সোমবার, জুলাই ৩১, ২০১৭

রিয়া চক্রবর্তী

sobdermichil | জুলাই ৩১, ২০১৭ |
চিঠি
প্রিয় আষাঢ়

জানিস তো চিঠি আমার বড্ডো প্রিয় আজও। যদিও জানি সমস্ত প্রিয় জিনিস ,প্রিয় মানুষ হাতের মুঠি থেকে বেরিয়ে গেছে তাদের পছন্দ মতো। একা আমি দাঁড়িয়ে থাকি আর তাদের চলে যাওয়া দেখি। তবুও এই আধো আলো ভোরে, মনে মনে চিঠি লিখি তোকে।তোকেই ইচ্ছে করে লিখতে। ভীষণ ইচ্ছে এই চিঠি খুঁজে পেতে হাওয়ার নদী পথ সাঁতরিয়ে শুধু যাক তোর কাছে। অন্তত এই চিঠি পাক তোর ছোঁয়া। আমার এই এলোমেলো আবদারে আলো বেশে ভালোবেসে কাছে টেনে নিস এইতো, এইটুকুই তো চাওয়া। আর আমার চোখ আঁকুক জলছবি মনে মনে।

যখন হঠাৎ ঝড়ে গুটিয়ে নিয়েছি নিজেকে, তুই এলি একরাশ রামধনু রোদ হয়ে। বর্ষায় ঝিমঝিম গুঁড়ো গুঁড়ো মেঘ চুরি করে রাখি তোর জন্য। আয় একবার তুই, একবার আয় ,দেখি তোকে, ছুঁই তোকে। এক বুক সকাল যদি পাই, জড়ো করে নেবো এক মাঠ কাশ ফুল।পূর্ণিমার রাতে চাঁদ থেকে চুঁয়ে পড়ে দুধ নদী পেরিয়ে একবার আয়, আমার স্বপ্নদেখা তারা গুনি তোর চোখে।আমার হাত রেখে দেখ দেখি।এ হাত বড় জেদি, ছাড়বোনা, বুঝে নিস ছোঁয়াতে। ছোঁয়াছুঁয়ি-কানামাছি, কুমির ডাঙ্গা বিকেল। কত দিন হয়ে গেল, খেলি না। দূর থেকে ডাক আসে ঝিরঝির জলনদী মেঘেদের, আয় তুই, আজ ভিজে যাই দুজনেই। বৃষ্টিরা বড়বেশি আপন আমার। আর কারো সাথে তার ভাগ নেই। এইটুকু, এই সব ফোঁটা ফোঁটা জল-আদর শুধু থাক তোর আর আমারই।এই স্নিগ্ধ সকাল থেকে গাঢ় নীল সন্ধ্যেতে আলো মেখে, ভালো থাক।

জানিস এখন টুপটাপ শব্দ বাতাসে। আর আমি কান পেতে নিঃশ্বাস বন্ধ করে শুনতে চেষ্টা করছি। যদি তোকে কিছুটা হলেও শোনা যায়। বড় বেশি ভেজা চারপাশ।শব্দেরা তরঙ্গে তরঙ্গে তবু খেলে যায় লুকোচুরি।আমার আঙুলের ডগা বেয়ে ছুঁয়ে যায় মন, চোখ। অনেকটা অবকাশ হয়ে তুই কোন ফাঁকে আলগোছে এসেছিস আমার মনের জানলায়।জানালার ওপারে বৃষ্টির হাতছানি।মনে পড়ে এমনই কোনো দিন আর দাদুর পাশে চুপটি করে বসে।মন দিয়ে শোনা গল্প রুপকথার। রাজকুমার আর রাজকুমারীর দু:খ ব্যাথার।শুনতে শুনতে কখন যে কল্পনার পথে পথে দিলাম পাড়ি, অনেক অনেক দুরে চলে যেতাম ,আমার পরিচিত লোকালয় ছেড়ে। আজ সেই রূপকথা হারিয়েছি। সুতো কেটে উড়ে গেছে স্বপ্নের ঘুড়ি।একা আজ আমি সবার মাঝে।এখন আর হয়না দাদুর পাশে বসা,নেই দাদু আজ,নেই সেই রুপকথা। তবু আজও আছে সেই, পাতা ভেজানো, মন খারাপ করা বৃষ্টি গুড়ি গুড়ি।

তখন আমি তোকে দেখি, মনে মনে, আলতো আড়াল রেখে।মনে মনে তোর চোখে চোখ রেখে হারিয়ে যাই বহুদূর। তোকে দেখি আর রোজ রোজ ভাবি, পুড়ে যেতে বড় বুঝি সুখ! ঝলসে ঝলসেও কি আরামে থাকিস তুই!একটু একটু করে অন্যরকম হয়ে যায় সময়। তবুও অনেকটা চলা বাকি থেকে যায়। এই এত দূর থেকে আনমনে ভাবি, পুড়ে যাওয়া মন থেকে কি করে ভাসাস চন্দনের গন্ধ? আর এই গন্ধ, আর এই ভেজা ভেজা দিন, এই সব নিয়ে চলি আমি আমার পথ। স্বপ্নে তো রোজই আসিস, বাস্তবে যেদিন আসবি একখানা পাতা আনিস লুকিয়ে। আমি নেবো এক মুঠো রঙ। পাতা সেই হয়ে যাবে নৌকা, বুদবুদে রঙ জমে রামধনু। রামধনু যেই হবে মেঘ ,জলে ভাসিয়ে দেবো দুজনেই।তোর পাতা আমার রং নাহয় থাকুক এক সাথে, পাথ চলুক হাতে হাত রেখে। আকাশের গায়ে শুধু তোর হাসি। আলো হয়ে-ভালো থাক তুই।

রাতের তারাদের বুনে বুনে তোকে দেবো ঝিলিমিলি মাফলার, জড়িমড়ি করে রেখে দিস গলাতে।বর্ষার জোলো হাওয়া ছুঁয়ে যাক আমাকে।আয় তুই একবার স্বপ্ন দেখি দুজনেই, সুদিনের, সেদিনের। তুই শুধু আলো মেখে ভালো থাক, ভালো রাখ, ভালো ভাব,আর একটু ভালোবাস আমায়।

স্নান সেরে ভোরের মঙ্গল প্রার্থনায় তুই থাকিস অনেকটা জুড়ে। নিষ্পাপের অভিমানে, ভালো থাকিস তুই।

ইতি
তোর শ্রাবণ


Facebook Comments
0 Gmail Comments

-

 
Support : FACEBOOK PAGE.

সার্বিক অলঙ্করণে : প্রিয়দীপ,GS WorK । শব্দের মিছিল আহ্বায়ক : দেবজিত সাহা

Website Published and © by sobdermichil.com

Proudly Hosting by google

English Site best viewed in Google Chrome
Blogger দ্বারা পরিচালিত.
-