রমশ প্রকাশিত হচ্ছে, যেন গাছগুলোর ফাঁকে ফাঁকে থোকা থোকা মেঘ। উঠে পড়েছি সকাল সকাল। স্নান আর ব্রেকফাস্ট সেরে বেড়িয়ে পড়তে হবে। ব্যালকনি খুলে বাইরে দাঁড়িয়ে দেখছি কুয়াশা ভেজা প্রকৃতিকে। এখনও হরিণের দল মাঠে নামে নি। বাঁদরগুলো মুখ গুঁজে ঝিমাচ্ছে।একটা দুটো মাঝে মাঝে পাশের ঘরের ব্যালকনির রেলিং থেকে ঝুলে পাক খেয়ে ফিরে যাচ্ছে। কিছুটা দূরে তাকাতেই চোখ স্থির হয়ে গেল। বেশ অনেকটা দূরে হালকা অবয়ব।একটা হাতি যাচ্ছে। বিস্মিত হলাম! এত সকালে বনের ভিতরে হাতি মানে! তবে কি জংলি হাতির দর্শন পেলাম শেষে? চলে যাচ্ছে হাতিটা একা একা। পরে জানলাম না, ওটা জংলি হাতি নয়, আনারকলি। সকালে খাবার খেতে এসেছে। ঠিক ন’টা, গাড়ি হাজির। লটবহর গাড়িতে তুলে শুরু করলাম ছোটা রাঁচির পথে। ড্রাইভার রফিকদা বললেন,যাওয়ার পথে একটা স্পট দেখাবেন ‘কেচকি সঙ্গম’। কালো পিচের রাস্তা দিয়ে ছুটে চলল গাড়ি। বেশ কিছুটা এগিয়ে যেতেই সামনে দেখলাম একটা ছোট্ট ব্রিজ। গাড়ি ক্রমশ গতি কমাচ্ছে। ব্রিজ বলে কি! না, গাড়ি গতি কমিয়ে বাঁ-দিকে বেঁকে গেল। একটা সরু কালো রাস্তা,মাঝে মাঝে ভাঙা।অদ্ভুত এক নির্জনতায় ঘেরা এই পথ! যেন কোনো এক অচিনপুরির পথে ছুটে চলেছি আমরা। জনহীন নির্জন একটা রেলগেটের সামনে দাঁড়িয়ে গেল গাড়ি। গল্পে পড়া ভুতুরে স্টেশনের চাক্ষুষ দর্শন।কোনো প্রভেদ নেই! একটা অদ্ভুত আন্দোলন চলছে মনের মধ্যে। একটা মেল ট্রেন ছুটে গেল সামনে দিয়ে। অনেক্ষণ দাঁড়িয়ে আছি, এবার নিশ্চয় গেট খুলবে! রফিকদা নেমে দাঁড়িয়ে আছেন বাইরে। জিপের ভিতর থেকে আমরা তাকিয়ে আছি কোনো এক অজানা লোকের খোঁজে, ‘গেটম্যান’। এতক্ষণ দাঁড়িয়ে আছি কাউকে দেখিনি। গেলেন কোথায় তিনি? রফিকদা এগিয়ে গিয়ে হাঁকডাক করে ডেকে আনলেন তাকে। এগিয়ে চললাম। এসে দাঁড়ালাম একটা বিস্তীর্ণ বালুভূমির সামনে। এই সেই ‘কেচকি সঙ্গম’।


হাঁটতে হাঁটতে এগিয়ে গেলাম নদীর অনেক কাছে। জল প্রায় নেই,শুকনো। ডানদিক থেকে ‘কোয়েল নদী’ আর বামদিকে ‘ঔরঙ্গা নদী’ এসে মিশেছে। দূরে আঙুল তুলে দেখালেন ড্রাইভার দা—‘ ঐ যে সঙ্গমস্থল,আর নদীর ঠিক উলটো পাড়ে আছে এক ডাকবাংলো, যেখানে বসে বুদ্ধদেব গুহ লিখেছেন তাঁর বিখ্যাত উপন্যাস ‘কোয়েলের কাছে’। ভীষণ নস্ট্যালজিক হয়ে পড়ছি যেন। মানস চোক্ষে দেখছি যেন সেই অরণ্য পুরুষকে। ভাবতে চেষ্টা করলাম ঠিক কিরকম ভঙ্গিতে বসে তিনি উপন্যাসটি লিখেছিলেন? এ অরণ্য,এ নদী-প্রকৃতি আমারও বড্ড প্রিয়। ওখান থেকে ফেরার পর লিখেছিলাম এক গল্প।একটা নয়, দু-দুটো গল্প। বালির ফাঁকদিয়ে স্বচ্ছ জল বয়ে চলেছে। দেখছি দু’চোখ ভরে। সময়ও বয়ে চলেছে,তাই ফিরতে হবে। ফিরিতি পথে এসে দাঁড়ালাম সেই ব্রিজটার সামনে। দু’পাশে বালির মাঝে মাঝে জল দাঁড়িয়ে অপূর্ব কারুকার্য ফুটে উঠেছে।না দেখলে কল্পনা করা যায় না। কোয়েল নদী বালির গায়ে প্রাকৃতিক আল্পনা এঁকেছে। বিচিত্র এই প্রকৃতির কোথায় কেমন খেয়াল বোঝা মুশকিল। ছুটতে ছুটতে গাড়ি এসে দাঁড়াল ডাল্টনগঞ্জ বাজারে। এখান থেকেই রাঁচির বাসে তুলে দিয়ে রফিকদা ফিরে গেলেন। 

রাঁচিতে আমাদের হোটেল ঠিক করা ছিল না। নেতারহাটে এক ট্যুরিস্ট যোগাযোগ করে দিয়েছিল নটরাজ হোটেলের সাথে। সেইমত রাঁচি নেমে রিকশা নিয়ে চলেছি। কিন্তু কোথায় সেই হোটেল? যে পথে চলেছি সেখানে শুধু বড় বড় বাড়ি।প্রায় আধঘন্টা পর একটা প্রাচীন জীর্ণ হোটেলের সামনে নামিয়ে দিল রিকশাওয়ালা। বাইরে থেকে দেখে কেমন যেন লাগছে। ভিতরটা যদিও আধুনিক সজ্জিত তবে, কেমন যেন রহস্যময় মনে হল। না, ঠিক পছন্দ হল না। বেরিয়ে এসে রিকশাওয়ালাকেই বললাম, ‘ভাই একটা ভালো হোটেলে নিয়ে চলো’।

সে বলল, ‘ আমি শুনেই ভাবছিলাম, আপনারা এখানে কেন থাকতে চাইলেন। এই এলাকাটা ভালো না একদম। রাতে একা বেরতেই পারতেন না’।

জানি না, কতটা ভয়ঙ্কর সেই জায়গা।আদেও সত্যিই রাঁচিতে এমন জায়গা আছে কিনা! রিকশাওয়ালা নিয়ে এলো আমাদের ‘হোটেল সাঁই’। আমাদের ওভার বাজেটের হোটেল। কিন্তু সেই মুহূর্তে আর অন্য কোথাও যেতে ইচ্ছা করছিল না। হোটেলের ঘরে ঢুকে হাতে- পায়ে জল ছোঁয়াতেই বেশ এনার্জি ফিরে পেলাম। পেটে তখন ছুঁচো মারছে ডন। ভালো মত পেটপুজো করে চারটের দিকে বেরিয়ে পড়লাম বাইরে। এই অঞ্চলটা রাঁচির প্রধান অঞ্চল। বাজার-হাট,বড় ও মাঝারি মাপের হোটেলে ঠাঁসা। সামনে দূরন্ত রাস্তা। অবিরাম ছুটে চলেছে গাড়ি। খুব কাছেই স্টেশন। বেশ ভালোই হল। ফেরার পথে ট্রেন ধরতে সুবিধা হবে। রাঁচির পথ পায়ে হাঁটছি আমরা।এভাবে কত অজানা পথ হাঁটতে হাঁটতে চিনে ফেলেছি। হঠাৎ মাথায় এল,কটা হোটেল ঘুরে দেখলে কেমন হয়? একটু যদি বাজেটটা কমানো যায়? অনেক হোটেল আছে। এমনই একটা বাজেটের হোটেলে কথা বার্তা পাকা করে নিলাম পরের তিনদিন থাকব।



পরেরদিন বেশ সকাল সকাল নতুন হোটেলে এসে উঠলাম। এখানেই স্নান,ব্রেকফাস্ট সেরে সাড়ে ন’টার মধ্যে বেরিয়ে পড়ব রাঁচির জোনহা আর হুড্রু ফলস দেখতে। এই হোটেল থেকে একটু এগোতেই অটোস্ট্যান্ড। প্রসঙ্গক্রমে বলে রাখা ভালো এখানে ঘুরে দেখার জন্য অটো অথবা ট্যাক্সি নিতে হয় দিনপ্রতি হিসাবে ভাড়া। দুটি পরিবার হলে ট্যাক্সি নেওয়া লাভজনক। আমরা অটো ঠিক করলাম। ঠিক সাড়ে ন’টার মধ্যে বেরিয়ে পড়লাম জোনহা ফলসের পথে। রাঁচি থেকে প্রায় পনেরো কিমি রাস্তা। ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি এই সময় রাঁচিতে যথেষ্ট ঠান্ডা। অটোতে ভালো করে নাক-মুখ ঢেকে বসে আছি। ছুটছে অটো। দু’পাশে সবুজের বাহার ছুটে চলেছে আমাদের সাথে। অপূর্ব পথশোভা! দশ-বারো কিমি যাওয়ার পর বাঁ-দিকে বেঁকে যাওয়া একটা কাঁচা রাস্তা দেখিয়ে অটো ড্রাইভার রাম কুমার সিংহ বললেন, ‘ইস রাস্তে সে হুড্রু যানা পরতা হ্যয়। হাম পহেলে জোনহা দেখেঙ্গে। ফিরতে ওয়াক্ত হুড্রু দেখেঙ্গে’। 

বললাম, ঠিক আছে। আপনি যেটা ভালো বুঝবেন সেটাই করুন। কিছুটা এগিয়ে ডানদিকে একটা কাঁচা রাস্তায় নেমে গেল অটো। গ্রামের ভিতরে আঁকাবাঁকা পথে ছুটে চলেছি। হঠাৎ একজায়গায় দেখলাম কয়েকটি বাচ্ছা ছেলে পলিপ্যাকে করে কুল বিক্রি করছে। এই সময় কুলের। এভাবে ঘুরতে আসা মানুষদের কাছে কুল বেচে দু’পয়সা উপার্জন হয় ওদের। চারিপাশে একটা অর্থনৈতিক অনটনের ছবি যেন। বিভিন্ন পথ ঘুরে এসে পৌঁছালাম জোনহার সামনে। তখনও সে অদৃশ্য। অটো পার্কিং এর টাকা মিটিয়ে সামনে এগিয়ে চলেছি হঠাৎ পিছন থেকে ডাক ‘ হেঁই দিদিমণি’। ঘুরে তাকিয়ে দেখলাম একটি অল্প বয়সের হাট্টা গাট্টা চেহারার ছেলে দ্রুত পায়ে এগিয়ে আসছে আমাদের দিকে। গায়ের রং বেশ কালো। মাথায় ঝাঁকরা চুল।বলল, ‘ তুমরা দোপহরে খাবে না?’

বললাম, খেতে তো হবে, কিন্তু এখানে কোথায় খাবার পাব। ফেরার পথে খেয়ে নেব কিছু।

ছেলেটি বলল, ‘ এখানেই পাবে। আমি খাবার রেঁন্ধে দেব। কি খাবে বলো। মুরগা নাকি আন্ডা কারি?’

তুমি রেঁধে দেবে? 

হ্যাঁ, দিদি। সবাই এখানে এসে এভাবেই খায়।

বলে দিমাল ঠিক আছে আন্ডা কারি বানাও। এক-দেড় ঘন্টার মধ্যে চাই কিন্তু।


সে মাথা নেড়ে চলে গেল। সামনে সুন্দর বাঁধানো সিঁড়ি ধাপে ধাপে উপরে উঠে গিয়েছে। বেশ কিছুটা উপরে ওঠার পর খাড়া ভাবে নিচে নেমে গিয়েছে। এখান থেকেই দেখা যাচ্ছে জোনহাকে। ঝিরঝির করে জলের ধারা নেমে আসছে,তবে ধারার বেগ অনেক কম। আসলে এইসময় নদীতে জল কমে যায়। নিচে জমে আছে পাথরের খাঁজে খাঁজে ঘনসবুজ জল। পরপর বেশ কিছু দুর্ঘটনা ঘটায় ওখানে নেমে স্নান করা নিষেধ। কিছুটা পর থেকেই কাঁটা তারের ঘেরা। কিন্তু সেসব উপেক্ষা করেই বেশ কয়েকটি ছেলে জলে নেমে হুল্লোড় করে চলেছে। ওদের চিৎকার পাথরের গায়ে ধাক্কা খেয়ে ছড়িয়ে পড়ছে দিকে দিকে। ভেঙে যাচ্ছে নীরবতার জাল। এমন পরিবেশে কথা ভালো লাগে না। নীরবতা আর ঝরণার গর্জন ছাড়া কিচ্ছু ভালো লাগে না। বিরক্ত হয়ে উঠছি ওই দলটির তকে তাকিয়ে। উপায় নেই, সহ্য করতেই হবে। প্রকৃতি তো আমার একার নয়। নামতে লাগলাম সিঁড়ি বেয়ে নিচে।একেবারে শেষ সিঁড়ি থেকে লাফিয়ে পড়লাম একটা বড় পাথরের গায়ে। একটু নিচেই জল। ক্যামেরায় বন্দি করতে লাগলাম প্রকৃতিকে। ওই পাথর থেকে নেমে সামনের দিকে কিছুটা গেলেই ঝরণার জল নদীর মতো বয়ে চলেছে। খুব ইচ্ছা হচ্ছে পা ডুবিয়ে বসি কোনো এক পাথরের গায়ে। কিন্তু কিছুটা এগোতেই দেখলাম আর পথ নেই। একটু উপরে পাহাড়ের গায়ে খোদায় করা সিঁড়ির রেখা বেয়ে নেমে এলো একটি ছেলে আর মেয়ে। ওই পথেই যেতে হবে ওপারে ওই পাহাড়ি নদীর কাছে। ধীরে ধীরে পৌঁছেলাম নদীর কাছে। বড় বড় পাথরের ফাঁকে নদী বয়ে চলেছে। স্বচ্ছ জল। নিচের শ্যাওলাধরা পাথর গুলো স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে। হালকা ডোবালাম পা। পায়ের নখে লাগানো সবুজ নেলপালিশ স্পষ্ট দেখাচ্ছে। ঠান্ডা চিনচিনে জলটা। পা থেকে ঠান্ডা অনুভূতিটা ক্রমশ ছড়িয়ে পড়ছে শরীরে। অসম্ভব এক তৃপ্তি। দূর থেকে হেঁটে আসছে একটা আদিবাসী মেয়ে কাপড়ের বোঝা নিয়ে। দূরত্ব ক্রমশ কমছে।খুব কাছে এসে পড়েছে সে। কেমন যেন নিজেকে শহুরে উপন্যাসের নায়িকা মনে হচ্ছে। মেয়েটি তার কাপড়ের বোঝা জলে ভিজিয়ে সাবান ঘষছে। একে একে আছাড় মারছে পথরের গায়ে। ফেনা মেশানো কালো জল বয়ে যাচ্ছে। স্বছ পাহাড়ি নদীটি তার বুকে ভাসিয়ে নিয়ে চলেছে সাবানের ফেনা। বেশ দূর পর্যন্ত দেখা যাচ্ছে সাবানের ফেনা। তারপর মিলিয়ে যাচ্ছে কোথায় যেন...ক্রমশ...। 

rumkiraydutta@gmail.com

Facebook Comments
0 Gmail Comments

-

 

বিশ্ব জুড়ে -

Flag Counter
Support : Visit Page.

সার্বিক অলঙ্করণে প্রিয়দীপ

Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

English Site best viewed in Google Chrome
Blogger দ্বারা পরিচালিত.
-